শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১১:৫৩ পূর্বাহ্ন

হাওরাঞ্চলের বজ্রপাতে প্রাণহানি কমাতে ইএসইএটি যন্ত্র স্থাপন

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৮ মে, ২০২২
হাওরাঞ্চলের বজ্রপাতে প্রাণহানি কমাতে ইএসইএটি যন্ত্র স্থাপন

হাওরাঞ্চলের বজ্রপাতপ্রবণ কিশোরগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নেত্রকোনা সহ ১৫ জেলায় বজ্রপাতের হটস্পট ও বজ্রপাতে প্রাণহানি কমাতে স্থাপন করা হচ্ছে বজ্রপাত নিয়ন্ত্রক যন্ত্র । যন্ত্রটির প্রকৃত নাম আর্লি স্ট্রিমার ইমিশন এয়ার টার্মিনাল বা ইএসইএটি।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের একটি সূত্র জানায়, কিশোরগঞ্জ জেলার আটটি উপজেলায় একটি করে ইএসইএটি যন্ত্র বসানোর কাজ চলছে। সুনামগঞ্জে তিনটি উপজেলায় মোট তিনটি, হবিগঞ্জে দুটি, নেত্রকোনায় একটি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে একটি ইএসইএটি বসানো হয়েছে। এ ছাড়া বজ্রপাতের হটস্পট বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ ও টাঙ্গাইলে ইএসইএটি স্থাপন করা হচ্ছে। ঢাকার সাভারেও একটি যন্ত্র বসানো হয়েছে।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আতিকুল হক জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবহাওয়া বিজ্ঞান বিভাগের গবেষকদের পরামর্শে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই বছর আগে পরীক্ষামূলকভাবে বজ্রনিরোধক ইএসইএটি যন্ত্র বসানো হয়। সেই প্রকল্প ফলপ্রসূ হওয়ায় গবেষকরা বজ্রপাতপ্রবণ এলাকাগুলোতে এই যন্ত্র স্থাপনের পরামর্শ দেন। পরে ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় হাওরসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলে স্থানীয় পর্যায়ে প্রকল্প গ্রহণের জন্য মৌখিক নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মহাপরিচালক জানান, বিশ্বব্যাংক ও ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বজ্রপাত নিরোধের ক্ষেত্রে ইএসইএটি প্রযুক্তিটি অনুমোদন দিয়েছে। এর পরই প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতি কমাতে হাওরাঞ্চলসহ দেশের হটস্পটগুলোতে এ যন্ত্র স্থাপনের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়। তবে এখনই এসংক্রান্ত বড় কোনো প্রকল্প হাতে নেওয়া হচ্ছে না। সে কারণে চলমান প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য বিশেষ করে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের জন্য বরাদ্দ টেস্ট রিলিফের (টিআর) টাকা থেকে ব্যয় নির্বাহের জন্য বলা হয়েছে।

এ প্রকল্পে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিচ্ছে আইকনিক ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড। কম্পানির হেড অব অপারেশন রাকিবুজ্জামান তানিম জানান, এ প্রযুক্তির সঙ্গে আইওপি মডিউল সংযুক্ত করে দেওয়া সম্ভব। তাতে দূর থেকে ইএসইএটি যন্ত্র নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

কিশোরগঞ্জ জেলার ১৩ উপজেলার মধ্যে আটটিতে প্রাথমিক পর্যায়ে একটি করে যন্ত্র বসানোর কাজ শুরু হয়েছে। প্রতিটি যন্ত্র স্থাপনের জন্য বরাদ্দ হয়েছে সাড়ে সাত লাখ টাকা। সরেজমিন দেখা যায়, নিকলী উপজেলা শহীদ স্বরণিকা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভবনের ছাদে চার ও তিন ইঞ্চি ব্যাসের ২০ ফুট লম্বা ইস্পাতের পাইপের ওপর মূল বজ্র নিরোধক যন্ত্রটি স্থাপন করা হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ২০২১ সালে সারা দেশে বজ্রপাতে মোট ৩৫৯ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। প্রাণহানির বেশির ভাগই বৃহত্তর হাওরাঞ্চলে।

কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের এমপি মো. আফজাল হোসেন বলেন, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা পেয়ে টিআর প্রকল্পের টাকা থেকে আমরা এ যন্ত্র স্থাপনের জন্য বরাদ্দ দিয়েছি।

নিকলী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. রেজাউল হক জানান, প্রতিটি যন্ত্র কেন্দ্র থেকে চারদিকে প্রায় ৩০০ ফিট এলাকায় নিরাপত্তা দেবে। নিকলী বজ্রপাতপ্রবণ নিকলী সদর ইউনিয়নয়নের চারটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এসব যন্ত্রের মাধ্যমে সরাসরি উপকৃত হবেন। এটি একটি পাইলট প্রকল্প , পরবর্তিতে পর্যায়ক্রমে সব এলাকায় ইএসইএটি যন্ত্র স্থাপন করা হবে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: