বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন

নিকলীর দুই গ্রামের মানুষের ঘুম ভাংঙ্গে পাখির কলকাকলিতে

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ২৮ নভেম্বর, ২০১৮

 

দিলীপ কুমার সাহা ,নিকলী
নিকলীর নয়াহাটি ও পুকুরপাড় এই দুই গ্রামের মাঝে রয়েছে পশ্চিম কবরস্থান। সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত সেখানে থাকে শীতের পাখির কলতান। গোধূলির রক্তিম রং ডানায় মেখে কলকাকলি করে নীড়ে ফিরে ঝাঁকে ঝাঁকে বক ও পানকৌড়ি। দিনের ক্লান্তি শেষে দল বেঁধে তারা ফেরে কিশোরঞ্জের নিকলীর পশ্চিম কবরস্থানে। দেখে মনে হয় যেন সাদা বক ফুলের মাঝে রয়েছে টসটসে কালো জাম।
এই কবরস্থানটি নিকলীর নয়াহাটি ও পুকুরপাড় দুই গ্রামের মাঝে অবস্থিত। সন্ধ্যা থেকে ভোর অবধি গ্রাম দুটি পাখির কলতানে মুখর থাকে। মানুষ আর পাখপাখালির এমন মিলেমিশে বসবাস সচরাচর চোখে পড়ে না। নিজেদের কিছু অসুবিধা মেনে নিয়েও এলাকার লোকজন মিলে গড়ে তুলেছেন পাখিদের এই অভয়াশ্রম। পাখিদের সুখের এই নীড় গড়ে উঠেছে প্রায় বার বছর আগে। এক সময় আর দশটা গ্রামের মতোই হাতে গোনা দুই-একটা পাখি আসত এখানে। কিন্তু হঠাৎ কেন জানি পাখিদের মনে ধরে গেল জায়গাটি।
কথা হয় পুকুরপাড় গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের সঙ্গে। তিনি কবরস্থান ও মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক। হাবিবুর জানান, দশ-বার বছর আগে এই কবরস্থানের কয়েকটি কড়ইগাছে কিছু পানকৌড়ি ও সাদা বক এসে বসে। এরা সেই গাছে বাসা বানায়। সেই যে পাখিরা এলো, আর গাছ ছেড়ে যায়নি। দিনে দিনে পাখির সংখ্যা বেড়েছে। এখন অবশ্য এখানে পাখির বৈচিত্র্যের অভাব নেই। পানকৌড়ি, সাদা বক ছাড়াও শামুকভাঙা, শালিক, ঘুঘু, দোয়েল, চড়ুই, টুনটুনি ছাড়াও অচেনা অনেক পাখি এখন আসে। তবে ছোট পাখিগুলোকে পাতার আড়ালে কোনো রকমে গা বাঁচিয়ে থাকতে হয়। কারণ, দাপট সেই পানকৌড়ি ও বকেরই। কবরস্থানের আটটি কড়ইগাছে পাখিদের স্থান সংকুলান হয় না। তাই আশপাশের বিভিন্ন বাড়ির আম, জাম, নারকেল গাছেও ছড়িয়ে পড়েছে পাখিরা।
পুকুরপাড় গ্রামের গৃহিণী রুমা আক্তার জানান, শুধু গাছে নয়, ঝড়-তুফান হলে পাখিগুলো বসতঘরে ঢুকে পড়ে। চৌকির ওপর-নিচও তারা দখল করে নেয়। তাড়িয়ে দিলে আবার ফিরে আসে। তখন এদের খাবারের ব্যবস্থা করতে হয়। এই বিপদের সময় পাখিগুলো এমন মায়াভরা চোখে তাকিয়ে থাকে, দেখলে কষ্ট লাগে।
দামপাড়া কারার মাহতাব উদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন জানান, সেপ্টেম্বর, নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে এখানে পাখি বেশি থাকে। নভেম্বর-ডিসেম্বরে শীত বেশি হয়। তখন বকের সংখ্যা বাড়তে থাকে।
উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, এখানে এত পাখি! না দেখলে বিশ্বাস করা করা যায় না? গ্রাম দুটি থেকে অল্প দূরেই হাওর। হাওরের জলাশয়গুলোতে প্রচুর মাছ পাওয়া যায়, তাই এখানে এত পাখির দেখা মেলে। এখানে কয়েক হাজার পাখি বাস করে। কেউ বিরক্ত না করায় পাখির সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
কবরস্থান ও মসজিদ কমিটির সভাপতি মো. আসমত আলী বলেন, এখানে পাখিকে কেউ অত্যাচার করলে বা শিকার করলে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হবে বলে মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তাই কেউ এখানে এসে পাখিদের বিরক্ত করে না।
নিকলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোছামৎ শাহিনা আক্তার বলেন, তিনি রাস্তার পাশের ওই কবরস্থান ও গ্রাম দুটি দেখেছেন। সেখানে রীতিমতো পাখির অভয়াশ্রম গড়ে উঠেছে। এতে এলাকার লোকজনের মধ্যে পাখির জন্য মমতার সৃষ্টি হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে এলাকায় পাখি শিকার নিষিদ্ধ ও দ-নীয় অপরাধ এই মর্মে একটি সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেওয়া হবে। পাখি শিকার প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিদের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: