শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩৩ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
আমাদের নিউজ সাইটে খবর প্রকাশের জন্য আপনার লিখা (তথ্য, ছবি ও ভিডিও) মেইল করুন onenewsdesk@gmail.com এই মেইলে।

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ে চট্টগ্রামে ৫৮৫৪ ঘর বিধ্বস্ত

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২২
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে
ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ে চট্টগ্রামে ৫৮৫৪ ঘর বিধ্বস্ত

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের তাণ্ডবে বিধ্বস্ত হয়েছে চট্টগ্রামের ৬৬ ইউনিয়নের ৫৮৫৪ ঘর। এর মধ্যে আংশিক বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে ৫ হাজার ৭৬০ এবং সম্পূর্ণ বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে প্রায় ৯৪টি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রুম থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে চট্টগ্রামের ১৫ উপজেলার মোট ৬৬টি ইউনিয়নের ৫৮ হাজার ৫৭২ জন মানুষ দুর্যোগের কবলে পড়ে। তবে কোথাও নিখোঁজের সংবাদ পাওয়া যায়নি। মিরসরাই উপজেলায় একটি বালু উত্তোলনের ড্রেজার উল্টানো অবস্থায় পাওয়া যায়। সেটি উদ্ধারে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস।

এছাড়া ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে যারা খাবার খেতে সমস্যায় পড়েছিলেন তাদের মধ্যে খাবার বিতরণ করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের ম্যাজিস্ট্রেটরা। এর মধ্যে চাল দেয়া হয়েছে ২১ মেট্রিক টন, শুকনো খাবার ৮শ’ প্যাকেট, ড্রাই কেক ৩৭৫ কার্টুন এবং বিস্কিট ৫২০ প্যাকেট। একইসঙ্গে দুর্যোগে পড়া মানুষদের ১৫ হাজার পোশাক দেয়া হয়েছে।

এদিকে, চট্টগ্রামের ঝুঁকিপূর্ণ ৬টি উপজেলার জন্য দেয়া হয়েছে ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা। উপজেলাগুলো হলো— সন্দ্বীপ, বাঁশখালী, সীতাকুণ্ডে, আনোয়ারা, মিরসরাই এবং কর্ণফুলী। একইসঙ্গে যাদের ঘর ভেঙে গেছে তাদের জরুরি উপকরণ হিসেবে ঢেউটিন এবং গৃহনির্মাণ মজুরি দেয়া হয়েছে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের তাণ্ডবে বিধ্বস্ত চট্টগ্রাম ইপিজেডের জেলে পল্লী। এই এলাকার প্রায় দেড় শতাধিক পরিবার হারিয়েছে তাদের সর্বস্ব। খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে তারা।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো জানায়, লাখ লাখ টাকার ঘরসহ সরঞ্জাম ও প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র সাগরে ভেসে গেছে তাদের চোখের সামনেই। কেনো পরিবার সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় না নিলেও পরিবার নিয়ে বেড়িবাঁধে দাঁড়িয়ে নির্বাক দৃষ্টিতে দেখেছে ঘূর্ণিঝড়ের ভয়ঙ্কর থাবায় সবকিছু তছনছ হয়ে যাওয়া।

বিশেম্বর জলদাশ নামে এক ব্যক্তি বলেন, এই ঘূর্ণিঝড়ে আমার ৭ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। দুটি বোট, ১০০টি টং জাল, ২০টি বিনি জাল, রশি, ফোলা, বাঁশ, ঘরসহ বিভিন্ন মালামাল সব পানিতে ভেসে গেছে। আমার মতো এভাবে আরও ৭০ জনের ক্ষতি হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের সময় জীবন রক্ষায় বেড়িবাঁধ আশ্রয় নিয়েছি।

অন্যদিকে, বাঁশখালীতে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে চিংড়ি ঘের, ঘরবাড়ি ও বেড়িবাঁধের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বাঁশখালীর উপকূলীয় এলাকার বেড়িবাঁধ টপকে জোয়ারের পানি প্রবেশ করতে শুরু করে। ফলে মানুষের ঘরবাড়ি, চিংড়ি ঘের ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতবিক্ষত হয়ে গেছে বেড়িবাঁধ।

জোয়ারের পানিতে কুতুবদিয়া চ্যানেলের তীরবর্তী বেড়িবাঁধ ভেঙে উপকূলীয় এলাকার ছনুয়া, খানখানাবাদের রায়ছটা, কদমরসুল ও প্রেমাশিয়া, বাহারছড়া রত্নপুর, সরল ইউনিয়নের মিনজীরিতলা, কাথরিয়ার বাগমারা, গন্ডামারা ইউনিয়নের খাটখালী, পশ্চিম বড়ঘোনা ও পূর্ব বড়ঘোনা গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। জলকদর খালের বেড়িবাঁধ ভেঙে পুঁইছড়ি ইউনিয়নের ফুটখালী, আরবশাহ্ ঘোনা, সরলিয়া ঘোনা, ছনুয়া ইউনিয়নের মধুখালী, আবাখালী ও খুদুকখালী, চাম্বল ইউনিয়নের ডেপুটিঘোনা, বাংলা বাজার, শীলকূপ ইউনিয়নের পশ্চিম মনকিচর, শেখেরখীল ইউনিয়নের লালজীবন গ্রামে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে। নিম্নাঞ্চলের প্রায় ৭০ ভাগ বসতঘরে জোয়ারের পানি প্রবেশ করেছে। তলিয়ে গেছে মাছের ঘের, পুকুর ও রাস্তাঘাট।

সিত্রাংয়ের প্রভাবে সন্দ্বীপ উপজেলার কয়েকটি এলাকায় পানি ঢুকেছে। সারিকাইত ইউনিয়নের বাংলাবাজার এবং সওদাগর হাট, মাইটভাঙ্গার চৌধুরী বাজার, হরিশপুর ইউনিয়নের নাজিরসেতু এবং মুছাপুর ইউনিয়নে বেড়িবাঁধ টপকে পার্শ্ববর্তী বাড়িঘরে প্রায় ২ থেকে ৪ ফুট পানি উঠেছে। এসব এলাকার পুকুর ও রাস্তাঘাটে ডুবে গেছে।

জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে দেশের অন্যতম ভোগ্যপণ্যের বড় বাজার চাক্তাই খাতুনগঞ্জ। রাত ১২টায় এ বাণিজ্যপাড়ার প্রায় দোকান-গুদাম পানি ঢুকে ডুবে যায়। ৯১’র প্রলংকরী ঘূর্ণিঝড়ের পর গতকাল রাতে চিত্রাংয়ের প্রভাবে সৃষ্ট পানিতে ডুবছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। ৮০ শতাংশ দোকান ও গুদামে পানি ঢুকে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে ব্যবসায়ীদের।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2024 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com