রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:১৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
পাকস্থলী থেকে একে একে বের করা হলো ১৪০০ পিস ইয়াবা প্রাইভেট মেডিক্যালের চিকিৎসাব্যয় নির্ধারণ করে দেবে সরকার : স্বাস্থ্যমন্ত্রী ৭ হাজার ৫শ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আর অংশ নেবে না বিএনপি টাকা না পেয়ে মাকে খুন, মাদকাসক্ত মেয়ে গ্রেফতার কিশোরগঞ্জে বাংলাদেশ স্বর্ণ শিল্প শ্রমিক ইউনিয়নের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত কিশোরগঞ্জে ট্রাক্টরচাপায় রিকশাচালকের মৃত্যু ৩০ মার্চ দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ ১২ বছরের নিরন্তর পরিশ্রমের ফসল: প্রধানমন্ত্রী কিশোরগঞ্জে ৩৫০ পিস ইয়াবা’সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

এতিম শিশুটির দায়িত্ব নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১১৫ বার পড়া হয়েছে
এতিম শিশুটির দায়িত্ব নিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

মা-বাবা হারা ১০ বছরের আলোচিত সেই শিশু রফিকুল ইসলামকে লালন-পালনের দায়িত্বভার নিলেন নওগাঁর রাণীনগরের গোনা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন হাসান।

বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এবং পরিবারের লোকজনের উপস্থিতিতে এবং সম্মতিতে ইউপি চেয়ারম্যান শিশুটির দায়িত্ব নেন।

শিশু রফিকুল ইসলাম নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের মৃত বাদেশ মণ্ডলের ছোট ছেলে। সে দ্বিতীয় শ্রেণীতে লেখা-পড়া করে।

রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আল মামুন জানান, ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসনাত খাঁন শিশুটিকে লালন-পালনের ইচ্ছে পোষণ করেন। পরে শিশু রফিকুলের পরিবারের লোকজনের উপস্থিতিতে ও সকলের সম্মতিতে সাময়িকভাবে রফিকুলকে লালন-পালনের দায়িত্বভার দেওয়া হয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান হাসানকে। এছাড়াও, শিশুটিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করাসহ তার খোঁজ-খবর নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

ইউএনও জানান, গত শনিবার রাতে রাজবাড়ির বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর রেলওয়ে স্টেশনে শিশু রফিকুলকে পাওয়া যায়। রবিবার দুপুরে সেখানকার স্থানীয় সোনার বাংলা সমাজকল্যাণ ও ক্রীড়া সংসদের আহ্বায়ক এসএম হেলাল খন্দকার শিশুটিকে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান। পরে বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাদের বিষয়টি জানান। এরপর বুধবার শিশু রফিকুলকে রাণীনগরে নিয়ে আসা হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান হাসান বলেন, ‘শিশুটির মা-বাবা কেউ বেঁচে নেই। বড় ভাই ও ভাবির কাছে থাকত। তাদের অভাবের সংসারে বড় ভাইটিও শারীরিকভাবে অক্ষম। তাই শিশু রফিকুলকে লালন-পালনের দায়িত্বভার আমি নিয়েছি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com