বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৮:২৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :

গরম বাতাসে ফসল নষ্ট, কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে চার সদস্যের প্রতিনিধি দলের হাওর পরিদর্শন

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫৪ বার পড়া হয়েছে
গরম বাতাসে ফসল নষ্ট, কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে চার সদস্যের প্রতিনিধি দলের হাওর পরিদর্শন

গত রোববারে (৪ এপ্রিল) রাতে কালবৈশাখী ঝড় ও গরম বাতাসে কিশোরগঞ্জে নিকলী উপজেলার সাড়ে ছয় হাজার একর জমির বোরো ধান নষ্ট হয়ে গেছে। কৃষি বিভাগের প্রাথমিক হিসেব বলছে, ৬ হাজার ৫৮৮ একর জমির ধান নষ্ট হয়েছে ওই গরম বাতাসে। তবে এ সংখ্যা আরও বেশি বলে দাবি কৃষকদের।

এ দিকে গরম বাতাসে বোরো ধানের ক্ষতিগ্রস্ত জমি পরির্দশনে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে চার সদস্যে এক প্রতিনিধি দল বুধবার দুপুরে (৭এপ্রিল) নিকলীর ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন হাওর পরিদর্শন করেছে। তারা হলো সিনিয়র কৃষি সচিব মেজবাউল ইসলাম, মহাপরিচালক কৃষি সম্প্রারণ অধিদপ্তর কৃষিবিদ মোঃ আসাদউল্লা, ধান গবেষণা ইনষ্টিউট মহাপরিচালক ডঃ শাজাহান কবির, ঢাকা অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক (ধান) বশির আহম্মেদ সরকার। এ সময় সঙ্গে ছিলেন, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রসাশক মোঃ শামীম আহমেদ,জেলা খামার বাড়ির উপ-পরিচালক সাইফুল আলম, নিকলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুস ভ’ইয়া, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সামছুদ্দিন মুন্না, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন প্রমূখ।

রোববার (৪এপ্রিল) সন্ধ্যা থেকে কয়েক ঘণ্টা ধরে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের হাওরের ওপর দিয়ে বয়ে যায় কালবৈশাখী ঝড় ও গরম বাতাস। এতে ফ্লাওয়ারিং স্টেজে থাকা বিআর-২৯ জাতের ধানের ছড়া ফেটে ভেতরের সাদা তরল দুধ শুকিয়ে গেছে। সাদা বিবর্ণ হয়ে পড়েছে ধানের গাছ। এ ঘটনায় কৃষকদের কপালে চিন্তার ভাঁজ। অনেকের চোখে আবার পানি। রয়েছে পরিবারের সদস্যদের মুখে ভাত তুলে দেওয়ার চিন্তা। যারা ঋণ করে ফসল চাষ করেছেন তাদেরকে দেখা গেছে অসহায়র মত ফেল ফেল হাওরের দিকে থাকিয়ে আছে।

রোববার বিকেলে মাঠের সবুজ ধান ক্ষেতের সতেজতা দেখে বাড়ি গেছেন নিকলী সদর ইউনিয়নের কৃষক প্রতিবন্ধী ইসরাইল মিয়া। কিন্তু সোমবার বিকেলে ক্ষেতের আইলে গিয়েই দেখেন তার সবুজ স্বপ্নগুলো ধূসর হয়ে গেছে। নষ্ট হয়ে যাওয়া ধানের গোছা হাতে নিয়ে ক্ষেতের আইলেই বসে পড়েন তিনি। জানালেন, ধার-দেনা করে দুই একর জমিতে বোরো ধান রোপণ করেছেন। এ জমিকে ঘিরেই ছিল তার সম্ভাবনার হাতছানি। কিন্তু এমন অবস্থায় তিনি চোখে অন্ধকার দেখছেন। আমি ধার-দেনা কীভাবে শোধ করব? আমার সংসার চলবে কী করে? আর কিছু দিন সময় পেলেই ধান গাছগুলো পরিপক্ক হয়ে যেত। কৃষক মরু সর্দার মিয়া বলেন, হঠাৎ করে গরম হাওয়ায় সবুজ ধানের গাছ আস্তে আস্তে ধূসর হয়ে পড়েছে। পরের দিন রোদ ওঠার পর আমরা বিষয়টি টের পাই। সদর ইউনিয়নের কৃষক সাইদু মিয়া, সাগর মিয়া, নুরহোসেন, রশিদ মাঝি বলেন, আমাদের জীবনে এমন গজব আর দেখি না। আমরা এখন সারা বছর কী খেয়ে বেছেঁ থাকবো ? আমাদের জমির সব ধান ওই গরম বাতাসে শেষ করে দিছে।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, পরাগায়ন পর্যায়ে ৩০ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রায় ধানের পূর্ণতা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঝড়ের সময় ৩৫ ডিগ্রি তাপমাত্রায় প্রচ- বেগে বাতাস বয়ে যাওয়ায় উপজেলায় ৬ হাজার ৫৮৮ একর জমির ধান নষ্ট হয়ে গেছে। এর মধ্যে এক হাজার একর জমির ধান শতভাগ নষ্ট হয়ে গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন ৩৬ হাজার ৮৬৩ একর জমিতে বোরোর আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে হাইব্রিড (হীরা) জাতের ধান, বিআর ২৯ ধানে ক্ষতি বেশি হয়েছে। তবে সাতটি ইউনিয়নের হাওরের মধ্যে কারপাশা ইউনিয়নের বড় হাওরে ক্ষতির পরিমাণ বেশি।

amena.com.bd

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Theme Customized by Le Joe
%d bloggers like this: