সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩৯ অপরাহ্ন

নোটিশ :
আমাদের নিউজ সাইটে খবর প্রকাশের জন্য আপনার লিখা (তথ্য, ছবি ও ভিডিও) মেইল করুন onenewsdesk@gmail.com এই মেইলে।
সর্বশেষ খবর :
চুরি করা গরু জবাই করে মাংস পাচারকালে আটক-২ মৌলভীবাজারে কোটা সংস্কারের নামে দেশব্যাপী নৈরাজ্যের প্রতিবাদে মানববন্ধন ‘কোটা আন্দোলনকারীদের আলোচনার প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী, আজকেই বসতে প্রস্তুত’ মৌলভীবাজারে জেলা জামায়াতের আমীর গ্রেফতার সব অনভিপ্রেত ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্ত হবে: প্রধানমন্ত্রী হঠাৎ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষামন্ত্রী আমার বিশ্বাস উচ্চ আদালতে ন্যায়বিচার পাবে শিক্ষার্থীরা: প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহ্বান পুলিশের যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ, মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের টোল প্লাজায় আগুন

নিকলীতে চলছে অবাধে শামুক নিধন, জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের আশঙ্কা

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৬ মার্চ, ২০২৪
  • ৪৭ বার পড়া হয়েছে
নিকলীতে চলছে অবাধে শামুক নিধন, জীববৈচিত্র্য ধ্বংসের আশঙ্কা

কিশোরগঞ্জের শস্য ভান্ডার খ্যাত নিকলীর নদী-বিলে পানি কমে যাওয়ায় বিল ও ফসলের জমি থেকে জাল দিয়ে শামুক সংগ্রহ করছেন জেলেরা। এ শামুক নৌকায় করে বিভিন্ন হাঁসের আনা হচ্ছে। সেখান থেকে শামুক কিনে বিভিন্ন হাঁসের খামার ও মাছের পুকুরের মালিকদের কাছে বিক্রি করছেন জেলেরা। অবাধে বিলের শামুক নিধনের ফলে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস ও ফসলহানির শঙ্কা করছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার বিভিন্ন নদ-নদী ও বিলের আশপাশে বসবাসকারী মানুষজন মাছ ধরার পাশাপাশি বাড়তি আয়ের জন্য জাল দিয়ে অবাধে ছোট-বড় শামুক তুলে আনছেন জলশয়গুলো থেকে। পরে সেই শামুক উপজেলার প্রায় পাঁচশতাধিক হাঁসের খামারীদের কাছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা প্রতি খাচা শামুক বিক্রি করছেন। পরে এই শামুক খামারিরা হাঁস ও মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করছেন। এভাবে প্রতিদিন শামুক নিধনের ফলে পরিবেশ বিপন্ন হওয়ার পাশাপাশি হুমকিতে পড়েছে নিকলীর হাওরের নদ-নদীর ও বিলের জীববৈচিত্র্য।

মহরকোনা গ্রামের জিল্লু মিয়া জানান, খেটে খাওয়া মানুষরা বাড়তি উপার্জনের আশায় প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ছোট-বড় নৌকা নিয়ে নদী ও বিলের বিভিন্ন অংশে ঘুরে বেড়ান। তারা ডুবে থাকা ফসলি জমি থেকেও মই জাল, হেসি জাল ও হাত জাল দিয়ে শামুক সংগ্রহ করছেন।
সরেজমিনে দেখা গেছে, বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় ১০ থেকে ১২টি নৌকায় করে শামুক আসছে উপজেলার হাঁসের খামার ও পুকুরে। উপজেলার নগর গ্রামের শামুক শিকারি দিনু মিয়া, ফুল মিয়া বলেন, নদীতে মাছ কম, তাই মই জাল ও হেসি জাল দিয়ে আমরা শামুক সংগ্রহ করি। পানি কম থাকায় শামুক ধরে হাঁেসর খামারি ও পুকুরের মালিকদের কাছে ৫০/৬০ টাকায় প্রতি খাঁচা বিক্রি করি।

শামুক শিকারী রাশেদ মিয়া বলেন, এ মৌসুমে নদ-নদী ও ফসলের জমিতে ছোট, বড় ও মাঝারি সাইজের প্রচুর শামুক পাওয়া যায়। নদী ও ফসলের জমি থেকে পুরোপুরি পানি কমে যাওয়ার কারণে মানুষেরা বিভিন্ন আকারের শামুক সংগ্রহ করেন। এসব শামুক আমরা কিনে হাঁস ও মাছের খামারিদের কাছে বিক্রি করি।

উপজেলার হাঁসের খামারি হুবুল মিয়া, জসিম উদ্দিন, সুজন মিয়া, রাসেল ও আবু কালাম বলেন, প্রতি দিন নদী থেকে হাঁসের খাবারের জন্য শামুক কিনে আনা হয়। শামুক হাঁসের জন্য খুবই পুষ্টিকর খাদ্য।

কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের বাংলা বিষয় প্রভাষক কার্তিক সুত্রধর বলেন, নদ-নদী ও বিলের প্রতিটি জলজ উদ্ভিদ ও প্রতিটি প্রাণী একে অন্যের পরিপূরক। একটি প্রাণী বা উদ্ভিদের ঘাটতি হলে অপর একাধিক উদ্ভিদ বা প্রাণী ক্ষতিগ্রস্ত হবে, এটাই স্বাভাবিক। বর্তমানে এ শামুক বাণিজ্যিকীকরণ হচ্ছে। কিছু টাকার জন্য মানুষ প্রকৃতির ভারসাম্য ক্ষতিগ্রস্ত করছে। এতে নিকলীর জলাশয়গুলো আরও বিপর্যস্ত হতে পারে।

নিকলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সাখওয়াত জানান, পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে বেশির ভাগ শামুক মারা যায়। মৃত শামুক মাটিতে মিশে কৃষি জমির উর্বরতা বৃদ্ধিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখে। কিন্তু শামুক নিধন প্রতিরোধে কৃষি বিভাগের তেমন কোনো দিক নির্দেশনা নেই। তারপরও পরিবেশের কোনো ক্ষতি না হয়, সে দিক থেকে বিষয়টি দেখা হবে।

নিকলী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জাহিদুর ইসলাম বলেন, শামুক পানিকে ফিল্টার করে। এগুলো বড় মাছেরও খাদ্য। জলের মধ্যে শামুকের যেমন প্রয়োজন আছে, তেমনি অতিরিক্ত হলে সেগুলো নিধন করাও যেতে পারে। শামুক নিধন প্রতিরোধে আমাদের তেমন কোনো দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়নি। তবে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় আমরা কাজ করে যাবো। এমনিতেই শামুক নিধন বেশি মাত্রায় হওয়ায় হুমকিতে পড়েছে নদী ও বিলের জীববৈচিত্্র্য। যার প্রভাব পড়বে পরিবেশের ওপর। আমরা মানুষকে সচেতন করতে মাইকিং করে শামুক নিধন বন্ধে কাজ করছি। আগামী দিনে যেন কেউ এই শামুক নিধন না করে ও শামুক ধরা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেব।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2024 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com