শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
লিয়াকতের অন্ধকার জগৎ, বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য সুশান্তকে খুন করেছে বন্ধু সিদ্ধার্থ! স্কুলগুলো নিরাপদে চালু করতে হাত ধোয়ার সুবিধা থাকা অবশ্যক : ডব্লিউএইচও করোনার বিফ্রিং বন্ধ হবার কারণ জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর পলাতক ৫ খুনিকে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা চলছে: আইনমন্ত্রী কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে ১৭৫ পিস ইয়াবা’সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক বৃদ্ধা করফুলাকে থাকার নতুন ঘর করে দিল প্রবাসী তোফাজ্জল কমলগঞ্জে “বৈদেশিক কর্ম সংস্থানের জন্য দক্ষতা ও সচেতনতা” শীর্ষক প্রেস ব্রিফিং ও সেমিনার অনুষ্ঠিত হোসেনপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন পদ্ধতি সম্পর্কে কর্মশালা ভৈরবে সড়কের পাশে ময়লা-আবর্জনার স্তুপে পরিবেশ দূষণ, ব্যবস্থা গ্রহণে ৭দিনের আল্টিমেটাম

ঢাকার বাতাসের মানের উল্লেখযোগ্য উন্নতি

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০২০
  • ১৩৫ বার পড়া হয়েছে

ঢাকার বাতাসের মানে বৃহস্পতিবার সকালে উল্লেখযোগ্য উন্নতি পরিলক্ষিত হয়েছে। সকালে দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় বিশ্বের ১১ তম খারাপ অবস্থানে উঠে আসে বাংলাদেশর রাজধানী।

 

এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে (একিউআই) সকাল ১০টা ৩৬ মিনিটে জনবহুল এই শহরের স্কোর ছিল ৮৩। যা বাতাসের মানকে ‘সহনীয়’ বলে নির্দেশ করে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই, কুয়েতের কুয়েত সিটি এবং দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচিয়ন যথাক্রমে ১৬০, ১৩৮ এবং ১১৯ স্কোর নিয়ে দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় প্রথম তিনটি স্থানে রয়েছে।

একিউআই সূচকে ৫০ এর নিচে স্কোর থাকার অর্থ হলো বাতাসের মান ভালো। এ সূচকে ৫১ থেকে ১০০ স্কোরের মধ্যে থাকলে বাতাসের মান গ্রহণযোগ্য বলে ধরে নেয়া হয়। তবে একিউআই স্কোর ১০১ থেকে ১৫০ হলে নগরবাসী বিশেষ করে শিশু, বয়স্ক ও অসুস্থ রোগীদের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

এছাড়া একিউআই মান ২০১ থেকে ৩০০ হলে স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ তা জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়। এ অবস্থায় শিশু, প্রবীণ এবং অসুস্থ রোগীদের বাড়ির ভেতরে এবং অন্যদের বাড়ির বাইরের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হয়ে থাকে। একিউআই স্কোর ৩০১ থেকে ৫০০ বা তারও বেশি হলে বাতাসের মান ঝুঁকিপূর্ণ মনে করা হয়। এসময় স্বাস্থ্য সতর্কতাসহ প্রত্যেক নগরবাসীর জন্য জরুরি অবস্থা হিসেবে বিবেচিত হয়।

 

প্রতিদিনের বাতাসের মান নিয়ে তৈরি করা একিউআই সূচক একটি নির্দিষ্ট শহরের বাতাস কতটুকু নির্মল বা দূষিত সে সম্পর্কে মানুষকে তথ্য দেয় এবং তাদের জন্য কোন ধরনের স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি হতে পারে তা জানায়। বাংলাদেশে একিউআই নির্ধারণ করা হয় দূষণের পাঁচটি ধরনকে ভিত্তি করে- বস্তুকণা (পিএম১০ ও পিএম২.৫), এনও২, সিও, এসও২ এবং ওজোন (ও৩)। গ্রীষ্মমণ্ডলীয় মৌসুমি জলবায়ুর কারণে বাংলাদেশে ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে বৃষ্টিপাত, উচ্চ তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতায় বৈচিত্র্য দেখা যায়।

 

জনবহুল ঢাকা দীর্ঘদিন ধরেই দূষিত বাতাস নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে। মূলত নির্মাণ কাজের নিয়ন্ত্রণহীন ধুলা, যানবাহনের ধোঁয়া, ইটভাটা প্রভৃতি কারণে রাজধানীতে দূষণের মাত্রা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে। তবে মধ্য জুন থেকে বৃষ্টিপাত শুরুর পর বাতাস পরিষ্কার হতে আরম্ভ করে। আর জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বর্ষার মৌসুমে বাতাসের মান মোটামুটি গ্রহণযোগ্য থাকে।

বিশ্বব্যাংক ও পরিবেশ অধিদপ্তরের এক প্রতিবেদনে ঢাকার বায়ুদূষণের প্রধান কারণ হিসেবে এ শহরের চারপাশে অবস্থিত ইটভাটাকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com