শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
পুরো ঢাকাকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পাকুন্দিয়া নিরাপদ মাতৃত্ব দিবসপালিত নিকলীতে ধারালো কিরিচের আঘাতে যুবক খুন, আটক ৬ বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টূর্ণামেন্টে চ্যাম্পিয়ন পাকুন্দিয়া পৌরসভা আটা ময়দার পাইকারি বাজারে অনিয়মের দায়ে ভোক্তা-অধিকার অধিদপ্তরের জরিমানা নওগাঁয় শুরু হয়েছে আম নামানোর উৎসব পিপি শাহ আজিজুল হক আর নেই, প্রথম জানাযা পাগলা মসজিদে ১৮ বছর পর নতুন নেতৃত্ত্ব পেল হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ রাত পোহালেই কিশোরগঞ্জ সদর আ.লীগের সম্মেলন, নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবের আমেজ কিশোরগঞ্জে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্নে অভিযান, তিনটি রেস্টুরেন্টকে জরিমানা

নওগাঁর মাটিতে মালবেরি ফলের পরীক্ষামূলক চাষ! চরম সাফল্য

আশরাফুল নয়ন, নওগাঁ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৭ এপ্রিল, ২০২২
নওগাঁর মাটিতে মালবেরি ফলের পরীক্ষামূলক চাষ! চরম সাফল্য

গাছে থোকায় থোকায় ঝুলছে লাল টকটকে ফল। পুরো গাছজুড়েই শোভা পাচ্ছে সবুজ, লাল এবং কালো লম্বাটে ছোট ছোট আকারের অসংখ্য লোভনীয় ফল। বিদেশেী উচ্চ মূল্যোর পুষ্টিগুন সম্পন্ন এই ফলের নাম হচ্ছে মালবেরী। যা এখন চাষ হচ্ছে দেশের সীমান্তবর্তী জেলা নওগাঁয়। আর পরীক্ষামূলক ভাবে বিভিন্ন দেশের ৮টি জাত সংগ্রহ করে প্রথমবারেই সাফল্য পেয়েছেন নওগাঁর সাপাহার উপজেলার বরেন্দ্র এগ্রো পার্কের উদ্যোক্তা মো.সোহেল রানা। প্রথমবারেই ভালো ফলন দেখে বাণিজ্যিকভাবে এই ফল চাষের পরিকল্পরা করছেন তিনি।

সরেজমিনে দেখা যায়, গাছ ভর্তি থোকায় থোকায় ঝুলে রয়েছে মালবেরি। পাতার চেয়ে ফল বেশি ধরে আছে। গাছের পাতা ডিম্বাকার, চমৎকার খাঁজযুক্ত এবং অগ্রভাগ সূঁচাল। আকারে আঙুরের চেয়ে কিছুটা বড় মালবেরি এই ফল। ফেব্রুয়ারী-মার্চ মাসে ফুল আসে এবং মার্চ-এপ্রিলেই ফল পাকে। প্রথম অবস্থায় সবুজ পরে লাল এবং সম্পূর্ণ পাকলে কালো রং ধারণ করে। দেখতে খুবই সুন্দর, আকর্ষণীয়। পাকা ফল রসালো এবং টক-মিষ্টি। প্রতিটি গাছ থেকে ৮-১০ কেজি সংগ্রহ করা যায়। এবং চারাও তৈরি করা যায়। এবং খুব সহজেই ছাদে এর চাষ সম্ভব।

মালবেরি চাষ নিয়ে কথা হয় উদ্যোক্তা সোহেল রানার সাথে। এসময় সোহেল বলেন, বিদেশী উচ্চমূল্যের পুষ্টিগুণসম্পন্ন মালবেরি ফল। এই ফলটি বিদেশে বাণিজ্যিকভাবে চাষ হয়ে থাকে এবং বাজারজাত করা হয়। বাজারেও ফলটির ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। নতুন এই ফলটি আমি পরীক্ষামূলকভাবে থাইল্যান্ড, ভারত, তুরস্ক, অস্ট্রেলিয়া ও ইতালিসহ বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন জাতের ৮টি জাত সংগ্রহ করে এই মালবেরি চাষ করেছি। এবং পরীক্ষামূলকভারে প্রতিটা গাছে সাফল্য এসেছে। এবং প্রচুর পরিমাণে ফল ধরেছে।

সোহেল রানা বলেন, এ ফল চাষে রোগবালাই খুবই কম। কীটনাশকও তেমন লাগে না। উৎপাদন খরচও কম। শুধু জৈব সার দিলে প্রায় সারা বছরই এই ফল পাওয়া যায়। যেহেতু এই মালবেরি আমদানি নির্ভর একটি ফল। তাই বাজারেও মালবেরি ফলের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। এই ফল ঢাকা ও বিভাগীয় শহরের সুপার শপগুলোতে বিক্রি হয় প্রায় ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা কেজি দরে।

সোহেল আরো বলেন, এখন চিন্তা করছি চারা তৈরি করে বাণিজ্যিকভাবে এই মালবেরি ফল চাষের। ইতিমধ্যে চারটি জাত পছন্দ করেছি। চারা তৈরি করে এক বিঘা জমিতে ৪শ টি গাছ নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে এই মালবেরি চাষ করবো। আমার নতুন এই ফল দেখে সবাই উদ্বুদ্ধ হয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে এই বিদেশী ফল দেখতে আসছে। ইতিমধ্যে নওগাঁয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মহাদয় আমার এই মালবেরি গাছগুলো ভিজিট করেছেন। তিনি আমাদেরকে উৎসাহিত করেছেন বাণিজ্যিকভাবে বাগান তৈরি করতে। তাই আমরা যদি বাণিজ্যিকভাবে এই মালবেরি ফলের চাষ করতে পারি তাহলে স্থানীয়ভাবে পুষ্টির যোগান দেয়া যাবে এবং স্থানীয় পুষ্টির চাহিদা মিটিয়ে সারাদেশে এর বাজারজাত করা যাবে। এতে আমরাও আর্থিকভাবে লাভবান হব।

নওগাঁর মাটিতে মালবেরি ফলের পরীক্ষামূলক চাষ! চরম সাফল্য

বরেন্দ্র এগ্রো পার্কে বদলগাছী হতে থেকে ঘুরতে আসা হাফিজার রহমান বলেন, আমি বরেন্দ্র এগ্রো পার্কে ঘুরতে এসে দেখলাম বিদেশী এই মালবেরির গাছ লাগানো হয়েছে। গাছগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ফল ধরেছে। দেখে খুবই ভালো লাগলো। থোকায় থোকায় কত সুন্দর ভাবে ধরে আছে। একটা ফল খেয়ে দেখলাম খেতেও অনেক সুস্বাদু। আমি এখান থেকে চারা নিয়ে আমার বাড়ির ছাদে লাগাবো বলে নিয়ত করেছি।

স্থানীয় বাসিন্দা আকমল আলী বলেন, সোহেল ভাইয়ের বাগানে মালবেরি এই ফলের গাছটি দেখে আমি খুবই অবাক হয়েছি। থোকায় থোকায় এত বেশি পরিমাণে ফলটি ধরেছে। কোনটা সবুজ, কোনটা লাল আবার কোনটা কালো রং ধারণ করে আছে। এই ফলটি আমাদের এলাকায় আগে কখনও দেখি নাই বা চাষাবাদ করা হয় নাই। সোহেল ভাইয়ের কাছ থেকে শুনলাম বাজারে নাকি এর চাহিদা অনেক। এবং দামও ভালো। তাই আমি মনে করি কৃষকরা যদি মালবেরি এই ফলটি বাণিজ্যিকভাবে চাষ করে তাহলে তারা ব্যাপকভাবে লাভবান হতে পারবে।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পরিচালক কৃষিবিদ শামছুল ওয়াদুদ বলেন, সোহেল রানা একজন সফল বাগানী। দীর্ঘদিন থেকেই বিভিন্ন ফল, ফুল, আমসহ নানা ধরনের বাগান আছে তার। সম্প্রতি তিনি ৮ রকম জাতের মালবেরি চাষ করেছেন। বর্তমানে গাছ থেকে ফল তোলার উপযোগি হয়েছে। ৮টি গাছ তিনি পরীক্ষামূলকভাবে লাগিয়েছেন। প্রতিটি গাছে থেকে প্রায় ৮-১০ কেজির মত ফল পাওয়া যাবে। সেখানে মাটিও মালবেরি চাষের উপযোগি। এছাড়া বাড়ির ছাদে টবেও এর চাষ করা যাবে। এই প্রথম সোহেল রানা বেশি সংখ্যক মালবেরি গাছ লাগিয়েছেন। নওগাঁতে মালবেরি চাষ যেন আগামী বৃদ্ধি পায় সে জন্য আমরা চাষিদের নিয়ে প্রশিক্ষন উদ্যোগ নেয়ার পরিকল্পনা করছি।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: