রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ১০:৪২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বেনাপোল বন্দরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছে হাজার হাজার শ্রমিক হোসেনপুরে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান উদ্বোধন পাকুন্দিয়ায় বেকার যুবকদের ১০ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণের সমাপ্তি পাকুন্দিয়ায় কিশোর-কিশোরী ক্লাবে বাদ্যযন্ত্র ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ বাবা-মা’র পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সিআইপি মুসা মিয়া কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দ্বিতীয় পর্যায়ে গৃহহীন পরিবারের মাঝে জমিসহ ঘর বিতরণ সিরাজগঞ্জে ২০ লক্ষ টাকার হেরোইনসহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার পাগলা মসজিদের দানবাক্সে এবারও ৫ মাসে সোয়া দুই কোটি টাকা কটিয়াদীতে ইয়াবা’সহ মহিলা মাদক ব্যবসায়ী আটক কিশোরগঞ্জে পাগলা মসজিদের দানবাক্স খোলা হয়েছে, চলছে গণনা

প্রথম ধর্ষণে মেয়ের জন্ম, দ্বিতীয় ধর্ষণে ছেলে

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
  • ১৪৬ বার পড়া হয়েছে
প্রথম ধর্ষণে মেয়ের জন্ম, দ্বিতীয় ধর্ষণে ছেলে

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার চর নয়াডাঙ্গী গ্রামে এক নারীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে পাঁচ সন্তানের জনক নুরু মিয়ার বিরুদ্ধে। এতে ওই নারী একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। পরে সন্তানের পিতৃপরিচয়ের দাবি জানালে নুরু মিয়ার সঙ্গে তার বিয়ে দেন স্থানীয় গণ্যমান্যরা।

ধর্ষক নুরু মিয়া ওই গ্রামের মাহাম মিয়ের ছেলে। বিয়ের এক বছর না যেতেই ওই সন্তানকে অস্বীকার করে স্ত্রীকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে বিচ্ছেদ ঘটান তিনি।

ঘটনাটি বছর দশেক আগের। সেই থেকে কখনো গার্মেন্টসে, কখনো অন্য বাড়িতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছিলেন ধর্ষণের শিকার নারী। তার অভিযোগ, বিচ্ছেদের পর নুরু মিয়া তাকে বিভিন্ন সময় উত্যক্ত ও একাধিকবার ধর্ষণ করেন। দুই বছর আগে তার ধর্ষণের কারণে আরো একটি সন্তানের জন্ম দেন ওই নারী। দুই সন্তানের পিতৃপরিচয় না থাকায় বর্তমানে তিনি সমাজচ্যুত হয়ে পড়েছেন। দুই ছেলে-মেয়ে যখন তাদের বাবার কাছে যায়, তখন নুরু মিয়া তাদের মেরে তাড়িয়ে দেন। তার কারণে মা ও দুই সন্তানকে সমাজের কাছে হেয় হতে হচ্ছে। কোনো উপায় না পেয়ে স্ত্রীর মর্যাদা চেয়ে ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযুক্ত নুরু মিয়া বলেন, ১০ বছর আগে ওই নারী গর্ভের সন্তানের জন্য আমাকে দায়ী করা হয়েছিল। তখন আমি বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছিলাম। পরে তাকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে বিচ্ছেদ করেছি। বছর দুয়েক আগে আবারো ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। তখনও আমাকে দায়ী করে সে। ওই দুই ছেলে-মেয়ের বাবা আমি নই।

জয়মন্টপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার শাহাদাত হোসেন বলেন, ওই নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে নুরু মিয়াকে ডেকে আনা হয়েছিল। সে অস্বীকার করেছে। ভিকটিমকে আইনি প্রক্রিয়ায় ওসিসিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. ইমানুর রহমান বলেন, অভিভাবকহীন শিশুদের দায়িত্ব আমাদেরই নিতে হয়। পিতৃপরিচয় প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে নির্যাতিত নারী প্রচলিত আইনে মামলা করতে পারেন।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রওশন আরা বলেন, দুইপক্ষকে ডেকে সমাধানের চেষ্টা করা হবে। মীমাংসা না হলে সন্তান দুটির পিতৃপরিচয় প্রতিষ্ঠার জন্য ডিএনএ টেস্টের ব্যবস্থা করা হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: