সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৮:১০ অপরাহ্ন

নোটিশ :
আমাদের নিউজ সাইটে খবর প্রকাশের জন্য আপনার লিখা (তথ্য, ছবি ও ভিডিও) মেইল করুন onenewsdesk@gmail.com এই মেইলে।
সর্বশেষ খবর :
চুরি করা গরু জবাই করে মাংস পাচারকালে আটক-২ মৌলভীবাজারে কোটা সংস্কারের নামে দেশব্যাপী নৈরাজ্যের প্রতিবাদে মানববন্ধন ‘কোটা আন্দোলনকারীদের আলোচনার প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী, আজকেই বসতে প্রস্তুত’ মৌলভীবাজারে জেলা জামায়াতের আমীর গ্রেফতার সব অনভিপ্রেত ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্ত হবে: প্রধানমন্ত্রী হঠাৎ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষামন্ত্রী আমার বিশ্বাস উচ্চ আদালতে ন্যায়বিচার পাবে শিক্ষার্থীরা: প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহ্বান পুলিশের যাত্রাবাড়ীতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ, মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের টোল প্লাজায় আগুন

সাম্প্রতিক অর্থনীতিতে বাংলাদেশের শঙ্কা ও সম্ভাবনা

চিরঞ্জিত কর্মকার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে
সাম্প্রতিক অর্থনীতিতে বাংলাদেশের শঙ্কা ও সম্ভাবনা
বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থায় একটি কঠিনতম সময় অতিক্রম করছে বাংলাদেশ। ইতোমধ্যেই অর্থনীতিতে নতুন করে অশনি সংকেত বার্তা দিচ্ছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। তবে কি শঙ্কার মুখে বাংলাদেশের অর্থনীতি?

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সাবেক মহাপরিচালক কেএএস মুরশিদ এর ভাষায়, “বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক পরিস্থিতির ভিকটিম।” 

বিগত দু’বছরে অন্য সব দেশের মত বাংলাদেশের অর্থনীতিও নানাভাবে ক্ষতবিক্ষত হয়েছে। নড়বড়ে হয়ে পড়েছে দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি। বলতে গেলে বাংলাদেশ ইতিহাসের সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনের পরপরই হাজির হয়েছে করোনার মতো মহামারী। সেই ধাক্কা সামলে ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়াতে না দাঁড়াতেই মহামারীর মতোই কোনো পূর্বাভাস না দিয়েই শুরু হয়ে গেলো রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। আবারও নতুন করে অস্থিরতা শুরু হলো বিশ্ব বাণিজ্যে। সেই সাথে বাংলাদেশের অর্থনীতির সাজানো ঘরও যেনো ঝাঁকি দিয়ে জানান দিচ্ছে তার আপন হাল।
নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে চলছে হু হু করে। নিম্নবিত্ত আর মধ্যবিত্তের সংসারে তেল-নুনের হিসাব মেলাতে স্বাভাবিকভাবেই প্রচণ্ড বেগ পেতে হচ্ছে। 
এদিকে মহামারীর ধাক্কা সামলে আমদানি বাড়ায় স্বস্তিই পাচ্ছিলেন অর্থনীতিবিদরা। কিন্তু সার্বিক বিশ্ব পরিস্থিতিতে ডলারের দাম বাড়তে থাকায় এখন এই পণ্য আমদানিই হয়ে উঠেছে মূল মাথাব্যথার কারণ।
দেশে মূল্যস্ফীতির হার পৌঁছেছে দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে। তাই ডলারের দরও হয়ে উঠেছে পাগলা ঘোড়ার সামিল। বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্য ইতিহাসের সর্বোচ্চে ঘাটতিতে পড়েছে। ‘২০২১ সালের মে থেকে ২০২২ সালের মে’-এই এক বছরে ডলারের বিপরীতে ৩ দশমিক ৩৫ শতাংশ মান হারিয়েছে আমাদের দেশীয় মুদ্রা ‘টাকা’।
আবার দেখা যাচ্ছে রপ্তানি ক্ষেত্রে ঊর্ধ্বগামিতা থাকলেও টান পড়ছে রেমিটেন্সে। কিন্তু পণ্য আমদানি করতে গিয়ে ডলার বেরিয়ে যাচ্ছে অনর্গল। তাতে চাপ পড়ছে দেশের রিজার্ভে। 
এই ভয়ঙ্কর ডলার সঙ্কটের দাবানলে পড়ে সম্ভাবনাময় অর্থনীতির দেশ ‘শ্রীলঙ্কা’ও ঋণের খাতায় নাম লিখাতে বাধ্য হয়েছে। শ্রীলঙ্কার পাশাপাশি পাকিস্তানেও সরকারপতন ঘটিয়েছে মূল্যস্ফীতি আর অর্থনীতির এই অনিশ্চয়তা। দ্রব্যমূল্যের এই ঊর্ধ্বগতি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের মতো উন্নত দেশগুলোকেও পুড়িয়ে চলছে অবিরত।
এ বছরের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির প্রায় পুরো এক শতাংশ পয়েন্ট কমিয়ে ৩ দশমিক ২ শতাংশে নামিয়ে এনেছে বিশ্ব ব্যাংক। এ সংস্থার প্রেসিডেন্ট ‘ডেভিড ম্যালপাস’ গত মে মাসের শেষে যুক্তরাষ্ট্রে এক অনুষ্ঠানে বলেন, “কীভাবে মন্দা এড়ানো যায়- সেই পথ খুঁজে পাওয়া আমাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়ছে।”
আর ইকনোমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের প্রধান অর্থনীতিবিদ সায়মন ব্যাপটিস্ট বলছেন, “এ দফায় বিশ্ব মন্দা যদি এড়ানো সম্ভবও হয়, তবুও অন্তত বছরখানেকের জন্য পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থায় এই অস্থিরতা, মূল্যস্ফীতির উচ্চ হার আর প্রবৃদ্ধির ধীর গতির সঙ্গেই চলতে হবে বিশ্বকে।”
বর্তমান এই প্রেক্ষাপটে সবথেকে বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে যে, বাংলাদেশও কি মন্দার এগোবে? নাকি দেশের অর্থনীতিতে যে গতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ছিল, সেই পথে আবার ফিরে যেতে সক্ষম হবে? 
“সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম)” এর নির্বাহী পরিচালক ‘সেলিম রায়হান’ বলেন, “গত দেড় দশকে বাংলাদেশের সামষ্টিক অর্থনীতিতে যে স্থিতিশীলতা ছিল, বিশ্ব অর্থনীতির বর্তমান অস্থিরতা তাকে বড় ধরনের চাপে ফেলে দিয়েছে।” রাশিয়া- ইউক্রেন যুদ্ধই এই চাপ তৈরির প্রধান কারণ বলে মনে করেন তিনি।  এর ফলে খাদ্যপণ্য, জ্বালানি ও কাঁচামালের দাম বেড়ে গেছে।
সেলিম রায়হানের মতে, করোনা মহামারীর সময়কালেও  এতটা চাপ ছিল না, যেটা বাংলাদেশকে এখন এই পরিস্থিতিতে মোকাবেলা করতে হচ্ছে।
✍ জিডিপি প্রবৃদ্ধির হারে অভয়
কোনো বছর মোট উৎপাদন আগের বছরের তুলনায় কতটা বাড়লো, সেই তুলনামূলক হারকে অর্থনীতির ভাষায় বলা হয় জিডিপি প্রবৃদ্ধি। কোনো বছর মোট উৎপাদন না বেড়ে কমে গেলে তাকে বলা হয় অর্থনীতির সংকোচন। তখন জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার নেমে আসে শূন্যের নিচে। অর্থনীতির ওই দশাকেই ‘মন্দা’ বলা হয়।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ রেকর্ড ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছিলো। এরপর এলো মহামারী। ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা কমে হল ৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ।
মহামারীর ধাক্কা সামলে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধির হার বেড়ে দাঁড়ায় ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশে। মহামারীর দুঃসময় কাটিয়ে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি এবার ৭ শতাংশের ঘর অতিক্রম করতে যাচ্ছে বলে কিছুমাস আগে ধারণা দিয়েছে “বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)”।
অর্থাৎ, অর্থনীতির ভাষায় বাংলাদেশের মন্দায় পড়ার ঝুঁকি অন্তত পরিসংখ্যান ব্যুরোর গণনায় দেখা যাচ্ছে না।
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানিয়েছেন, চলতি অর্থবছরের মার্চ পর্যন্ত নয় মাসের হিসাব ধরে প্রবৃদ্ধির এই অনুমান করেছে বিবিএস। তাতে দেখা গেছে, ২০২১-২২ অর্থবছরে সাময়িক হিসাবে স্থির মূল্যে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির হতে পারে।
তাতে কিছুটা সংশয় আছে বিআইডিএসের মহাপরিচালক বিনায়ক সেনের। তিনি বলেন, “প্রবৃদ্ধির যে প্রাক্কলন করা হয়েছে, তা অর্জন করা সম্ভব নাও হতে পারে।”
কিছুদিন আগে বিশ্ব ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মহামারী থেকে বাংলাদেশের অর্থনীতি ভালোভাবেই পুনরুদ্ধারের পথে ছিল। কিন্তু ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে তৈরি হওয়া অনিশ্চয়তার মধ্যে এবং বিশ্বব্যাপী পণ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির গতিও ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।
✍️ মূল্যস্ফীতির ভয়ঙ্কর থাবা
এই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের জের ধরে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশেই দ্রব্যমূল্য বাড়ছে লাগামহীন গতিতে। ক্রমশ বাড়তে থাকা মূল্যস্ফীতির ভয়ঙ্কর থাবার মুখে গোটা বিশ্বের অর্থনীতি।
অর্থনীতির এই গুরুত্বপূর্ণ সূচক (মূল্যস্ফীতি) বাংলাদেশের জন্যও হয়ে উঠেছে ভয়াবহ চিন্তার কারণ। আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় বাজারে পণ্যের ঊর্ধ্বমুখী পরিস্থিতিতে এই এপ্রিলে মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৬ দশমিক ২৯ শতাংশ হারে, যা ১৮ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।
দেশের বাজারে সবচেয়ে জরুরি খাদ্যদ্রব্য চালের দাম এক মাসের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে প্রায় ১০ টাকা পর্যন্ত। অস্থিরতা বেড়ে চলছে অন্যান্য পণ্যের দামেও।
২০২১-২২ অর্থবছরে গড় মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৩০ শতাংশের মধ্যে বেঁধে রাখার লক্ষ্য ধরেছিল সরকার। পরে তা সংশোধন করে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ করা হয়। তবে ধারণা করা যাচ্ছে, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের হিসাবে বছর শেষে এই হার ৬ শতাংশের উপরেই থাকবে।
সেলিম রায়হান আরও বলেন, “মূল্যস্ফীতির ওপর বেশ বড় ধরনের চাপ আছে। এর মধ্যে একটা রয়েছে আমদানি নির্ভর মূল্যস্ফীতি। বাজারে ডলারের সরবরাহ কমিয়ে-বাড়িয়ে টাকার মানের বিষয়ে গত এক দশকে যে একটা স্বস্তির জায়গা ছিল, সেখানেও একটা বড় ধরনের চাপ সৃষ্টি হয়েছে।”
✍️ রেমিট্যান্স রেকর্ড
রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোর প্রবাসী আয়ে প্রবৃদ্ধি আগের বছরের তুলনায় প্রায় অর্ধেকে নেমে আসতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছিলো বিশ্ব ব্যাংক।
তবে আদতে তা হয়নি। দেখা যায়, চলতি (২০২২-২৩) অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে রেকর্ড প্রবাসী আয় এসেছে দেশে। মাস শেষে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ২ দশমিক শূন্য ৯ বিলিয়ন বা ২০৯ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন বাংলাদেশি প্রবাসীরা। দেশীয় মুদ্রায় যা (এক ডলার সমান ৯৪ দশমিক ৭০ টাকা ধরে) ১৯ হাজার ৭৯২ কোটি ৩০ লাখ টাকা, যা আগের অর্থবছরের (২০২১-২২) একই মাসের চেয়ে প্রায় ১১ শতাংশ বেড়েছে। গত অর্থবছরের একই মাসে এসেছিল ১৮৭ কোটি ডলার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন সূত্রে এ তথ্য উঠে এসেছে।
বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের দ্বিতীয় প্রধান উৎস এই রেমিট্যান্স। দেশে জিডিপির প্রায় ১২ শতাংশ আসে প্রবাসে থাকা কর্মীদের পাঠানো অর্থ থেকে। তাই এ বিষয়ে সর্বদা তৎপর থাকতে হবে বলেই বিশেষজ্ঞদের মতামত।
তবে প্রবাসীরা যেসব দেশে আছেন, সেখানে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে গেলে দেশে পরিবারের কাছে বেশি টাকা পাঠানোর সুযোগ তাদেরও থাকবে না। ফলে বোঝাই যাচ্ছে, বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্যও সেটা ভালো খবর বয়ে আনবে না।
✍️ বাণিজ্য ঘাটতির রেকর্ড
কয়েক মাস থেকে বাড়তে থাকা বাণিজ্য ঘাটতি আগের রেকর্ডকে পেছনে ফেলে গত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে ৩৩ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে; আর দেশের বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যেও ইতিহাস সর্বোচ্চ সাড়ে ১৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি ঘাটতি হয়েছে।
গত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে দেশের ইতিহাসের সর্বোচ্চ বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়ায় ৩৩ দশমিক ২৪ বিলিয়ন ডলার। এর আগের ২০২০-২১ অর্থবছরে যা ছিল ২৩ দশমিক ৭৭ বিলিয়ন ডলার।
এ হিসাবে ঘাটতি ৯ দশমিক ৪৯ বিলিয়ন ডলার বা শতকরা হিসাবে ৩৯ দশমিক ৮৪ শতাংশ বেড়েছে। আর গত অর্থবছর শেষে বাংলাদেশ রপ্তানি থেকে আয় করে ৪৯ দশমিক ২৪ বিলিয়ন ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৩৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ।
✍️ টান পড়েছে রিজার্ভেও
ডলারের মূল্য বাড়ায় রিজার্ভ সহনীয় পর্যায়ে রাখতে হিমশিম খাচ্ছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্মকর্তারা। গত কিছু মাসে কয়েক দফায় টাকার বিপরীতে ডলারের মান বাড়ানোর পর সমালোচনার মুখোমুখি পড়তে হয়। শেষমেশ ডলারের দর বাজারের ওপর ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
একইসঙ্গে দেশের ডলারের মজুদ বাজারে বেশকিছু আমদানি পণ্যের চাহিদা কমাতে নিয়ন্ত্রণমূলক করারোপ করা হয়েছে। রেমিট্যান্স সহায়তা বাড়াতে প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে।
গত ২৫ মে পর্যন্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৪২ দশমিক ২৯ বিলিয়ন ডলার, যা দিয়ে বর্তমান আমদানির ধারা অনুযায়ী ৬ মাসের ব্যয় মেটানো সম্ভব। অথচ গতবছর অগাস্টে রিজার্ভ রেকর্ড ৪৮ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছিল।
সেলিম রায়হান বলেন, “আমদানির বড় ধরনের একটা উল্লম্ফনের ফলে সামগ্রিকভাবে দেশের বাজারে ডলারের চাহিদা অনেক বেড়েছে। এই চাপটা সামলানোর জন্য বাংলাদেশে ব্যাংক যেভাবে ডলারের সাপ্লাই দিয়ে গেছে সেটার একটা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে; ফরেন রিজার্ভ কমে যাচ্ছে।”
✍️ কি অবস্থা অন্য সূচকগুলোর?
ডলারের মূল্যবৃদ্ধি, রিজার্ভ কমে আসা, মূল্যস্ফীতি, বাণিজ্যিক ভারসাম্যের ঘাটতি বেড়ে যাওয়া ছাড়া অর্থনীতির অন্য সূচকগুলোর অবস্থা ইতিবাচক বলে মনে করছেন অর্থনীতির বিশ্লেষকগণ।
গত অর্থবছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত রাজস্ব আদায় হয়েছে ২ লাখ ২৭ হাজার ৭৫৬ কোটি টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার ৬৯ শতাংশ। আগের বছর একই সময়ের তুলনায় প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ দশমিক ২৭ শতাংশ বেশি।
তবে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলওর) হিসাবে, ২০২২ সালে ৩৬ লাখ মানুষ বেকার রয়ে গেছে, যা আগের বছরের থেকে ৫ লাখ বেশি।
ডিসেম্বর পর্যন্ত বিদেশি বিনিয়োগের স্থিতি ২১ দশমিক ৫৮ বিলিয়ন ডলার, যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ বেশি। আগের বছরে এই সময় বিদেশি বিনিয়োগের স্থিতি ছিলো ১৯ দশমিক ৩৯ বিলিয়ন ডলার।
✍️ পরিস্থিতি কতটা উদ্বেগের?
সার্বিকভাবে অর্থনীতির ওপর কিছুটা চাপ থাকলেও এখনও চিন্তিত হওয়ার মত কিছু দেখছেন না বিআইডিএসের সাবেক গবেষণা পরিচালক ডঃ জায়েদ বখ্ত।
তিনি বলেন, “করোনার দুই বছরের একটা প্রভাব গেছে। এখন যুদ্ধ চলছে। জিনিসপত্র পাওয়া যাচ্ছে না, দাম বেশি। কিছু সমস্যাতো আছেই।”
মহামারীর ধাক্কার পর অর্থনীতি পুনরুদ্ধার এবং বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহ বৃদ্ধির কথা তুলে ধরে জায়েদ বখ্ত বলেন, “আমাদের অর্থনীতি যে গতিতে রিকাভারি হচ্ছে, ক্রেডিট গ্রোথ অব প্রাইভেট সেক্টর ১২ শতাংশের মত হয়ে গেছে। এত আমদানি হচ্ছে। কেন হচ্ছে এসব?
ব্যবসায়ীদের কি মাথা খারাপ হয়ে গেছে? তাদেরও হিসাব-নিকাশ আছে। তারাতো দেখতে পাচ্ছে যে, সামনের দিকে ভালো সময় আসবে। ভালো করতে পারবে। সেজন্য তারা বিনিয়োগ করছে, সম্প্রসারণ করছে। ব্যাংক থেকে ঋণ দিচ্ছে। ব্যাংকে বরং এখন কিছুটা তারল্য স্বল্পতা দেখা যাচ্ছে।”
সঠিকভাবে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার করতে পারলে বাংলাদেশের পরিস্থিতি ‘ভালোর দিকেই যাবে’ বলে এই অর্থনীতিবিদের বিশ্বাস। 
এদিকে বিশ্ব ব্যাংকের বাংলাদেশ অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ডঃ জাহিদ হোসেনকেও তেমন উদ্বিগ্ন দেখাচ্ছে না। তবে তিনি মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ এবং এর অভিঘাত থেকে প্রান্তিক মানুষকে রক্ষার জন্য খাদ্য ও বিদ্যুৎ খাতে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন।
সেইসঙ্গে আমদানিনির্ভর নিত্যপণ্যে সরকারি নীতি-সহায়তা দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “সরকার বিচক্ষণতার সঙ্গে এসব কৌশল বাস্তবায়ন করতে পারলে মূল্যস্ফীতি মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হবে।”
চিরঞ্জিত কর্মকার
একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেম
ই এম বি এ, ব্যাচ-৩১
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2024 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com