রবিবার, ২৯ মে ২০২২, ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন

পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে নিকলীর পালপাড়ায় ব্যস্ত সময় খাটাছে মৃৎ শিল্পীরা

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০২২
পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে নিকলীর পালপাড়ায় ব্যস্ত সময় খাটাছে মৃৎ শিল্পীরা

আর মাত্র এক সপ্তাহ পর পহেলা বৈশাখ , মাটির তৈরি তৈজসপত্রের টুং-টাং শব্দ। হাতের কারুকার্যে কাদামাটি দিয়ে হয়েছে বাহারি সব পণ্য। এসব তৈরির পর রোদে শুকানো, আগুনে পোড়ানো, রং করা ও প্যাকেট করে নির্ধারিত স্থানের বৈশাখী মেলায় নিয়ে যাওয়ার প্রস্ততি। কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার পালপাড়া এলাকার বর্তমান চিত্র এমনই। নিকলীর মৃৎশিল্পীদের সব ব্যস্ততা এখন পহেলা বৈশাখ ঘিরে। হরিদাস পাল জানান, গত দুই বছর কোভিট-১৯ জন্য কোনো বৈশাখী মেলা না হওয়ায় , তার খুব হতাশায় ছিল। এ বছর কোনো বিধি নিষেধ না থাকায় তারা খুব খুশি।

পালপাড়ার ঠাকুরধন পাল, প্রতীপ পাল, রিপন পাল, পরিতোষ পাল, রবি দাস পাল, কাজল পাল, বিশ্ব পাল, রবিন্দ্র পাল, হরিদাস পাল, বলাই পাল, জীবন পাল, ক্ষিতিশ পাল, রঞ্জিত পাল ও সুভাষ পালের হাতের ছোঁয়ায় কাদামাটি দিয়ে তৈরি হয় মৃৎশিল্প।

তাদের মাটির তৈরি শৈল্পিকতায় অনেক আগেই জয় করে নিয়েছে ভৈরব , কিশোরগঞ্জ , হোসেনপুর , কটিয়াদী ও বাজিতপুর উপজেলার বৈশাখী মেলা। তাই বৈশাখকে ঘিরে ওই সব উপজেলার মেলার আয়োজন কমিটি থেকে তাগিদ আছে তাদের জিনিসপত্র নিয়ে মেলায় যাওয়ার জন্য। সে কারণে ওই সব উপজেলার মেলার চাহিদা মেটাতে প্রতি বছরের মতো এ বছরও একই ধরনের ব্যস্ততা তাদের।প্রতিবছরই মৃৎ শিল্পীরা পণ্যে ডিজাইনে পরির্বতন করেন।

পালপাড়ার কয়েকজন শিল্পী জানান , গত চার বছরের তুলনায় এ বছর সবগুলো মাটির পণ্যে নতুনত্ব এসেছে। এ বছর ডিনার সেটে থাকছে প্লেট ,গ্লাস , মগ , কারিবল , জগ , লবণবাটি , সানকি (বাসন), কাপ-পিরিচ ও তরকারির বাটি। অন্যান্য পণ্যের মধ্যে হাতি , ঘোড়া , গরু , হরিণ , সিংহ , বাঘ , ভালুক , জেব্রা , হাঁস , মুরগি , ছোট শিশুদের খেলার হাড়িপাতিল, নতুন ডিজাইনে কয়েলদানি , মোমদানি , ফুলদানি , ঘটি-বাটি , আম,কাঠাল, আনারস, পেপে,কামরাঙ্গা আতাফল,কলস ,বাঙ্গী। যা মেলার ক্রেতাদের আলাদাভাবে আকুষ্ট করবে।কোনো রাসায়নিক পদার্থের ছোঁয়া ছাড়াই তৈরি করা হয়ছে মাটির এসব পণ্য। রং করা হয় প্রাকৃতিক উপায়ে পাওয়া গাছের কষ দিয়ে।

গতকাল বুধবার(৬এপ্রিল) সরেজমিনে দেখা গেছে , শেষ সময়ের মৃৎ শিল্পীরা বেশ ব্যস্ততায় দৌড়-ঝাঁপ করছেন। মেলা ঘনিয়ে আসছে তাই কাজ দ্রুত শেষ করার জন্য পরিবারের সব সদস্যসহ বাড়তি শ্্রমিক নিয়োগ করা হয়েছে।

পালপাড়ার হরিদাস পাল জানান, এক সময় নিকলীর পালপাড়ার মৃৎশিল্পীরা পুতুল,কলস,ছোটবাচ্চাদের খেলনা,রসের হাঁড়িসহ গ্রামবাংলার ঘরে ব্যবহারের উপযোগী নানা ধরনের মাটির সামগ্রী তৈরি করতেন। কিন্ত সময়ের সঙ্গে তালমিলিয়ে ধীরে ধীরে তাঁরা মাটি দিয়ে অন্যান্য পণ্যও তৈরি শুরু করেন। সুভাষ পাল জানান , প্রতিবছর বৈশাখী মেলা করে নিকলীর পালপাড়ার অর্ধশতাধিক পরিবারের লোকজনের আর্থিক সচ্ছলতা এসেছে। তাঁদের সন্তানেরা স্কুল-কলেজে পড়াশোনা করছে, সংসারের অভাব দুর হয়েছে। দেশে আধুনিক মানের সিরামিকের পণ্যকে চ্যালেঞ্জ করে এখনো গ্রামবাংলার প্রতিটি ঘরে মাটির শিল্প টিকে রয়েছে। নিকলীর মৃৎশিল্পীরা খুব কৌশলী হওয়ায় তারা এ পেশাকে টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছেন।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: