বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন

কুলিয়ারচরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর নির্মাণ ও বণ্টনে ব্যাপক অনিয়ম

আলী হায়দার, কুলিয়ারচর, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৮৬ বার পড়া হয়েছে
কুলিয়ারচরে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর নির্মাণ ও বণ্টনে ব্যাপক অনিয়ম

প্রবাসীর স্ত্রী, ভূমি ও ঘর আছে তারাও পেয়েছে উপহার ঘর

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহার দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ ও বণ্টনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ভূমিহীনদের নামে দুই শতাংশ খাসজমি বরাদ্দ পরিবর্তে দীর্ঘ সময় প্রবাসে থাকা আর্থিক সচ্ছল প্রবাসীর স্ত্রী থেকে শুরু করে ভূমি ও ঘর আছে এমন ব্যক্তিরাও পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী দেওয়া ভূমিহীনের ঘর।

 

সরজমিনে ঘুরে এসব অভিযোগের সত্যতা মিলেছে। এছাড়া এসব ঘর নির্মাণ কাজের প্রতিটি ধাপে ব্যাপক অনিয়ম ও নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা সহ আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ উঠেছে। ফলে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে সরকারের এই মহৎ উদ্যোগ।

গত (১০ ফেব্রুয়ারি) বুধবার ও (১১ ফেব্রুয়ারি) বৃহস্পতিবার তালিকায় ঘর প্রাপ্তিদের বাড়ি বাড়ি ঘুরে দেখা গেছে, ভূমিহীনদের মাঝে বিতরণ হওয়ার ঘর প্রাপ্তির কেউ সচ্ছল প্রবাসীর স্ত্রী আবার কেউ ভূমি ও ঘরের মালিক। এছাড়া একাধিক বার সরজমিনে ঘর নির্মাণের কাজ দেখতে গিয়ে দেখা যায়, প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর নির্মাণে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহার ও প্রয়োজনের তুলনায় কম সিমেন্ট দিয়ে ঘর তৈরি করছে। ফলে এসব ঘর নির্মাণের পর দেয়ালে হাত দিয়ে আঘাত করলেও দেয়াল থেকে আস্তর খসে পড়ছে। ফলে এসব ঘর যেকোনো সময় ধ্বসে পড়ার আশংকা থেকে যাচ্ছে । এছাড়া ঘরের চালে হালকা ও নিম্নমানের পাতলা কাট ও পাতলা টিন ব্যবহারের ফলে বড় ধরনের বাতাস কিংবা ঝড়-তোফানে এসব ঘরের চাল টিকবে কি-না সেই শংকাও রয়ে যাচ্ছে। এনিয়ে স্থানীয়দের মধ্যেও ক্ষুব্ধ ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীর উপহারের পাকা বাড়ি পেল ৭০ হাজার গৃহহীন পরিবার

উপজেলার বাজরা ও জগৎচর এলাকায় তৈয়ারিকৃত ব্যারাকের সুবিধাভোগী ৪ নম্বর ঘরের মালিক মো. বাচ্চু মিয়া, ৭নং ঘরের মালিক মোছা. জহুরা বেগম, ৯নং ঘরের মালিক মো. সবুজ মিয়া ও ১১নং ঘরের মালিক মোছা. রোকিয়া বেগমের সাথে কথা হলে তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘরের চাবি বুঝে পেলেও এখন পর্যন্ত ঘর বুঝে পাননি তারা। কারণ উল্লেখ করে তারা বলেন, ঘর নির্মাণ কাজ এখনো শেষ হয়নি। এছাড়া তারাসহ এলাকার মো. চান্দু মিয়া (৪৫), মো. মিজান (৩৫), মো. মাসুদ মিয়া (৪৫) ও মো. ফারুক মিয়া (৫০) অভিযোগ করে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নির্মাণাধীন উপহার ঘর নির্মানে নিম্ন মানের ইট, বালু, কাঠ, টিন ও প্রয়োজনের তুলনায় সিমেন্ট কম ব্যবহার করা হচ্ছে। যার ফলে দেয়াল থেকে আস্তর ধ্বসে পরছে। ভেঙ্গে পড়ছে দেয়াল ও পিলার। সৌন্দর্যের জন্য দেয়ালে ব্যবহার করা রং একেবারেই নিম্ন মানের হওয়ায় রং লাগানোর পর পরই ফ্যাকাসে হয়ে সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে বিশ্রী দেখাচ্ছে। সমান্তরাল স্থানে নির্মানকৃত এসব ঘর কোনোটা উঁচু আবার কোনোটা অনেক নিচু হওয়ার কারনে বৃষ্টি হলে নিচু ঘরে পানি ঢুকে পড়ার শংকা রয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প আশ্রয়ণ-২ এর আওতায় এ উপজেলায় ২০টি ভূমিহীন পরিবারকে ২ শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্ত দিয়ে একটি করে সেমি পাকা ঘর নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। যার প্রতিটি ঘর নির্মাণের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। এই প্রকল্পের অধীনে নির্মাণাধীন এই কাজের দেখভাল করছেন স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন। এ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ বাস্তবায়নে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়াৎ ফেরদৌসী এবং ঘর নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নের দায়িত্ব পালন করছেন প্রকল্পের সচিব উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোসা. খাদিজা আক্তার।

আরও পড়ুন: কুলিয়ারচর উপজেলার ছয়সূতীর ইউপি চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত

প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোসা. খাদিজা আক্তার কাজের তদারকি করছেন বলে তার অফিস সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তিনিই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগিতায় উপজেলার দ্বাড়িয়াকান্দি এলাকার সালাহউদ্দিন নামক এক ব্যক্তির মাধ্যমে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে এসব ঘর নির্মাণ করেছেন বলে জানা যায়।

ভূমিহীনদের মাঝে ২ শতাংশ করে খাস জমি বন্দোবস্ত দেওয়ার দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সারমিনা সাত্তার। তিনি বিভিন্ন ইউনিয়নের নায়েবদের সহযোগীতায় প্রকৃত ভূমিহীনদের মাঝে সরকারি খাস জমির দলিল রেজিষ্ট্রি করে না দিয়ে জমি ও গৃহ আছে এমন স্বচ্ছ ব্যক্তিদের মাঝে ২শতাংশ করে ভূমি রেজিষ্ট্রি করে দিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছেন। এলাকাবাসীর ধারণা কোন লাভ ছাড়া তিনি এ কাজগুলো করেননি।
গত ২৩ জানুয়ারি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব ঘর উদ্বোধন করলেও এখন পর্যন্ত ঘর নির্মাণ কাজ সমাপ্ত না হওয়ায় ভূমিহীনদের মাঝে এসব ঘর বুঝিয়ে দিতে পারেনি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি।

এব্যাপারে প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোসা. খাদিজা আক্তারের নিকট ঘর নির্মাণের ওয়ার্ক ওয়ার্ডার দেখতে চাইলে তিনি বিষয়টি এরিয়ে গিয়ে বলেন, এব্যাপারে ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলুন।

ঘর নির্মাণ কাজে অনিয়ম ও নিম্নমানের কাজ হওয়ার বিষয়ে জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে প্রকল্পের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়াৎ ফেরদৌসী ক্ষেপে গিয়ে বলেন, কে অভিযোগ করেছে? তাকে আমার অফিসে নিয়ে আসেন এবং লিখিত অভিযোগ করুন।

কিশোরগঞ্জে ইয়াবা’সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

এব্যাপারে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীনদের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া উপহার ঘর নির্মাণে কোন রকম দূর্নীতি সহ্য করা হবেনা। যদি কেউ নিম্নমানের দ্রব্য সামগ্রী দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহার ঘর নির্মাণ করে সরকারের এ মহৎ উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে ভাবমূর্তী ক্ষুন্ন করে তা হলে তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা। সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়ে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বাস্তবায়নে দূর্নীতি মুক্ত শোষণহীন সমাজ প্রতিষ্টা করতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন সোনার বাংলা বাস্তবায়িত হবে।

আরও পড়ুন: গৃহহীনদের ঘর উপহার সবচেয়ে বড় উৎসব: প্রধানমন্ত্রী

নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
%d bloggers like this: