রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৩ অপরাহ্ন

নিকলীতে সিএনজি চালিত অটোরিকসায় সিলিন্ডার এলপি গ্যাস ব্যবহার, যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় দুর্ঘটনা

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

দিলীপ কুমার সাহা
কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সিএনজি চালিত অটোরিকসাগুলোতে রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস এর পরিবর্তে সিলিন্ডার এলপি গ্যাস অহরহ ব্যবহার হচ্ছে। এ অবস্থায় যে কোনো সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ কারনে উৎকণ্ঠায় রয়েছে উপজেলার হাজার হাজার সিএনজি পরিবহন যাত্রী।
এদিকে মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বিভিন্ন উপজেলা থেকে কিশোরগঞ্জের একমাএ ভৈরব উপজেলা সদরে থাকা সিএনজি স্টেশনে গ্যাস কিনতে গেলে গাড়ি গতিরোধ ও মাসোহারা দাবি করছে ভৈরবের কিছু অসাধু লোক।
গতকাল বুধবার উপজেলার বিভিন্ন সিএনজি স্ট্যান্ড ঘুরে দেখা যায়, নিকলী -কিশোরগঞ্জ, নিকলী-ভৈরব, কটিয়াদি- নিকলী, বাজিতপুর-নিকলীসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলায় চলাচল কারী যাত্রীবাহী অটোরিকসায় সিএনজির পরিবর্তে এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার হচ্ছে। এসব সিলিন্ডার চালকের সিটের নিচে এবং যাত্রী সিটের পেছনে ক্যারিয়ারে উন্মুক্তভাবে ব্যবহার হচ্ছে। বাংলাদেশ বিস্ফোরণ অধিদপ্তর এ জাতীয় পরিবহনে সিএনজি সিলিন্ডার ব্যবহারের অনুমতি থাকলেও এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহারের অনুমতি নেই। এটি সাধারণত বাসা-বাড়িতে রান্নার কাজে ব্যবহার হয় বলে জানা গেছে।
সিএনজি সিলিন্ডার প্রকারভেদে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকায় কিনতে হয়। এতে গ্যাস রি-ফিলিং করলে এক চতুর্থাংশ বাতাস থাকলেও সিলিন্ডারটি নিরাপদ থাকে। কিন্তু, এলপি গ্যাস সিলিন্ডার যত্রতত্র ১২ শত টাকাতেই কেনা যায় তাতে বাতাসের পরিমাণ থাকে না। এই সিলিন্ডার কোনোক্রমেই নিরাপদ নয়। এলপি গ্যাস সহজ লভ্যতার কারণেই এর ব্যবহার দিনদিন বেড়েই চলছে আর যাত্রীদের নিরাপত্তা ঝুঁকিও বাড়ছে।
সরেজমিনে জানা যায়, নিকলী উপজেলা সদর থেকে সর্ব দক্ষিণে ৫৮ কিলোমিটার দূরে ভৈরবে একমাত্র সিএনজি রি-ফিলিং স্টেশনটি রয়েছে। জেলায় এ ছাড়া আর কোন রি-ফিলিং ষ্টেশন নাই। ফলে ভৈরবে গিয়ে অটোরিকশা মালিক ও ড্রাইভারকে গ্যাস সংগ্রহ করতে দীর্ঘ সময় ব্যয় করতে হয়। তাই অতিরিক্ত মুনাফা অর্জনে এলপি সলিন্ডার গ্যাস ব্যবহারে মেতে উঠেছে সিএনজি মালিক ও ড্রাইভার, উৎসাহিত করছে অন্যদেরকেও। এ কারণে প্রতিনিয়ত বাড়ছে এলপি গ্যাসের দাম।
নিকলী উপজেলা সুজনের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, সিএনজিতে সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহারের ফলে যাএীরা সব সময় মৃত্যুকে সঙ্গে নিয়ে চলাচল করছে। যে কোনো সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বিষয়টি প্রশাসনিক ভাবে দেখা দরকার।
নিকলী উপজেলা সিএনজি অটোরিকসা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মুর্শীদ মিয়া জানান, মহাসড়কে অটোরিকশা চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকায় সুযোগ নিচ্ছে পুলিশ। ভৈরবে গ্যাস কিনতে গেলে পথে পুলিশ সদস্যরা গতিরোধ করে। অন্য দিকে ভৈরব গেলে বিভিন্ন ধরণের চাঁদা দিয়ে আমাদের আর কিছুই থাকে না। প্রতিদিন একই রকম ঝামেলা পোহাতে হয়। এখন সব ঝুঁকি মাথায় নিয়ে এলপি গ্যাস ব্যবহার করছি। নিকলী উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলার প্রায় দুই হাজার সিএনজির ড্রাইভার এলপি গ্যাস ব্যবহার করছে বলে জানান তিনি।
এ ব্যাপারে নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুছাম্মৎ শাহীনা আক্তার ওয়ান নিউজকে বলেন, আমি এখানে নতুন যোগদান করেছি। বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: