শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন

নোটিশ :
আমাদের নিউজ সাইটে খবর প্রকাশের জন্য আপনার লিখা (তথ্য, ছবি ও ভিডিও) মেইল করুন onenewsdesk@gmail.com এই মেইলে।
সর্বশেষ খবর :

ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট নেই, ডাক্তারও সংকট

নূরুল আমীন সিকদার, কাপাসিয়া, গাজীপুর
  • আপডেট সময় সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২৩ বার পড়া হয়েছে
ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট নেই, ডাক্তারও সংকট

গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্হিবিভাগের রোগির জন্য ডেঙ্গু পরীক্ষার কিট নেই ডাক্তারও সংকট রয়েছে। 

গত শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মামুনর রহমান বলেন, জ্বর হওয়ার তিন দিনের মধ্যে অ্যান্টিজেন্ট টেস্ট করানো উচিত।হাসপাতালে অ্যান্টিজেন্ট কিটস সংকটে বহিরাগত রোগিদের ডেঙ্গু পরীক্ষা সম্ভব হচ্ছে না।গত মাসে ২০০ কিট পাইছি।বহিরাগতদের পরীক্ষা করলে ১০ দিনে শেষ হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, উপজেলায় ডাক্তার ও কনসালটেন্টসহ ৩২ জন থাকার কথা কিন্তু রয়েছে মাত্র ১৭ জন।আমাকে যদি সরকার ডাক্তার ও কিট না দেয় তাহলে আমি কি করবো।

কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরীসংখ্যানবিদ আশরাফুল আলম জানান, গত এক সপ্তাহে উপজেলায় ৬০ জন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়েছে।সরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু পরীক্ষা চার্জ মাত্র ৫০ টাকা হলেও বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু পরীক্ষা চার্জ ৫০০ টাকা নিচ্ছে।

তিনি জানান, হাসপাতালের সার্ভার নষ্ট থাকায় আউটডোর এবং জরুরি বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা রোগির হিসেব নেই।

শনিবার সকালে কাপাসিয়া সরকারে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, জ্বর নিয়ে অনেকেই হাসপাতালে এসেছেন।কিন্তু ডেঙ্গু হয়েছে কিনা তা দেখার কোনো ব্যবস্থা নেই। অনেক ফিরে যাচ্ছে বাড়ীতে বা বেসরকারি কোনে হাসপাতালে।

হাসপাতালে সামনে দেখা হয় আনোয়ার মিয়ার সাথে। তিনি জানান, আমার স্ত্রী অসুস্থ এই খানে ডাক্তার দেখাতে এসেছিলাম। ৪ ঘন্টা পর ডাক্তার পাইছি।অনেক ভীড়। বাড়ীতে চলে যাচ্ছি।

টিকেট কাউন্টারের সামনে একাধিক রোগি টিকেট হাতে শিশু কোলে নিয়ে দাড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। তাঁরা জানান, লাইনে যেতে ইচ্ছে করছেনা। শিশু কান্নাকাটি করছে,গরম ছাড়াও ভীড় বেশি।শুনেছি ডাক্তার কম।

হাসপাতালের দোতলায় প্যাথলিজি বিভাগের সামনে এক অসুস্থ রোগিকে দুজন ধরাধরি করে নিয়ে যাচ্ছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিবারের সদস্যরা জানান, খুব জ্বর, রক্ত পরীক্ষা দিছে, দেখি ওরা কি বলে।

ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগি শিল্পী জানায়, সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পারিনাই। এতে আমার ছয় গুণ বেশি টাকা দিয়ে বেসরকারি ক্লিনিক থেকে টেস্ট সহ চিকিৎসা করাতে হচ্ছে।

কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স আবাসিক ম্যাডিক্যাল অফিসার ডা.নকিব জানান,আপাতত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু পরীক্ষার কোনো ব্যবস্থা নেই।

একটি বেসরকারি হাসপাতালে স্বত্বাধিকারি দেলোয়ার হোসেন জানান, আমাদের এখানে ডেঙ্গু রোগির পরীক্ষায় কিট রয়েছে।প্লাটিলেট টেস্ট করতে দুটি মেশিন রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কাপাসিয়া সরকারি হাসপাতালের কর্মকর্তা জানান,আমার মায়ের খুব জ্বর। আমি কাপাসিয়ায় একটি বেসরকারি  হাসপাতাল থেকে চিকৎসা সেবা নিচ্ছ। বেসরকারি হাসপাতালের একজন প্যাথলজিস্ট জানান, প্রতিদিন জ্বর নিয়ে আসা রোগিদের মাঝে ২/৩ জনের ডেঙ্গু পজিটিভ হচ্ছে।

কাপাসিয়া উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আরিফা সুলতানা জানান, উপজেলায় পুরুষ ও মহিলা নিয়ে মোট জনসংখ্যা ৩৯৮০০০ হাজার।

পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের এম আই এস ক্লিনিক এর ডিপুটি ম্যানেজার আবদুর রহিম জানান, গত ২০২০ সালে ও ২০২২ সালে ৫০ শয্য বিশিষ্ট কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সার্বিক সেবা দান ও স্বাস্থ্য সেবার মান নিশ্চিত করায় দেশের সেরা হাসপাতাল হিসেবে নামের তালিকায় এসেছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2024 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com