বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৪:১৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ধর্ষিতার ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে রিট দৈনিক বণিক বার্তা সম্পাদকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা হোসেনপুরে নবাগত ইউএনও কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো সাংবাদিক বৃন্দ অটোপাসের দাবিতে রাস্তায় নামলেন শিক্ষার্থীরা দ্রুত সময়ের মধ্যে ধাপে ধাপে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুপারিশ একটু প্রশান্তির কথা ভেবেই স্থায়ীভাবে ট্রাফিক বক্স নির্মাণ করা হয়েছে-এসপি কিশোরগঞ্জ পাকুন্দিয়ায় ম্যারাথন দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত বেলকুচিতে উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচনে ধারাবাহিকভাবে নৌকার ভরাডুবি, তৃণমূল নেতা কর্মিদের ক্ষোভ হোসেনপুরে নতুন ইউএনও’র যোগদান  নাটোরের লালপুরে দিনব্যাপি ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প

টুইটার ও ফেসবুকের ডানা ছাঁটার আদেশ দিলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় রবিবার, ৩১ মে, ২০২০
  • ২৫০ বার পড়া হয়েছে

এক নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিশেষ আইনি সুরক্ষা প্রত্যাহারের উদ্যোগ শুরু করলেন ট্রাম্প৷ টুইটার, ফেসবুকের মতো কোম্পানি এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে চ্যালেঞ্জের পথে এগোচ্ছে৷ খবর ডয়চে ভেলের।

টুইটারের সঙ্গে বিবাদের পর হুমকি অনুযায়ী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ‘শায়েস্তা’ করতে সত্যিই পদক্ষেপ নিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প৷ সরাসরি টেক কোম্পানিগুলির স্বাধীনতা খর্ব করতে না পারলেও এমন কিছু কোম্পানির বিশেষ রক্ষাকবচ প্রত্যাহার করতে এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করলেন তিনি৷ ফলে ফেডারেল স্তরে ফেসবুক ও টুইটারের মতো কোম্পানির দায়বদ্ধতা সীমিত রাখার লক্ষ্যে এতদিন যে বিশেষ সুরক্ষার ব্যবস্থা ছিল, তা লোপ পেতে চলেছে৷ সামাজিক যোগাযোগ মঞ্চে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান নিজস্ব বক্তব্য তুলে ধরলে কোম্পানিকে তার দায় বহন করতে হতো না৷ প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে এ সব কোম্পানির বিরুদ্ধে সহজেই মামলা দায়ের করা যাবে৷

হোয়াইট হাউসে ট্রাম্প বলেন, ফেসবুক ও টুইটারের মতো কোম্পানি এতদিন লাগামহীন ক্ষমতা ভোগ করে নাগরিক ও বিশাল সংখ্যক পাঠকের মধ্যে বার্তা চালাচালির ক্ষেত্রে ইচ্ছামতো সেন্সর করেছে, সীমা স্থির করেছে, সম্পাদনার কাঁচি চালিয়েছে, বার্তার গঠন বদলে দিয়েছে এবং গোপনও করেছে৷ ফলে তিনি চরম বিরক্তি প্রকাশ করেন৷ ট্রাম্পের যুক্তি, এই সব কোম্পানির পরিষেবা নিরপেক্ষ মঞ্চ না থেকে সম্পাদনা করে নির্দিষ্ট মতামত তুলে ধরছে৷ তাই কোনো সুরক্ষা দাবি করার অধিকার তাদের নেই৷

প্রেসিডেন্টের নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলার আশঙ্কা করছে মার্কিন প্রশাসন৷ অ্যাটর্নি জেনারেল বিল বার অবশ্য জানিয়েছেন, তিনি এই আদেশকে আইন হিসেবে কার্যকর করতে বদ্ধপরিকর৷ টুইটার এই সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেছে৷ কোম্পানির নিজস্ব টুইট বার্তা অনুযায়ী এই নির্বাহী আদেশ প্রচলিত আইনের বিরুদ্ধে ‘প্রতিক্রিয়াশীল ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’ পদক্ষেপ৷ এই আইন পরিবর্তনের প্রচেষ্টা ভবিশষ্যতে অনলাইনে মতামত প্রকাশ ও ইন্টারনেটের স্বাধীনতা খর্ব করতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে টুইটার৷

টুইটার কোম্পানির প্রধান জ্যাক ডোরসি ট্রাম্পের সঙ্গে সর্বশেষ সংঘাতের বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলেন, টুইটার তথ্য যাচাই করে মোটেই সত্য-মিথ্যের একচেটিয়া বিচারক হবার চেষ্টা করে না৷ পরস্পরবিরোধী বক্তব্য উঠে এলে বিতর্কিত তথ্য তুলে ধরে ব্যবহারকারীদের হাতেই তার ভিত্তিতে বিচার করার সুযোগ দেওয়া হয়৷

ট্রাম্প বলেছেন, প্রায় আট কোটি অনুগামী থাকা সত্ত্বেও চাইলেই তিনি অনায়াসে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিতে পারেন৷ কিন্তু ‘ফেক নিউজ’ বা ভূয়া খবর এড়িয়ে চলতে তিনি এই মঞ্চ ব্যবহার করছেন৷ তিনি নিজের উদ্যোগে দুই রাজনৈতিক দলের সমর্থনের আশা করছেন৷

মার্কিন প্রেসিডেন্টের নির্বাহী আদেশের পর ফেসবুকও সমালোচনা করেছে৷ মত প্রকাশের অধিকার সুরক্ষার প্রতি বিশ্বাসের উল্লেখ করে এই কোম্পানি সমাজকে ক্ষতিকারক ‘কনটেন্ট’ থেকে রক্ষার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছে৷ উল্লেখ্য, এর আগে এক সাক্ষাৎকারে কোম্পানির প্রধান মার্ক সাকারবার্গ চলমান বিতর্কে ট্রাম্পের পক্ষে সমর্থন জানিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন৷

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com