রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৪৬ অপরাহ্ন

নিজ জমিতে বাড়িঘর তুলতে নিতে হবে অনুমতি, ডিসিদের কাছে মন্ত্রণালয়ের চিঠি

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১
ডিসিদের কাছে মন্ত্রণালয়ের চিঠি

এখন থেকে ইচ্ছা করলেই গ্রামে নিজের জমিতে নতুন করে ঘরবাড়ি নির্মাণ করা যাবে না। এ জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদকে (ইউপি) জানাতে হবে। গ্রামে অপরিকল্পিতভাবে অবকাঠামো নির্মাণ ঠেকাতে ইউনিয়ন পর্যায়ে মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এই মাস্টারপ্ল্যান তৈরি না হওয়া পর্যন্ত নতুন করে বাড়িঘর ও ধর্মীয় স্থাপনা তৈরি করতে ইউনিয়ন পরিষদকে অবহিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি এ নির্দেশনা দিয়ে সব জেলা প্রশাসককে (ডিসি) চিঠি দিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

শহরের মতো গ্রামকেও পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। তিনি গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমার গ্রাম-আমার শহর কনসেপ্ট বাস্তবায়নে কাজ করছে সরকার। এ কারণে শহরের মতো গ্রামকেও পরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা হবে। গ্রামে কেউ নতুন বাড়িঘর বা স্থাপনা তৈরি করতে চাইলে তাকে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদকে অবহিত করতে হবে। একটি  নির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে গ্রামে অপরিকল্পিতভাবে অবকাঠামো নির্মাণ ঠেকানো যাবে না। এটি কার্যকর হলে কৃষিজমিরও সুরক্ষা হবে।’ ডিসিদের কাছে পাঠানো ১৯ আগস্টের ওই চিঠিতে বলা হয়, স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদের ৩৯টি দায়িত্ব রয়েছে। এর মধ্যে একটি- ইউনিয়নে নতুন বাড়িঘর, দালান নির্মাণ ও পুনর্নির্মাণ এবং বিপজ্জনক দালান নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব ইউনিয়ন পরিষদের ওপর অর্পিত। যত দিন ইউনিয়ন পর্যায়ে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি না হবে, তত দিন পর্যন্ত বাড়িঘর ও ধর্মীয় স্থাপনা তৈরির আগে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদকে অবহিত করতে হবে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের অনুরোধ জানানো হয় চিঠিতে।

এর আগে ৫ মে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছিলেন, গ্রামগঞ্জে বাসা-বাড়ি, দোকানপাট, মসজিদ-মাদরাসা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, ক্লাব কিংবা অফিস-আদালতসহ যে কোনো অবকাঠামো নির্মাণ করতে অবশ্যই একটি যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। এই অনুমতির ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদকে (ইউপি) দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে। রাজধানীর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবন থেকে সেভ দ্য চিলড্রেন ও বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স আয়োজিত ‘মেয়র সংলাপ : নিরাপদ, টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক নগর’ বিষয়ক ভার্চুয়াল সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

ইউনিয়ন পরিষদের সক্ষমতা নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ইউপির সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন আসতেই পারে। কিন্তু একটি নির্দিষ্ট কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে গ্রামে অপরিকল্পিতভাবে অবকাঠামো নির্মাণ ঠেকানো যাবে না। ইউপিকে এ বিষয়ে ক্ষমতায়ন করার পর তারা যাতে ক্ষমতার অপব্যবহার করতে না পারে সে জন্য উপজেলা পরিষদকে সংযুক্ত করা হবে। কেউ যদি ক্ষমতার অপব্যবহার করে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কোনো অবস্থায় অনুমতি ছাড়া কৃষিজমিতে বাড়িঘর বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান/স্থাপনা নির্মাণ করতে দেওয়া যাবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ দর্শনের ফলে শহরের সব সুযোগ-সুবিধা প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে দিচ্ছে সরকার। তাই এখন থেকেই গ্রামকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে হবে। জানা গেছে, বর্তমানে দেশে ভূমি উন্নয়নকাজের জন্য রাজউকসহ অন্যান্য উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, সিটি করপোরেশন, পৌরসভার অনুমোদন নিতে হয়। নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা আইন, ২০১৭ অনুযায়ী শুধু গ্রামেই নয়, উন্নয়নকাজে দেশের যে কোনো জায়গায় ভূমি ব্যবহার করতে হলে সরকারি কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র নিতে হয়। এটি লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদন্ড এবং সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা অর্থদন্ডের বিধান রয়েছে। সারা দেশে ভূমি ব্যবহারে শৃঙ্খলা আনার জন্যই এ আইন করা হয়েছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: