বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৭:০৫ অপরাহ্ন

তাড়াইলে গ্রামীন রাস্তাটি খানাখন্দে বেহাল, ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ 

রুহুল আমিন, তাড়াইল, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২
তাড়াইলে গ্রামীন রাস্তাটি খানাখন্দে বেহাল, ভোগান্তিতে হাজারো মানুষ 

কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার জাওয়ার  ইউনিয়নের ইছাপশর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হতে পূর্বদিকে বর্নী নদীর খেয়াঘাট পর্যন্ত ছয় কিলোমিটার গ্রামীন রাস্তাটি খানাখন্দে বড় বড় গর্তের কারণে চলাচলের সম্পৃর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। কোনো কোনো জায়গায় বড় বড় গর্ত হয়ে প্রায় পুকুরে পরিণত হয়েছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন এই এলাকার মানুষ। প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা।
শীতকালে লোকজন এই সড়কে চলাচল করতে পারলেও বর্ষা মৌসুমে সম্পূর্ন চলাচলের অনুপুযোগী হয়ে পরে। বিগত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে সড়কটি আরো বেহাল দশায় রূপ নিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ইছাপশর গ্রামের সব মানুষই কৃষির ওপর নির্ভরশীল। তাছাড়া এই সড়কের উভয় পাশে বর্নী নদী পর্যন্ত রয়েছে গাঙ্গের চর, আয়নারবন্দ, কোদালিয়া, পাঞ্জুরা, রুলি, নাউটানা, নাগনি, হুলম্মা, পাতলা বিল, মাখরান বিল নামে ফসলি জমির মাঠ। এসব মাঠে স্থানীয় ও আশেপাশের বেলংকা, বোঁরগাও, নগরকুল, কুচকান্দা,ইছাপশর গ্রামের হাজারো কৃষকের রয়েছে হাজার হাজার একর জমি।কৃষকের ঘামে এসব জমিতে উৎপাদন হয় লাখ লাখ টন সোনার ফসল ধান, সরিষা, পাট ও শীতকালীন সবজি সহ যাবতীয় কৃষি পন্য।

উপজেলার জাওয়ার ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আবদুল হালিম বলেন, বর্তমানে বোরো মৌসুমে আমরা আমাদের জমি থেকে কাটা ধান নিয়ে বাড়ি ফিরতে পারছি না। ফলে জমিতে বাম্পার ফলন হলেও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমরা।

আমাদের ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইমদাদুল হক রতন রাস্তাটি পরিদর্শন করে গেছেন। তিনি আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন অতিদ্রুত রাস্তাটি সংস্কারের কাজ শুরু করবেন।

ইছাপশর গ্রামের ধান ব্যাবসায়ী শামীম রেজা জানান, এই সড়কে কৃষকদের নিকট থেকে ধান কিনে আড়তে নিতে ট্রলি ভাড়া দিতে হচ্ছে দিগুনেরও বেশি। সড়কের বিভিন্ন জায়গায় যদি কিছু বালি দেয়া যেতো তাহলে কিছুটা হলেও ভোগান্তি কম হতো।

এলাকার মানুষের সাথে কথা বলে আরো জানা যায়, স্বাধীনতার ৫০ বছর পেরুলেও আমরা এখনো রয়েছি উন্নয়নের বাইরে। এই সড়কটি দ্রুত মেরামত করে কৃষকদের চলাচলের উপযোগী করার আহ্বান জানাচ্ছি।তারা আরো বলেন, তাড়াইল উপজেলা সদরসহ অন্যান্য জায়গায় যাতায়াতের জন্য এই সড়কটি খুবই গুরুত্ববহন করে আমাদের জন্য। সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে বড় বড় গর্তের কারণে চলাচল করা অসম্ভব হয়ে যায়। সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের কাছে আমাদের দাবি, অতিদ্রুত সড়কটি সংস্কার করা হউক।

এ বিষয়ে উপজেলার জাওয়ার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইমদাদুল হক রতন বলেন, আমি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর সড়কটি পরিদর্শন করেছি। এখন ধান কাটার মৌসুম। স্থানীয়ভাবে শ্রমিক না পাওয়ায় সড়কটি মেরামত করতে দেরি হচ্ছে। তবে অতিদ্রুত ছয় কিলোমিটার এই রাস্তাটি সংস্কার করা হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: