সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১১ অপরাহ্ন

দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি, মুজিব শতবর্ষের ঘরের কাঠামো পরিবর্তন সহ বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন

আশরাফুল নয়ন, নওগাঁ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি, মুজিব শতবর্ষের ঘরের কাঠামো পরিবর্তন সহ বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন

মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় নওগাঁয় গৃহহীন পরিবাররা পেয়েছে মাথা গোঁজার ঠাঁই। গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবাররা আধাপাকা (সেমিপাকা) ঘর পেয়ে নিশ্চিন্তে ঘুমাতে পারছে। তবে জেলায় প্রয়োজনের তুলনায় ঘরের বরাদ্দ কম হয়েছে। গৃহহীনদের কাছে বেড়েছে চাহিদা। গৃহহীনদের যে ঘরগুলো দেওয়া হয়েছে তা মজবুত ও টেকসই করতে কাঠামোগত পরিবর্তন ও বরাদ্দ বাড়ানোর প্রয়োজন বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

নওগাঁ জেলা ত্রাণ ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার পূনর্বাসন কার্যক্রমের অংশ হিসেবে জেলার ১১টি উপজেলায় ১ হাজার ৪৭১ টি ঘর প্রদান করা হয়েছে। এরমধ্যে প্রথম পর্যায়ে আসে ১ হাজার ৫৬টি ঘর। প্রতিটি আধাপাকা (সেমিপাকা) ঘরের বরাদ্দ ধরা হয় ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। দ্বিতীয় পর্যায়ে আসে ৪১৫টি ঘর। যেখানে প্রতিটি ঘরের বরাদ্দ ধরা হয় ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। প্রতিটি গৃহ একই ধরনের। যেখানে আছে- দুইটি শয়ন কক্ষ, একটি টয়লেট, রান্নাঘর, কমনস্পেস ও একটি বারান্দা। এসব গৃহ প্রত্যেক পরিবারের জন্য আলাদা করে নির্মাণ করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ঘরের যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল সে সময় ঘর তৈরীর উপকরণ ও সরঞ্জামের দাম কমছিল। কিন্তু করোনাভাইরাস শুরু হওয়ায় লাগাতাকার লকডাউনে দেশে একটা বিপর্যয় দেখা দেয়। পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিড়ম্বনায় পোহাতে হয়। দ্রব্যমূল্যের বাজারও কিছুটা ঊর্ধ্বমূখী হয়। ঘরের যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল দ্রব্যমূল্যের বাজার বেড়ে যাওয়ায় তা সামঞ্জস্য ছিল না। এতে ঘর তৈরী করতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পোহাতে হয়েছে সংশ্লিষ্টদের।

যে সময় ঘরের বরাদ দেওয়া হয়েছিল তখন প্রতি হাজার ইটের দাম ছিল আট হাজার টাকা, রড ৫৮ টাকা কেজি, শাহ সিমেন্ট ৩৯০ টাকা বস্তা, টিন ৫ হাজার ২৪০ টাকা বান্ডিল। কিন্তু পরবর্তীতে দাম বেড়ে হয় প্রতি হাজার ইট আট হাজার ৫০০ টাকা, রড ৭৪ টাকা কেজি, শাহ সিমেন্ট ৪৬৫ টাকা বস্তা, টিন ৬ হাজার ৮০০ টাকা বান্ডিল।

ঘর তৈরী: একটা ঘর তৈরী করতে ৬ হাজার ৮০০ পিস ইট, রড ৪০ কেজি, তিনটা দরজা (প্রতিটি ৪ হাজার টাকা পিস), ছয় টা জানালা ( প্রতিটি ৩ হাজার ১০০ টাকা পিস), সিমেন্ট প্রায় ৬৮ বস্তা, বালু ৬-৭ গাড়ি (প্রতি গাড়ী ২ হাজার ৫০০ টাকা হতে ৩ হাজার ), টিন সাড়ে তিন বান্ডিল, মিস্ত্রী প্রতি ঘর ৪০ হাজার টাকা, রং প্রতি ঘর মিস্ত্রি সহ ৪ হাজার ৫০০ টাকা, টয়লেট সম্পূর্ন পাঁচ হাজার টাকা, ভরাট বালু তিন গাড়ি ( প্রতিগাড়ি ২৩০০-২০০০ হাজার টাকা)। সে হিসেবে খরচ দাঁড়ায় প্রায় ২ লাখ ছয় হাজার টাকা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন (পিআইও) কর্মকর্তা বলেন, ঘর তৈরীতে সরঞ্জামের দাম বেশি বেড়ে যাওয়ার সমস্যা হয়েছে। সর্বপরি বাড়ির কাঠামোগত ডিজাইন পরিবর্তন করতে হবে। ভীতের উচ্চতা কম হওয়ায়র কারণে ঘর পড়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে এবং মেঝ ফেটে যাচ্ছে। এছাড়া কিছুটা মিস্ত্রীর কারণেও অনেকটা সমস্যা হয়েছে। তাদের গাফিলতিতে কাজ অনেকটা খারাপ হয়েছে।
তারা বলেন, যেসব খাস জায়গায় প্রকল্প হয়েছে অনেক জায়গায় মালামাল নিয়ে যাওয়ার মতো রাস্তা ছিলনা। অনেক জায়গা নিচু হওয়ায় অতিরিক্ত মাটি দিয়ে ভরাট করে উচু করতে হয়েছে। ঘর তৈরীর উপকরণ কিনতে সমস্যায় পড়তে হয়েছে। সরকারের যে বাজেট তা দিয়ে ওই কাঠামোগত ঘর করাও অনেকটা অসম্ভব। বাজার দরের সাথে বরাদ্দ সামঞ্জস্য নয়। সর্বপরি ঘরের ডিজাইনের সাথে বরাদ্দ মিলে না। এগুলো পরিবর্তন এবং বরাদ্দ বাড়ানো প্রয়োজন।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) নওগাঁ জেলা সমন্বয়ক জয়নাল আবেদীন মকুল বলেন, গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারদের জন্য এটি একটি ভাল উদ্যোগ। তবে একটা বাড়ি তৈরী করার জন্য যে পরিকল্পনা এবং বাস উপযোগী করতে যে আয়োজন দরকার তেমন ছিলনা বলে মনে করি। স্বস্তা জনপ্রিয়তার অংশ হিসেবে তৈরী করা হয়েছে। আমার কাছে মনে হয়েছে বাড়ি তৈরীতে যে বরাদ্দ ছিল তা স্বচ্ছতার সহিত ব্যয় করা হয়নি।

নওগাঁ জেলা ত্রাণ ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কামরুল আহসান বলেন, দ্রব্যমূল্যের বাজারদর অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা অসুবিধা হয়েছে। তবে পরবর্তিতে প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় বিষয়টি বিবেচনা করা যেতে পারে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: