রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৯:১৭ অপরাহ্ন

১৯৪৭ সাল থেকে ‘৭০ সাল পর্যন্ত সাহিত্যকর্ম আন্দোলন নিপীড়ন সংগ্রাম সংহারের ইতিবৃত্ত

ওয়ান নিউজ 24 বিডি ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৮
  • ১১৪৩ বার পড়া হয়েছে

রুহুল আমিন বাচ্চু
১৯৪৭ সালে ব্রিটিশ শাসনের সমাপ্তি ঘটে পৌনে দু’শ বছর ভারত শাসনের পর। নবাবি আমলের পর ইংরেজ এ দেশে ব্যবসা করতে এসে অর্থ্যাৎ বণিকের মানদন্ড রূপান্তরিত হলো ব্রিটিশ রানী ভিক্টোরিয়ার রাজদ-ে। এ দেশের মানুষের ধর্মীয় ও অর্থনৈতিক বিভেদের কারণে ইংরেজরা ‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল’-এর যাঁতাকলে নিষ্পেষণ করতে থাকেি স্থানীয়দের। ভারতবর্ষে দু‘টি মূল ধর্মীয়গোষ্ঠী হিন্দু, মুসলমান ঐক্য বার বার ভঙ্গ হয়েছে ইংরেজ ও এ দেশীয় সুবিধাবাদী কিছু দালাল শ্রেণীর কারণে। ইংরেজরা দেশ শাসন ও শোষণের মাধ্যমে এ দেশের সম্পদ পাচার করে নেয় তাদের দেশে। পৌনে দু‘শ বছর শাসনের জের হিসেবে মানুষ হয়ে যায় মানসিকভাবে পঙ্গু। চারিত্রিক ও মানসিক দৃঢ়তা এবং প্রতিরোধের ক্ষমতা হারিয়ে মানুষ হয়ে পড়ে আদেশের গোলাম।

১৯৩৯-৪৫ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সারা পৃথিবী জুড়ে ভাঙ্গা গড়ার ব্যাপক আয়োজন চলে। ব্রিটিশ রাজতন্ত্রের অবসান ঘটতে থাকে এক গোলার্ধ হতে অন্য গোলার্ধ। ভারতবর্ষ স্বাধীনতার ঘোষণা দেয় ব্রিটিশ সরকার। ব্রিটিশ দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতেই ভারববর্ষ বিভাজনের নীলনকশা বাস্তবায়ন করে এদেশের ক্ষমতালোভী কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তির কল্যাণে। ইংরেজ বিদায় নিল। তারা তাদের পরিকল্পনা মতো রেখে
গেল সাম্প্রদায়িকতার বিষাক্ত বীজ। তাদের ইচ্ছা অনুসারে রোডম্যাপ বাস্তবায়ন হলো। বাংলা দুইভাগ হলো। পশ্চিম বাংলা ভারতের অংশ, পশ্চিম বাংলার জীবন হলো কলকাতাকেন্দ্রিক, আর পূর্ববাংলার জীবন হলো ঢাকাকেন্দ্রিক। দেশ ভাগ হলো কিন্তু ভাষা ও সংস্কৃতির বিভাজন থাকলেও রয়ে গেল এক। মুসলমানদের স্বতন্ত্র বাসভূমি রচিত হলো পাকিস্তান নামে। হাজার মাইলের দূরত্বে ভাষা সংস্কৃতির ভিন্নতায়। পশ্চিম পাকিস্তানে হলে পাকিস্তানের রাজধানী রাওয়ালপিন্ডি। ভারত রয়ে গেল দিল্লি শাসনাধীনে। পাকিস্তানের প্রথম কর্ণধার হয়ে মসনদে বসলেন দ্বিজাতিতত্ত্বের এক নায়ক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। উর্দুভাষী মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ-এর অভিধানে বাংলাভাষার স্থান ছিল না। বাংলা তথা পূর্ববাংলার সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের মায়ের ভাষার কোনো মর্যাদাই ছিল না। দ্বিজাতিতত্ত্বের রূপকারদের কাছে।
সংখ্যালঘু পশ্চিম পাকিস্তানিরা পূর্ববাংলা তথা পূর্ব পাকিস্তানকে তাবেদার বানানোর ইংরেজ পরিকল্পনা গ্রহণ করল। প্রাথমিক প্রাপ্তি ও ধর্মীয় উন্মাদনায় পূর্ববাংলার মানুষ সেদিন সরল বিশ্বাসে পাকিস্তানকে স্বাগত জানাল। ভাবল পশ্চিম পাকিস্তানিরা আপনজন এবং স্বধর্মীয় ভাই।

পূর্ববাংলার মানুষের আশা ভঙ্গ হতে সময় খুব বেশি লাগেনি। তথাকথিত জাতির পিতা শাসনদ- হাতে নেয়ার এক বছরের মাথায় ঘোষণা করলেন উর্দূই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা। একই বক্তব্য শোনা গেল নাজিম উদ্দিনের কন্ঠেও। বাংলার মানুষ বিস্মিত হলো এবং প্রচ- বিক্ষোভে ফেটে পড়লো বাংলার ছাত্র-জনতা। একই সময়ে আত্মজিজ্ঞাসায় উন্মুখ হলো বাংলার মানুষ সংখ্যালঘুরা ভাষা চাপিয়ে দিতে চায় সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের ওপর। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে জবাব পায় পাক সরকার। ১৯৬২ সালে ছাত্র আন্দোলন ১৯৬৬ সালে ৬ দফা আন্দোলন এ সমস্ত পর্যায়ক্রমে জনগণের দাবি হয়ে উৎক্ষিপ্ত হতে থাকে পশ্চিমা শাসকের বিরুদ্ধে। দেশের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থান যত সহজে একটি সূচকে পরিবর্তনশীল শিল্পে-সাহিত্যে তত দ্রুত এর প্রতিফলন ঘটে না। তবু নিরন্তর সংবেদনশীল কোনো ঘটনা তাৎক্ষণিকভাবে সাহিত্যের আধার না হলেও কালে তার প্রভাব পড়তে বাধ্য। এ স্বতঃসিদ্ধ নিয়মের কারণে সাহিত্যের গতি-প্রকৃতি নির্ণয়ে আর্থ-সামাজিক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট অপরিহার্য। ১৯৪৭ সাল হতে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত পূর্ববঙ্গে যে সাহিত্য বিস্তৃত সত্তা লাভ করেছে তা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। বিগত বছরগুলোর ঘাত-প্রতিঘাত, আনন্দ-বেদনা, আন্দোলন-নিপীড়ন, সংগ্রাম ও সংহারের ইতিবৃত্ত এর উপরে প্রভাব ফেলেছে।
মূলত ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের পরপরই এ দেশের সাহিত্যে প্রেম পেলবতার স্থানে একটা বৈপ্লবিক চেতনার প্রকাশ লক্ষ করা যায়। সমসাময়িক ঘটনা, ঘাত-প্রতিঘাত সংগ্রাম এসব বিষয়াবলি নিয়ে নতুন জাগরণ সৃষ্টি হয় বাংলা সাহিত্যে।
বাংলাদেশের কবিতার দ্বিতীয় ধারা রূপ লাভ করে ভাষা আন্দোলন ও শহীদদের নিয়ে। বাংলা বর্ণমালার উপর অপশক্তির হস্তক্ষেপের ফলে প্রতিবাদী হয়ে ওঠেন কবিরা। তাদের মধ্যে শামসুর রাহমান, আলাউদ্দিন আল আজাদ, হাসান হাফিজুর রহমান, শওকত ওসমান, জহির রায়হান, সেলিনা হোসেন, মুনীর চৌধুরী অন্যতম। হাসান হাফিজুর রহমান ‘অমর একুশে’ কবিতায় লিখেছেনÑ ‘আম্মা তার নামটি ধরে একবারও ডাকবে না তবে আর?/ঘূর্ণিঝড়ের মতো সেই নাম উন্মোথিত মনের প্রান্তরে।/ ঘুরে ঘুরে জাগবে, ডাকবে/দুটি ঠোঁটের ভেতর থেকে মুক্তোর মতো গড়িয়ে এস/একবারও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে না, সারাটি জীবনেও না/তবে আর?
আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ’র ‘কোন এক মাকে,
‘ “কুমড়ো ফুলে ফুলে/নুয়ে পড়েছে লতাটা/সজনে ডাঁটায়/ভরে গেছে গাছটা/আর আমি/ডালের বড়ি শুকিয়ে রেখেছি/খোকা/তুই কবে আসবি?/কবে ছুটি?” /চিঠিটা তার পকেটে ছিল/ছেঁড়া আর রক্তে ভেজা।’
কবিতা দুটি ভাষা আন্দোলনে, শহীদ সন্তানদের উদ্দেশে মায়ের আকুতি। সে সাথে বাংলাভাষার জন্য ব্যথিত মায়ের চিত্রকল্পে গভীরতা ফুঁটে উঠেছে।
ভাষার জন্য বাঙালির আত্মোৎসর্গের চেতনার বাণী উৎক্ষিপ্ত হয়েছে। যেমন ১৯৫২ সালে ২১ ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদদের স্মরণে তৈরি করা হয় প্রথম শহীদ মিনার ২২ ফেব্রুয়ারি রাতে এটি তৈরি করা হলে শাসকশক্তি ২৩ ফেব্রুয়ারি তা ভেঙে দিল।

কবি আলাদ্দিন আল-আজাদ লিখছেন- ‘স্মৃতির মিনার ভেঙেছে তোমার? ভয় কি বন্ধু/আমরা এখনো/চার কোটি পরিবার/খাড়া রয়েছি তো। যে ভিত কখনো কোন রাজন্য/পারেনি ভাঙতে।’
কবি আল মাহমুদ ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২কে স্মরণ করে লিখলেন-
ফেব্রুয়ারি একুশ তারিখ/দুপুর বেলার অক্ত/বৃষ্টি নামে, বৃষ্টি কোথায়?/ বরকতের রক্ত।
সালাম, বরকত, জব্বার আরো অনেক শহীদের নামে এমনি কাব্য গাঁথা হয় চেতনায় অবয়বে।
শহীদ মিনার, বাংলাভাষা, মা, বর্ণমালা, একুশে ফেব্রুয়ারি এসব শব্দগুলো ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষিতে বাংলা কবিতায় প্রতীক হয়ে উঠেছে।
আবদুল গাফফার চৌধুরী লিখছেণ-
‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/আমি কি ভুলিতে পারি?’
গানটিতে সুর দিয়েছেন শহীদ আলতাফ মাহমুদ। এ গানটি বাংলা সংগীত ও সাহিত্যের প্রবাদতুল্য হয়ে উঠেছে।
বাংলার মানুষের স্বাধিকারের আন্দোলনের বীজ মূলত রচিত হয় বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলনের পরপরই। এ দেশের মানুষের চূড়ান্ত ফয়সালা পশ্চিমাদের সাথে আর নয়। ধর্মীয় রাখিবন্ধনের প্রলোভন মিথ্যা। ব্রিটিশ সংস্করণে তারাও এ দেশকে কলোনি বানাতে চায়। এদেশের সম্পদ লুটে নিয়ে তারা সৌধের পর সৌধ বানাতে চায় রাওয়ালপিন্ডি আর করাচিতে। এরই ফলশ্রুতিতে শুরু হয় ঊনসত্তরের গণআন্দোলন। জনগণ রাস্তায় আর কবি-লেখকরা তাদের শাণিত লেখায় উদ্দীপ্ত করে তোলে সংগ্রামী জনতাকে। কবি শামসুর রাহমান লিখলেন ‘আসাদের শার্ট’।
‘গুচ্ছ গুচ্ছ রক্তকবরীর মতো কিংবা সূর্যাস্তের/জ্বলন্ত মেঘের মতো/আসাদের শার্ট উড়ছে হাওয়ায়, নীলিমায়।’
১৯৪৭ পূর্ববর্তী দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, পাকিস্তানের আন্দোলন, পরবর্তীতে ভাষা আন্দোলন এসব বিষয়বলি নিয়ে গদাসাহিত্য রচিত হয়েছে। তার মধ্যে কিছু ছিল গল্প আর কিছু তথ্যপূর্ণ গবেষণাগ্রন্থ। ওই সমস্ত ঘটনা খচিত উপন্যাস ও গবেষণার মধ্যে গবেষণা-গ্রন্থগুলো অনেক বেশি আকর্ষণীয়। উপন্যাসের চেয়েও শিহরন জাগানো।
পঞ্চাশের শুরুতে পাকিস্তান শুরুর কালে বাঙালি মুসলমান ছিল অনাধুনিক, শিল্পহীন। পৃথিবীর সাহিত্য তথা বিশ্বসাহিত্যে জীবন ও শিল্প ছড়িয়ে পড়েছিল আধুনিক ভঙ্গিমায় ও ভাবনায়। কিন্তু পাকিস্তানি সাহিত্য ছিল মধ্যযুগ পরিক্রমায়। আবু রুশদের নোঙরের নায়ক পশ্চিম পাকিস্তানের নোঙর ফেলতে এসে দেখেছিলেন, সাহিত্য ঝাঁঝরা হয়ে হয়ে গেছে, সংগীতের স্তব্ধ, চিত্রকলা ক্লান্ত। বায়ন্নোর আগে, দু‘একটি ক্ষীণল ব্যতিক্রম বাদে, মধ্যযুগীয় পাকিস্তানে আধুনিক চেতনায় কোনো বিকাশ ঘটেনি। আর শিল্প সাহিত্য চিত্রকলা ওই রাষ্ট্রের চিত্তে ঢোকেনি। পাকিস্তানের তথাকথিত জনককে নিয়েই ছিল কাব্যসৃষ্টি।
বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলনের পরপরই নতুন চেতনাধারা প্রবাহিত হলো বাংলা সাহিত্যে। পরবর্তীতে আবুল ফজল, আবু জাফর শামসুদ্দীন, সরদার জয়েন উদ্দিন, জহির রায়হান, আলাউদ্দিন আল আজাদ এবং সৈয়দ শামসুল হক প্রমুখ নবীনদের সাথে যুক্ত হন প্রবীণ সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ ও শওকত ওসমান।

পঞ্চাশের দশকের আগেই তিনটি গুরুত্বপূর্ণ উপন্যাস রচিত হয়েছিল: শওকত ওসমানের ‘জননী’, সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহর ‘লালসালু’ এবং আবু ইসহাকের ‘সূর্যদীঘল বাড়ি’।
ষাটের দশকের উপন্যাস কিছুটা গভীর ও অনেকটা ব্যাপক হয়ে ওঠে। ভাষা আন্দোলনের তরুণরা এরই মধ্যে বয়স্ক হয়েছেন। আর পাকিস্তান আন্দোলনের তরুণরা হয়েছেন প্রৌঢ়। তাদের অভিজ্ঞতা ও আধুনিক চেতনার নানা বিকাশ ধরে রাখার চেষ্টা করা হয় উপন্যাসে। এ সময়ে উজ্জ্বল ছিলেন আনোয়ার পাশা, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল গাফফার চৌধুরী, আবু জাফর শামসুদ্দীন, আবু রুশদ, আলাউদ্দিন আল আজাদ, খোন্দকার মোহাম্মদ ইলিয়াস, জহির রায়হান, রশীদ করিম, শওকত ওসমান, সরদার জয়েন উদ্দিন, শহীদুল্লাহ কায়সার, সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ- সহ আরো অনেকে।
ষাটের দশকের কয়েকটি উপন্যাসের পটভূমি বেশ বিস্তৃত। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, পাকিস্তান আন্দোলন এসব বিষয়গুলো স্থান পেয়েছে এসব উপন্যাসে। আলাউদ্দিন আল আজাদের ‘ক্ষুধা ও আশা’ (১৯৬৮), শহীদুল্লাহ কায়সারের ‘সংশপ্তক’ (১৯৬৫), সরদার জয়েন উদ্দীনের ‘অনেক সূর্যের আশা’ (১৯৬৬), আবু রুশদের ‘নোঙর’ (১৯৬৭), আবু জাফর শামসুদ্দীনের ‘পদ্মা মেঘনা যমুনা’ (১৯৭৪) সালে প্রকাশিত হলেও সাড়ে পনেরোশ পৃষ্ঠার উপন্যাসটি ব্রিটিশ শাসন থেকে পাকিস্তান সৃষ্টি ও পরবর্তী ঘটনা প্রবাহ অনেক ক্ষেত্রে দালিলিক বর্ণনা স্থান পেয়েছে।

‘৪৭ পরবর্তী পাকিস্তানিদের ক্রমাগত শোষণ, দমননীতি, স্বার্থপরতা ও রাজনৈতিক অদূরদর্শিতা পূর্ব পাকিস্তানকে একে একে সংগ্রামী আন্দোলনের দিকে অনিবার্যভাবে ঠেলে দেয়। তবে পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে এদেশীয়দের সংগ্রাম ছিল মূলত শহরকেন্দ্রিক। তখন বাংলাদেশের শহর ও গ্রামের তফাৎ ছিল অনেক বেশি। গ্রামের চেয়ে শহরের মানুষ ছিল অধিকতর রাজনৈতিকভাবে সচেতন। আধুনিক শিল্প-সাহিত্য চর্চা ছিল শহরকেন্দ্রিক।
তারপরও অধিকাংশ লেখকের শেকড় গ্রামে থাকায় বাংলাদেশের ছোটগল্পের কাহিনী বিন্যাসিত হয় মূলত গ্রামকেন্দ্রিক ধারায়। গ্রামের জীবনকে উপজীব্য করে ছোট গল্পে গ্রামীণ সমাজের উপস্থাপনায় একটা বিবর্তন চলে আসে।
১৯৫০ সালে আলাউদ্দিন আল আজাদের ‘জেগে আছি’ গল্প গ্রন্থের কাহিনী গ্রামীণ পটভূমিতে রচিত। গ্রামবাংলার অশিক্ষিত সহজ-সরল মানুষেরা ধর্মের নামে নির্যাতিত তথাকথিত ধর্ম ব্যবসায়ীদের দ্বারা। আলাউদ্দিন আল-আজাদের ‘ধানকন্যা’ গল্পগ্রন্থের ‘সুরমা’ গল্পটি তৎকালীন নির্যাতিত সমাজের প্রতিচ্ছবি। তেমনি পটভূমিতে শওকত ওসমানের ‘নতুন জন্ম’, ‘মা জেজা’, ‘খোয়াব’, সৈয়দ মোহাম্মদ হাসানের ‘কিনারা’, মঈদ উর রহমানের ‘কনে দেখা’, আলাউদ্দিন আল আজাদের ‘অন্ধকার সিঁড়ি’ গল্পগ্রন্থের ‘বৃষ্টি’ (১৯৫৮), এছাড়াও সরদার জয়েন উদ্দিনের ‘নয়নঢুলী’ (১৯৫৯) গ্রন্থের ‘কাজী মাস্টার’ গল্পে গ্রামীণ দলাদলি ও ভিলেজ পলিটিক্সের চিত্র উঠে এসেছে।
‘৪৭ উত্তর পূর্ববঙ্গে প্রবন্ধ ও সমালোচনা সাহিত্য শুরুতে তেমন উর্বর ছিল না। ষাটের দশকে শওকত ওসমান, হাসান হাফিজুর রহমান, আনিস চৌধুরী, মুনির চৌধুরী তাদের মেধা যোগ করেছেন এ অধ্যায়ে।
২১ ফেব্রুয়ারি রক্তের অক্ষরে উদ্ভাসিত হলো ভাষাভিত্তিক জাতীয় চেতনার নাম। পূর্ববাংলার সাহিত্যের ধমনীতে প্রবাহিত বাংলা জাগ্রত বাংলার নব ¯্রােতধারা। আত্ম-জাগৃতির মাহেন্দ্রক্ষণে পূর্ববাংলার সাহিত্যের আকাশে অসাম্প্রদায়িকতা উদিত হলো নবরূপে। কৃষি নির্ভর পূর্ববাংলা অনাবৃষ্টি, বন্যা , রোদে, সরকারি শোষণে অবহেলায় দিন দিন ধ্বংসের মুখে এগিয়ে গেছে। তার অপরিসীম ব্যথার প্রকাশ ঘটলো সাহিত্যে।
বাঙালি জীবনে শ্রেষ্ঠ অধ্যায় সূচিত হলো মুক্তিযুদ্ধ জয়ের মাধ্যমে। সেদিন ছাত্র, সৈনিক, পেশাজীবী, মজুর এবং কৃষকের চেতনা এক হয়ে পাক হানাদারের স্বর্ণসিন্দুক ভেঙে দিল আত্মবলিদানের মাধ্যমে। দেশ হলো এদেশীয়দের। হাজার বছরের অপেক্ষা শেষে জাতি ছিনিয়ে আনল বাংলাদেশ।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: