শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
আমাদের নিউজ সাইটে খবর প্রকাশের জন্য আপনার লিখা (তথ্য, ছবি ও ভিডিও) মেইল করুন onenewsdesk@gmail.com এই মেইলে।

কালিয়াচাপড়া চিনি কলের জমি বিক্রি; মার্কেট-দোকানঘর ও বাসা নির্মাণ

মো: মুঞ্জুরুল হক মুঞ্জু, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৮৬ বার পড়া হয়েছে
কালিয়াচাপড়া চিনি কলের জমি বিক্রি; মার্কেট-দোকানঘর ও বাসা নির্মাণ

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার কালিয়াচাপড়া চিনিকলের জমি আবারও বিক্রির চেষ্টা চলছে। সাফ কবলা দলিল ও মন্ত্রনালয়ের অনাপত্তিপত্রের শর্ত ভঙ্গ করে ১১ একর জমি বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে নিটল মোটরস লিমিটেডের বিরুদ্ধে। আর দলিল ছাড়াই এসব জমি কিনে সেখানে মার্কেট, দোকানঘর, বাসা ও রাস্তা নির্মাণ করেছে ক্রেতারা। নিটল মোটরস লিমিটেডের এসব অবৈধ কর্মকান্ডে ক্ষুদ্ধ স্থানীয় সুশীল সমাজ।

এ নিয়ে ২০২২ সালে ‘চিনিকলের জমি বিক্রির চেষ্টা’ শিরোনামে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে জমি বিক্রির কাজ বন্ধ থাকে। এক বছর পর শিল্প মন্ত্রনালয় থেকে শর্তযুক্ত একটি অনাপত্তিপত্র এনে আবারও জমি বিক্রি এবং বিক্রি হওয়া জমির দলিল করে দেওয়ার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মাইজহাটি গ্রামে কালিয়াচাপড়া চিনিকলটি ১৯৬৫ সালে স্থাপিত হয়। লোকসানের কারণে ১৯৯৪ সালে বন্ধ ঘোষনা করে সরকার। ২০২৪ সালে এটি বেসরকারি মালিকানায় ছেড়ে দেওয়া হয়। এ চিনিকলের অধীনে ১৯টি মৌজার বিভিন্ন দাগে মোট ১৮৪.৩ একর জমি রয়েছে। এর মধ্যে চিনিকল চত্বরসহ আশেপাশে রয়েছে ১৭৩.১৮ একর জমি। ১১.১২ একর জমি রয়েছে চত্বর থেকে অনেক দূরে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া, হোসেনপুর ও কটিয়াদী উপজেলাসহ ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার বিভিন্ন মৌজায় স্থাপন করা ১৮টি আখ ক্রয় কেন্দ্রের জায়গায়।

২০১৫ সালের ২৭ অক্টোবর সরকারের কাছ থেকে চিনিকল ও এর অধীনে থাকা সব জমি ও স্থাপনা সাফ কবলা দলিলে (দলিল নম্বর-৫৪৪৭) তিন কোটি ৮২ লাখ ৫০ হাজার টাকায় কিনে নেয় নিটল মোটরস লিমিটেড। সেই দলিলে শর্ত ছিল, ক্রেতা এসব জমিতে শিল্প স্থাপন বা সম্প্রসারণ ছাড়া অন্য কোন কাজে ব্যাবহার করতে পারবে না। এই শর্তের তোয়াক্কা না করে এবং বিক্রি হওয়া জায়গায় শিল্প স্থাপন ছাড়াই ওইসব জমি স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজনের কাছে বিক্রি করে দিচ্ছে।

এ নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় বিক্রি করে দেওয়া কোন জমির দলিল করে দেননি তৎকালীন পাকুন্দিয়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার মো. মোহসিন উদ্দীন আহমদ।

এর এক বছর পর গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর শিল্প মন্ত্রণালয়ের (বিরাষ্ট্রীয় করণ অধিশাখা) উপ-সচিব সঞ্জয় কুমার ঘোষ সাক্ষরিত একটি অনাপত্তিপত্র আনে নিটল মোটরস লিমিটেড। ওই অনাপত্তিপত্রেও একই শর্ত জুড়ে দেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, আখ ক্রয়কেন্দ্রের ১১.১২ একর জমি ক্রেতাপক্ষ নিটল মোটরস লিমিটেড কর্তৃক বিক্রয়/হস্তান্তরের ক্ষেত্রে ২০১৫ সালের ২৭ অক্টোবর তারিখে সম্পাদনকৃত সাফ কবলা দলিল নং-৫৪৪৭ এ উল্লেখিত শর্ত প্রতিপালন সাপেক্ষে নির্দেশক্রমে শিল্প মন্ত্রনালয় হতে অনাপত্তি প্রদান করা হলো। এই শর্তেরও তোয়াক্কা না করে এবং বিক্রি হওয়া জায়গায় শিল্প স্থাপন ছাড়াই আবারো ওইসব জমি বিক্রি এবং বিক্রি হওয়া জমির দলিল করে দেওয়ারও চেষ্টা করা হচ্ছে।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, চিনিকলের পাকুন্দিয়া সদর মৌজার আখ ক্রয়কেন্দ্রের জায়গায় মাটি ভরাট করে সেখানে দোকানঘর, বাসা ও চলাচলের রাস্তা নির্মান করা হয়েছে। উপজেলার তারাকান্দি মৌজার জায়গায় মাটি ভরাট করে সেখানে ৪৭টি দোকানসহ একটি মার্কেট নির্মান করা হয়েছে। সেখানে প্রতিদিন সকালে কাঁচাবাজার বসে। মঠখোলা ও কটিয়াদীর চারিপাড়া মৌজার জায়গার চারপাশে পাকা খুঁটি পুঁতে কাঁটা তারের বেড়া দিয়ে দখলে নিয়েছেন ক্রেতারা। ওইসব জায়গা কেউ কেউ ফের বিক্রির জন্য প্লট তৈরি করছে।

কালিয়াচাপড়া চিনি কলের জমি বিক্রি; মার্কেট-দোকানঘর ও বাসা নির্মাণ

এ বিষয়ে পাকুন্দিয়া পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের হাসান আল মামুন বলেন, আমি পাকুন্দিয়া সদর মৌজার ৫২ শতাংশ জমি কিনেছি। এখন এই জমি প্লট আকারে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দিয়েছি। শুধু এটি নয় তারাকান্দি ও রামপুরসহ আরও ছয়টি আখ ক্রয়কেন্দ্র বিক্রি করা হয়েছে। প্রত্যেকই দোকান ও বাসা করার জন্য প্লট আকারে এসব জমি কিনে নিয়েছে।

উপজেলার তারাকান্দি গ্রামের বাসিন্দা ও তারাকান্দি জামে মসজিদের ওয়াকফ এস্টেটের মতুয়াল্লী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, আমি ওয়াকফ এস্টেটের নামে তারাকান্দি আখ ক্রয় কেন্দ্রের জায়গা থেকে তিন লাখ ৭০ হাজার টাকা শতংশ দরে ৪৭ শতাংশ জমি কিনেছি। প্রায় এক বছর আগে এক কোটি টাকা দিয়ে বায়নাপত্র দলিল করেছিলাম। কথা ছিল সাফ কবলা দলিলের সময় অবশিষ্ট টাকা পরিশোধ করা হবে। কিন্তু এখনও দলিল দিতে পারেনি নিটল মোটরস লিমিটেড।

একই গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য মো. মানিক মিয়া বলেন, তারাকান্দি আখ ক্রয়কেন্দ্র থেকে ৪ লাখ টাকা শতাংশ দরে আমি ২০ শতাংশ জমি কিনেছি। প্রায় এক বছর পার হয়ে গেছে কিন্তু এখনও জমি রেজিস্ট্রি করে দিতে পারছে না। আমি কাউন্সিলর মামুনের মাধ্যমে জমি কিনেছিলাম। তিনি বলেছেন, অতি দ্রুতই জমি দলিল করে দিবেন। দলিলে সাক্ষর করবেন কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

এ বিষয়ে পাকুন্দিয়া উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার মো. জুয়েল মিয়া বলেন, মন্ত্রণালয়ের একটি অনাপত্তিপত্র সঙ্গে নিয়ে নিটল মোটরস লিমিটেডের লোকজন দলিল করতে আমার কাছে এসেছিলেন। দলিলের শর্ত এবং অনাপত্তিপত্রের বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে তাদের জানিয়ে দিয়েছি।

এ বিষয়ে নিটল মোটরসের কালিয়াচাপড়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মাহবুবুল হক বলেন, স্থানীয়ভাবে এসব তথ্য দেওয়া সম্ভব নয়। তিনি ঢাকা কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে পরামর্শ দেন। ঢাকা কার্যালয়ের প্রকল্প পরিচালক ওমর ফারুকের সঙ্গে কথা হলে তিনি এ বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজি হননি। তবে নিটল মোটরস লিমিটেডের আইন উপদেষ্টা এডভোকেট রেজা আহমেদ বলেন, কিভাবে জমি বিক্রি করা হচ্ছে আপনি জমিদাতা শিল্প মন্ত্রনালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে পারেন।

পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. বিল্লাল হোসেন বলেন, দলিলের শর্তের বাইরে জমি বিক্রি করার কোন সুযোগ নেই। যদি হয় তা হবে সম্পূর্ণ অবৈধ।

শিল্প মন্ত্রনালয়ের (বিরাষ্ট্রীয় করণ অধিশাখা) উপসচিব সঞ্জয় কুমার ঘোষ বলেন, জমি বিক্রির সময় দলিলে যে শর্ত দেওয়া হয়েছিল সেই শর্ত প্রতিপালন সাপেক্ষে অনাপত্তিপত্রে জমি বিক্রি করার কথা বলা হয়েছে। শর্ত ভঙ্গ করে অন্য কোন কাজে এ জমি ব্যবহার করা যাবে না। বিষয়টির খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2024 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com