বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন

গ্রেনেড হামলায় নিহত লিটনের বাবা-মায়ের করুণ আর্তি

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় শনিবার, ২১ আগস্ট, ২০২১
গ্রেনেড হামলায় নিহত লিটনের বাবা-মায়ের করুণ আর্তি

যুবলীগ নেতা লিটন মুন্সী। মাদারীপুর জেলার রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের উত্তর হোসেনপুর গ্রামের আইয়ুব আলী মুন্সীর ছেলে। দলের জন্য ছিলেন নিবেদিত প্রাণ। যেখানেই আওয়ামী লীগের মিটিং-মিছিল হতো সেখানেই ছুঁটে যেতেনে তিনি। তিনি ছিলেন দলের নিবেদিত ও বিশ্বস্ত কর্মী।

আর সেই টানেই লিটন সেদিন সমাবেশে যোগ দিতে ঢাকা গিয়েছিলেন এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ-এ অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার সমাবেশে যোগ দিতে গিয়ে বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় নির্মমভাবে নিহত হন।

নিহত লিটনের পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একবার সহযোগিতা করলেও পরে গত তিন বছরে কেউই আর তাদের খবর নেয়নি। ফলে একমাত্র সন্তানের মৃত্যুর পর শেষ বয়সে অসহায় জীবন যাপন করছেন তার বাবা-মা। যে ঘরটিতে তারা থাকেন, ততে বৃষ্টি হলেই টিনের ফাঁক দিয়ে পানি পড়ে। তাই গ্রামের বাড়িতে সরকারিভাবে একটি ঘর নির্মাণের দাবি তাদের।

বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলায় নিহতদের পরিবার কেমন আছে, জানার জন্য আজ শুক্রবার রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের উত্তর হোসেনপুর গ্রামের যুবলীগ নেতা নিহত লিটন মুন্সীর বাড়ি গেলে এক হৃদয় বিদারক ঘটনার সৃষ্টি হয়। ১৭ বছর পার হলেও লিটনের বাবা- মায়ের ভাগ্যের তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। লিটনের স্ত্রী মাফিয়া বেগম লিটন মারা যাওয়ার তিনবছর পর প্রবাসী এক যুবককে বিয়ে করে শশুর বাড়িতে থাকেন। সরকারি সুযোগ-সুবিধা পেয়ে একমাত্র মেয়ে মিথিলা মোটামুটি ভালই আছে।

এ সময় লিটন মুন্সীর মা আছিয়া বেগম, বাবা আইয়ুব আলী মুন্সী, বোন ইসমতআরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। মা আছিয়া বেগম বলেন, ‘আমার বাবা (লিটন মুন্সী) বলেছিল পুরোনো ঘর মেরামত করার দরকার নেই। আমি এখানে বিল্ডিং দিব। কিন্তু সেটা আর হয় নাই । পুরোনো ঘরেই আমরা থাকি। ঘরের চাল দিয়ে পানি পড়ে। প্রধানমন্ত্রী যদি আমাদের গ্রামের বাড়িতে একটি ঘর নির্মাণ করে দেন তাহলে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ভালভাবে থাকতে পারব। আমরা দুজনেই অসুস্থ। প্রতিমাসে আমাদের ৫ থেকে ৬ হাজার টাকার ওষুধ লাগে। এসব টাকা পাব কোথায়?’

তিনি আরও জানান, ‘শুনেছি প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ সালে লিটনের মেয়ে মিথিলার নামে ঢাকায় একটি ফ্লাট এবং ৫ লক্ষ টাকা দিয়েছেন। এ ছাড়াও প্রতিমাসে তার খরচ বাবদ ৫ হাজার করে টাকা দেন। মিথিলা মাদারীপুর থাকে। মাঝে মাঝে আমাদের কাছে ফোন করে।’

লিটনের বাবা আইয়ুব আলী মুন্সী জানান, ‘আমার ছেলের তো কোন দোষ ছিল না। আমার একমাত্র ছেলেকে কবরে শুইয়ে রেখে কীভাবে বেঁচে আছি বলতে পারেন? সরকারিভাবে ৫ লক্ষ টাকা পেয়েছিলাম। চিকিৎসা করতে সে টাকা খরচ হয়ে গেছে। এখন আমি মাসে ৩ হাজার টাকা করে সরকারি ভাতা পাই। এতে আমাদের সংসার চলে না।’ এ সময় তিনি হামলাকারীদের শাস্তির রায় কার্যকরের দাবি জানান।

নিহত লিটন মুন্সীর একমাত্র মেয়ে নুসরাত জাহান মিথিলা বলেন, ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় যখন আমার বাবা মারা যান তখন আমি খুবই ছোট ছিলাম। বাবা কি জিনিস তা বুঝতে পারিনি। বাবার আদর পাওয়ার আগেই বাবাকে হারিয়েছি। হামলার ঘটনায় অপরাধীদের বিচারের রায় দ্রুত কার্যকর হলেই আমার বাবার আত্মা শান্তি পাবে।’

মিথিলার মা মাফিয়া বেগম জানান, ‘মিথিলা এখন মাদারীপুর ডনবান সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণিতে পড়ে। সরকারের কাছে অনুরোধ পড়াশুনা শেষে তাকে যেন একটি চাকরি দেওয়া হয়।’

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: