রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন

নিকলীতে ব্রি-২৮ জাতের ধান ক্ষেত নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত, মলিন কৃষকের মুখ

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ, ২০২২
নিকলীতে ব্রি-২৮ জাতের ধান ক্ষেত নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত, মলিন কৃষকের মুখ

গত বছর বোরো ধানের ফলন হলেও কৃষক দাম না তুলতে পারলেও। এবার কৃষক যখন হাওরে বোরো ধানের বাম্পার ফলনের কারনে স্বপ্ন দেখছে, ওই মহুুর্তে বি-২৮ পাকা ধান কাটার আগেই ক্ষেতে নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের কৃষকের হাসি মুখ মলিন হয়ে যাচ্ছে।

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার পনরটি হাওরে বি-২৮ জাতের পাকা বোরো ধান ক্ষেতের শীষে নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়েছে। হাওরগুলো হলো বরুলিয়া হাওর,জোহানশাহী হাওর,পরানের চর, রবিরচর, সিংপুর হাওর,ঘোড়াদীঘা হাওর, বাটিবরাটিয়া হাওর,কুর্শা হাওর, কারপাশা হাওর, ছাতিরচর হাওর, জারুইতলা হাওর ও নিকলীর বড় হাওরগুলোতে নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত বেশি হয়েছে। উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানান, চলতি মৌসুমে নিকলীতে ১৪ হাজার ৫১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে বি-২৮ ধান ৪ হাজার ৬৫০ হেক্টর ,ব্রি-২৯ ধান ৬ হাজার ৩৭ হেক্টর , হাইব্রিড ১ হাজার ১৯০ হেক্টর ও অন্যান্য জাতের ২ হাজার ৬৩৩ হেক্টর বোরো ধানের আবাদ হয়েছে।

মঙ্গবার (২৯ মার্চ) সরজমিনে বিভিন্ন হাওরঘুরে ও কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, আর দুই সপ্তাহ পর থেকেই ব্রি -২৮ জাতের ধান কাটা শুরু হতো। এর আগেই নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়েছে।

জাফরাবাদ গ্রামের খোকন মিয়া বলেন, আমার এক একর ব্রি -২৮ ধানের জমিতে নেক ব্লাষ্ট রোগে আক্রান্ত হওয়ায় জমির পাকা ধানসহ ও গাছ চোখের সামনে মরে যাচ্ছে। মাইজ হাটি গ্রামের কৃষক স্বাধীন মিয়া জানানা, জোহানশাহী হাওরে আমার ৪ একর জমিতে এ রোগ দেখা দেওয়ায় ধান গাছ কেটে আর বাড়িতে আনতে হবে না। জমিতে ধান গাছগুলো মরে খড় হয়ে গেছে। সারা বছর আমি ছেলে-মেয়েকে নিয়ে কী খেয়ে বাঁচবো।

বানিয়া হাটি গ্রামের আঃ রাশিদ মিয়া , নজরুল মিয়া, পুকুরপাড় গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়া, তাজু মিয়া, কফিল উদ্দিন, শাহাবদ্দিন মিয়ার বড় হাওরে জমিতে ওই রোগ দেখা দেওয়ায় বছরের এক মাত্র বোরো ফসল ঘরে তুলতে না পারায় তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

ঘোড়াদীঘা গ্রামের ইউপি সদস্য আঃ মোতালিব সর্দার, সিংপুর গ্রামের কৃষক কাবিল সর্দার জানান, ঘোড়াদীঘা ও সিংপুর এবং ভাটিবরাটিয়া হাওরের এক মাত্র বোরো জমিই সম্বল। ওই রোগে হাওরের জমির ধান সব শেষ করে ফেলছে। কী করবো আল্লা-মাবুদ জানেন।

সিংপুর গ্রামের কৃষক শাহজাহাান মিয়া বলেন, এ বছর সিংপুর বড় হাওরে দুই একর ব্রি-২৮ জাতের ধানের জমিতে নেক ব্লাষ্টার রোগে আমার সবস্বপ্ন শেষ করে দিয়েছে। নিকলী উপজেলার কৃষকের মধ্যে শেষ মুহুুর্তে এক ধরণের আতংঙ্ক বিরাজ করছে। এ দিকে ক্লোল্ড ইনজুরির কারণে বি-২৯ জাতের ধানের শীষের আগা মরা অবস্থায় বাহির হচ্ছে। এতে নিকলী হাওরের কৃষকদের মাঝে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে। বছরে এক মাত্র বোরো ফসল ঘরে তুলতে না পারলে, মহাজনির ঋণ, এনজিওর ঋণ, ব্যাংক ঋণ ও সারা বছর সংসার চালাবে কি করে এই চিন্তায় তারা এখন কী করবে হাহাজারি বিরাজ করছে।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, নেক ব্লাষ্ট রোগের সৃষ্টি হয় রাতে কুয়াশা, দিনে গরম – রাতে শীত,গুড়ি-গুড়ি বৃষ্টি থেকে। কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে চেষ্টা করছি।
নিকলী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বেলায়েত হোসেন নেক ব্লাষ্ট রোগে পাকা বোরো ধানের জমি আক্রান্ত হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ রোগ দেখা দিয়েছে তবে ব্যাপক আকারে নয়। রোগ প্রতিকারের জন্য উপজেলা কৃষি বিভাগ কৃষকদের নাটিবো, এমষ্টিারটপ ও টুপার ও নামক কীটনাশক একরে ১২০ মিলিগ্রাম ওষুধের সাথে ২০০ লিটার পানিতে মিশিয়ে জমিতে স্প্রে করার পরামর্শ দিচ্ছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: