বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধু ও শিল্পাচার্য

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮

জাহিদ মুস্তাফা
সমসামরিয়ককালের দুই মহান বাঙালির কথা বলছি। দু’জনই ইতিহাসের মহানায়ক। এর একজন বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান (১৯২০-১৯৭৫), আরেকজন বাঙালির আত্মপরিচয়ের অন্যতম উদগাতা শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন (১৯১৪-১৯৭৬)। দু’জনের সম্পর্ক ছিল মধুর। বয়সে বড়ো জয়নুলকে বড়োভাই জ্ঞান করতেন বঙ্গবন্ধু, তেমনি রাজনীতি না করেও বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে শিল্পাচার্য বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির সমর্থক ছিলেন।
দু’জনের উচ্চশিক্ষা নেওয়ার ক্ষেত্র সেকালের বাংলার রাজধানী কলকাতা। জয়নুল পড়েছেন আর্টস্কুলে ১৯৩২ সাল থেকে ১৯৩৮ সাল পর্যন্ত। ১৯৩৮ সালেই তিনি আর্টস্কুলের শিক্ষক নিযুক্ত হন। বঙ্গবন্ধু পড়েছেন কলকাতার ইসলামিয়া কলেজে চল্লিশ দশকের প্রথমার্ধে। রাজনীতির নবীন কর্মী হিসেবে শেখ মুজিব সে সময় ক্রমান্বয়ে পরিচিতি হয়ে ওঠেছেন। কলকাতা পর্বে এ দু’জনের কাজের ক্ষেত্র ভিন্ন হওয়ায় তাঁদের প্রত্যক্ষ যোগাযোগের কোনো তথ্য সম্পর্কে আমরা অবগত নই। তবে ধারণা করা যায়- নিজ নিজ কাজে তাঁদের নাম ছড়িয়ে পড়ায় হয়তো সে সময় পরস্পরকে জানা বিচিত্র নয়। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পটভূমিতে ব্রিটিশ সমরনীতির কারণে বাংলার খাদ্যশস্য ভারতের অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ায় ১৯৪৩ সালে বাংলায় ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। খাদ্যের সন্ধানে গ্রাম থেকে কলকাতায় ছুটে আসে অসংখ্য ভুখানাঙা মানুষ। খাদ্যাভাবে মানুষের এই করুণ পরিনীতিতে ক্ষুদ্ধ জয়নুল সাধারণ কাগজে কালোকালিতে তুলির সাহায্যে আঁকলেন মানুষের সেই দুর্ভোগের ছবি। এই তাঁর দুর্ভিক্ষের চিত্রমালা। মানুষের তৈরি দুর্ভিক্ষের বিরুদ্ধে শিল্পীর এই সৃজন প্রতিবাদে সারা ভারতে ছড়িয়ে পড়লো জয়নুলের নাম। তরুণ শেখ মুজিব সে সময় অনাহারীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, লঙ্গরখানা পরিচালনা করে তাদের খাবারের ব্যবস্থা করেছেন। ছোটোবেলা থেকে শুরু করে আজীবন মানুষের জন্য কিছু করতে পারাকে কর্তব্য মনে করেছেন তিনি।
১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধু বাঙালির মুক্তির সনদ ৬ দফা ঘোষণা করেন। সেই ঘোষণা মঞ্চের সাজসজ্জা করেন শিল্পী হাশেম খান। গণঅভ্যূত্থান ও স্বাধীকার সংগ্রামের পোস্টার, কার্টুন, ফেস্টুন সব কিছুতেই ছিল আমাদের চারুশিল্পীদের সৃজনী হাত। বাঙালির অধিকার আদায়ের এসব কাজের পেছনে জয়নুলের প্রচ্ছন্ন সমর্থন ছিল।
বাঙালির এই দুই মহানায়কের মধ্যে যথার্থ যোগসূত্র স্থাপন করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ রেসকোর্সে ঐতিহাসিক জনসভায় বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করেন- ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। স্বাধীনতার এই সংগ্রামের সঙ্গে দেশের চারুশিল্পীরা একাত্ম হয়ে পড়েন। তাঁরা গঠন করেন ‘বাংলা চারু ও কারুশিল্পী সংগ্রাম পরিষদ’। এর যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী ও শিল্পী মুর্তজা বশীর। ১২ই মার্চ এই শিল্পী পরিষদ এক মিছিলের আয়োজন করে। মিছিলের অগ্রভাগে চারুকলা মহাবিদ্যালয়ের চারজন ছাত্রী চারটি কুলায় লেখা ‘স্বাধীনতা’ এই চারটি অক্ষর বহন করেন। সরকারবিরোধী ব্যানার, কার্টুন ও ফেস্টুনে সজ্জিত এই মিছিল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে শুরু হয়ে বাহাদুর শাহ পার্কে গিয়ে শেষ হয়। একেবারে অগ্রভাগে থেকে জয়নুল মিছিলের নেতৃত্ব দেন। মিছিল শেসে বাহাদুর শাহ পার্কে সমবেত শিল্পী ও জনতার উদ্দেশ্য এক সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় জয়নুল বলেন, ‘স্বাধীনতা সংগ্রাম ছাড়া বাঙালিদের আর উপায় নেই’।

মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভের পর মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয় মিছিল নিয়ে শিল্পাচার্য জয়নুল আঁকলেন- ‘মুক্তিযোদ্ধা’, যেটি বর্তমানে জাতীয় জাদুঘরের সংগ্রহে আছে। বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে তিনি বাংলাদেশের নবপ্রণিত সংবিধান হাতে লিখে অলংকরণের মর্যাদাপূর্ণ কাজের নেতৃত্ব দেন। হাতে লেখার কাজ করেন শিল্পী এ কে এম আবদুর রউফ, অলংকরণ করেন শিল্পী জুনাবুল ইসলাম, হাশেম খান, সমরজিৎ রায় চৌধুরী ও আবুল বারক আলভী। সংবিধানের কভার করা হয় লেদার বাটিক দিয়ে। রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ এ কাজে জড়িত শিল্পীদের নকশা, অলংকরণসহ হাতে লেখা খসড়া সংবিধান তৈরির দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালনের পর জয়নুল আবেদিন যথাসময়ে, অর্থাৎ ১৯৭২-এর অক্টোবরে গণভবনে সেটি দেশের সরকার প্রধান, অর্থাৎ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে তুলে দেন। এ সময় জয়নুল তাঁর কারুপল্লি ও লোকশিল্প জাদুঘর প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনার কথা উত্থাপন করলে বঙ্গবন্ধু তাঁকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
১৯৭২ সালের ৪ঠা নভেম্বর সংবিধান অনুমোদিত হয়। অনুমোদন লাভের পর সংশোধিত পৃষ্ঠাগুলো নতুন করে লিখে দেন এ কে এম আবদুর রউফ। সংবিধানের প্রতিটি অনুচ্ছেদের শেষে একটি করে মোট দশটি ড্রয়িং এঁকে দেন জয়নুল। যাতে ওঠে এসেছে বাংলাদেশের জনজীবন। এছাড়া নিজ সংগ্রহ থেকে একটি নকশিকাঁথা এনে তা দিয়ে পোস্তানি ছাপিয়ে এই সংবিধানে ব্যবহার করেন। হাতে লেখা মুল কপিটি রয়েছে জাতীয় জাদুঘরে।

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বঙ্গভবনে যাওয়ার সময় চারুকলার সামনের রাস্তা ব্যবহার করতেন। শিল্পী ও ভাস্কর আবদুর রাজ্জাকের কাছে শুনেছি একদিন কোন কাজে আবেদিন স্যার এসেছেন চারুকলায়। গেটের সামনে দাঁড়িয়ে তাঁরা কুশল বিনিময় করে কথা বলছিলেন। এমন সময় ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিছিলেন বঙ্গবন্ধু। আবেদিন স্যারকে দেখে গাড়ি থামিয়ে নেমে এলেন বঙ্গবন্ধু। জয়নুল তাঁর স্বপ্নের লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠায় সরকারি পদক্ষেপ গ্রহণে বিলম্ব দেখে তখন আশাহত। সে অভিমানে তিনি বঙ্গবন্ধুকে না দেখার ভান করতেই বঙ্গবন্ধু তাঁকে জড়িয়ে ধরে প্রতিশ্রুতি দিলেন- ‘আবেদিন ভাই, রাগ কইরেন না, কয়েকদিনের মধ্যেই আপনার কাজ হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ’। বঙ্গবন্ধু তাঁর প্রতিশ্রুতি রেখেছিলেন।
১৯৭৫ সালের ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ৫৫তম জন্মদিনে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন জাতীয় অধ্যাপক নিযুক্ত হন। এবং একই দিনে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে ব্রহ্মপুত্র নদের ধারে জয়নুল সংগ্রহশালা প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শিল্পাচার্যের ঐকান্তিক ইচ্ছাকে সম্মান জানিয়ে বঙ্গবন্ধুর সদিচ্ছায় এই সংগ্রহশালা গড়ে ওঠে।
বঙ্গবন্ধুর আগ্রহে ১৯৭২ সালের ২১শে নভেম্বর দুই বছর মেয়াদে বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব বর্তায় জয়নুলের ওপর। ১৯৭৪ সালের ফেব্রুয়ারির তৃতীয় সপ্তাহে বাংলা একাডেমির উদ্যোগে আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। কবি জসীমউদদীনের সভাপতিত্বে, জয়নুল আবেদিনের উপস্থিতিতে এর উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
উল্লেখ্য, দেশের বিরল এই তিন কৃতি সন্তানের পারস্পরিক সম্পর্ক ছিল গভীর আস্থা, বন্ধুত্বপূর্ণ ও শ্রদ্ধার। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি, আবহমান বাংলার অমর কবি জসীমউদদীন আর শাশ্বত বাংলার চিরকালের চিত্রকর জয়নুল। নিজ নিজ ক্ষেত্রে তাঁরা ছিলেন সফল মানুষ এবং তাঁরা সারাজীবন এদেশের জনমানসের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। স্বাধীন বাংলাদেশের তাঁদের মহাপ্রয়াণও ঘটেছে কাছাকাছি সময়ে। রিক্ত হয়েছে বাংলা মায়ের কোল।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: