শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৩:৫৯ অপরাহ্ন

নিকলীতে বোরো ফসলের জমির মাটি বিক্রি হচ্ছে ইট ভাটায়, জমি হারাচ্ছে উর্বরতা শক্তি

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১১১ বার পড়া হয়েছে
নিকলি
বুধবার সকালে কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার গুরুই ইউনিয়নের চেত্রা হাওরে ফসলির জমির মাট কেটে ট্রাকক্টর দিয়ে ইট ভাটায় নিয়ে যাচ্ছে।

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় তিনটি ইটভাটায় ইট তৈরি জন্য চলছে বোরো ফসলি জমির মাটি বেচাকেনা। অভাবী কৃষকেরা এই মাটি বিক্রি করছেন। আর এ কারণে জমির উর্বরতা শক্তি কমে যাচ্ছে। এতে ফসল উৎপাদন বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন বিশেষঞ্জরা। অন্য দিকে নষ্ট হচ্ছে গ্রামিণ রাস্তা-ঘাট।

.
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে , জমির উর্বরতা শক্তি মাটির ওপর থেকে ১৫-২০ ইঞ্চির মধ্যে থাকে। তাই ওপর থেকে মাটি সরিয়ে ফেলায় জমির উর্বরতা শক্তি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় ধরে সে জমির ওপর বিভিন্ন পদার্থ জমে উর্বরতা শক্তি ফিরে আসতে শুরু করে। এভাবে আগের মতো উর্বরতা জৈব শক্তি ফিরে পেতে কমপক্ষে ১০-১৫ বছর সময় লাগে।

 

.

নিকলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের কুর্শা হাওর , জারুইতলা ইউনিয়নের বড় হাওর ও গুরুই ইউনিয়নের ছেত্রা হাওর ঘুরে গত বুধবার (৬ফের্্ুরয়ারি) সরজমিন দেখা গেছে , শীত মৌসুম থেকেই শুরু হয়েছে ফসলি জমির মাটি বিক্রি। আবাদি জমির মাটি ওপরের অংশ ১০ থেকে ১৫ ফুট গর্ত করে একসেলটর মেশিন দিয়ে কেটে নেওয়া হচ্ছে। একশ্রেণীর ব্যবসায়ী এ মাটি অভাবী কৃষকদের কাছ থেকে কিনে ইটভাটায় নিচ্ছেন। নিকলী সদর ইউনিয়নের কুর্শা গ্রামের কৃষক সুনামদ্দিন বলেন, এক মাস আগে কুর্শা মের্সাস কামাল ব্রিক্স এর ম্যানেজার ৫০ শতাংশ জমির মাটি বিশ হাজার টাকা দিয়ে বিক্রি করেছি। তারা জমির উপর থেকে ১০ ফুট গর্ত করে মাটি নিবে। অভাব অনটনের কারণে এ মাটি বিক্রি করেছি। একই গ্রামের কাদির বলেন , সবাই জমির মাটি বিক্রি করছে। তাই আমিও কুর্শা আলতাফ ব্রিকস এর ম্যানেজারের কাছে বিক্রি করছি। আমার ৫০ শতাংশ জমির মাটি বিক্রি করেছি পনর হাজার টাকায়। একই গ্রামের সিরাজ মিয়া বলেন, তার ১৬৫ শতাংশ জমির মাটি জারুইতলা ইউনিয়নের মের্সাস সামিয়া ব্রিক্সস কাছে ৮৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে। নিকলীতে প্রায় পনর বছর ধরে ফসলি জমির মাটি বিক্রির হিড়িক চলছে।

.

একশ্রেণীর ইটভাটার ব্যবসায়ীরা ফসলির জমির এ মাটি কিনে উপজেলার তিনটি ইটভাটায় বিক্রি করছে। এখন নিকলী সদর ইউনিয়ন ও জারুইতলা ইউনিয়নের ২০ শতাংশ কৃষক নগদ টাকার লোভে পড়ে মাটি বিক্রি করছে। ফসলি জমির মাটি বিক্রি করায় গর্তের সৃষ্টি হয়। এ গর্তের মধ্যে পাচঁ-ছয় বছর কোনো আবাদ হয় না বলে জানান জারুইতলা গ্রামের কৃষক সাইদুল হক। তিনি বলেন ,আমি পাঁচ বছর আগে ২৫ শতাংশ জমির মাটি বিক্রি করেছিলাম।এ কারণে এখনো সেই জমিতে আগের অর্ধেক ধান ও হয় না। কুর্শা গ্রামের মানির হোসেন জানান , এক একর বোরো জমিতে ৬০ মণ ধান হয়। ধানের দাম কম থাকায় খরচ বাদ দিয়ে লোকসান হয়। আর এ একর জমির মাটি বিক্রি করে নগদ পাওয়া যায় ৫০ হাজার টাকা। এ জন্য আমি আমার জমির মাটি বিক্রি করে দিয়েছি এতে অন্যায়টি করলাম। নাম প্রকাশ না করার শর্তে পাঁচ বছর ধরে মাটি বেচাকেনার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত তিনি বলেন , আমরা কৃষকদের কাছ থেকে নগদ টাকায় মাটি কিনে ট্রলি দিয়ে জমি থেকে মাটিগুলো নিয়ে যায়। আলতাফ ব্রিক্স এর একসেলটর ড্রাইভার জুমন মিয়া (২৫) বলেন , নিকলীতে মের্সাস আলতাফ ব্রিক্স ,মের্সাস কামাল ব্রিক্স ও মেসার্স সামিয়া ব্রিক্স নামে তিনটি ইটভাটা রয়েছে। আমারা চারট একসেলটর মেশিন দিয়ে তিনটি ইটভাটার ৩০ টি ট্রাষ্করের মাটি ভরে দেয়। প্রতি টি টাষ্কর রাতে-দিনে প্রতিদিন ২০ টি করে মাটির বোঝায় নিয়ে যায়। এতে দৈনিক তিনটি ইটভাটায় ৬০০ ট্রাষ্ক মাটি নেওয়া হয়।মের্সাস আলতাফ ব্রিকস এর ম্যানেজার লোকমান , মের্সাস কামাল ব্রিকসের ম্যানেজার কাজল মিয়া ও মের্সাস সামিয়া ব্রিকসের ম্যানেজার আবুল হাসিম বলেন , আমরা জোর করে কৃষকের জমির মাটি আনছি না। টাকার বিনিময়ে মাটি কিনে আনছি।

 

.
নিকলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন বলেন, কৃষকদের সচেতন করার পরও তারা কথা শুনছেন না। জমির র্উবরতা শক্তি মাটি উপর থেকে ১৫-২০-ইঞ্চির মধ্যে থাকে। জমির উপর অংশের মাটি সরিয়ে ফেলায় ওই জমির উর্বরতা শক্তি পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। নগদ টাকার আশায় কৃষকরা জমির মাটি বিক্রি করছেন। এতে সাময়িক তাদের অভাব দুর হলেও উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। আর এ সংক্রান্ত কোনো আইন না থাকায় আমরা কিছুই করতে পারছি না। তবে উপজেলা সহকারি কমিশনার ( ভূমি) কর্মকর্তাকে অনুরোধ করা হয়েছে এ ব্যাপারে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com