বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৮:৫৭ পূর্বাহ্ন

৩০ কোটি টাকায় নির্মিত জামে মসজিদের উদ্বোধন

ডেস্ক নিউজ
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২ এপ্রিল, ২০২১
৩০ কোটি টাকায় নির্মিত জামে মসজিদের উদ্বোধন

দৃষ্টিনন্দন নির্মাণশৈলী দ্বারা নির্মিত আল-আমান বাহেলা খাতুন জামে মসজিদ। এটি সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর সড়কের বেলকুচি পৌরসদরে অবস্থিত। মসজিদ ভবনটি যে কেউ প্রথম দেখলেই মনের অনুভূতি হবে, এ যেন সৃষ্টির সঙ্গে স্রষ্টার এক অপূর্ব মেলবন্ধন।

শুক্রবার দেশের অন্যতম সেরা এই সৌন্দর্যমণ্ডিত মসজিদটিতে জুমার নামাজের মধ্য দিয়ে উদ্বোধন করা হবে। এ সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল মমিন মণ্ডলসহ প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও দেশবরেণ্য আলেম-ওলামারা উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

মানবিক এক শিল্পপতি মোহাম্মদ আলী সরকার গত বছরের আগস্ট মাসে মারা যান। এর পর তার পরিবারের চেষ্টায় মসজিদের নির্মাণকাজ শেষ হয়।

এ মসজিদের অন্যতম খাদেম আবদুল মান্নান ও মুসল্লি সুজন মাহমুদ জানান, এ মসজিদে ছাই রঙের বিশালাকৃতির মনোরম একটি গম্বুজ রয়েছে। এ ছাড়া মেঝেতে সাদা রঙের টাইলস এবং পিলারগুলো মার্বেল পাথর জড়ানো রয়েছে।

তিনি বলেন, তৃতীয় তলায় গম্বুজের সঙ্গে এবং অন্যান্য স্থানে চীন থেকে আনা বেশ কয়েকটি আলো ঝলমলে ঝাড়বাতি লাগানো হয়েছে। দুই পাশে নির্মাণাধীন ১১ তলা সমতুল্য (১১০ ফিট) উচ্চতার মিনার থেকে আজানের ধ্বনি জমিনে ছড়িয়ে পড়ছে।

তিনি আরও বলেন, মসজিদ চত্বরে পরিকল্পিতভাবে লাগানো হয়েছে সবুজ ঘাস। চার পাশে রঙ-বেরঙের লাইটিংয়ে রাতেরবেলা এক অন্যরকম আবহের সৃষ্টি হয়। সব মিলিয়ে বেশ শান্ত পরিবেশ। এ কারণে সামনের সদা ব্যস্ত সড়কের কোলাহল যেন স্পর্শ করে না মসজিদটিকে।

এ বিষয়ে মসজিদ নির্মাণকালীন দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত (বাহেলা খাতুন হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা) আলমগীর হোসেন জানান, এখানে ইমাম ও মোয়াজ্জিনদের থাকার জন্য মসজিদের পাশে ১০ তলা ভবনে নিজস্ব কোয়ার্টার করা হয়েছে। রয়েছে পাঠাগার ও শৌচাগার। সেই সঙ্গে মসজিদের প্রবেশ পথের দুই সিঁড়ির পাশে কাচে ঘেরা অটো ফিল্টার করা পানি দিয়ে ওজুর ব্যবস্থা আছে।

তিনি জানান, ইতালি ও ইন্ডিয়া থেকে আনা উন্নতমানের মার্বেল পাথরসহ কাঠের কারুকাজে মসজিদের বিভিন্ন স্থানকে আকর্ষণীয় করতে নান্দনিক নকশার কাজ করা হয়েছে। বিশেষ করে মসজিদের সম্মুখের উচ্চ দুটি সিঁড়ি এবং ব্যতিক্রমী প্রবেশ পথ ও প্রধান ফটক যে কারও দৃষ্টি কাড়ে।

তিনি আরও বলেন, এই মসজিদটি নির্মাণের পর এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিসহ সব ধর্মের মানুষ এখানে এসে তাদের দৃষ্টি জুড়িয়ে নেন। এ ছাড়া এখানে একসঙ্গে প্রায় পাঁচ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবেন। শবেবরাতের রাতে জেলার বহু অঞ্চলের মানুষ এখানে ফরজ নামাজ ও নফল ইবাদতসহ মসজিদটি পরিদর্শনে এসেছিলেন।

বেলকুচি উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম সাজেদুল, ইউএনও আনিছুর রহমান ও পৌর মেয়র সাজ্জাদুল হক রেজা জানান, প্রথম দেখাতেই যে কারও দৃষ্টি কাড়ে এ মসজিদটি। দেশি-বিদেশি পর্যটকের কাছে এই মসজিদের নির্মাণশৈলী বেশ আকর্ষণীয়। ব্যস্ত সড়কে যাতায়াতকারী যে কেউ প্রথম দেখাতেই থমকে দাঁড়ান। পৌর সদরে হওয়ায় ইতোমধ্যে মসজিদ কমপ্লেক্স ঘিরে পর্যটকদের আনাগোনা বেড়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পরিবারের এক সদস্য জানান, মানুষ শান্তিতে নামাজ পড়বে তাতেই আমাদের শান্তি। তবে মসজিদ নির্মাণের স্বপ্নদ্রষ্টা মোহাম্মদ আলী সরকার বেঁচে থাকলে এবং তিনি এখানে নামাজ পড়তে পারলে আরও বেশি ভালো লাগতো। এটিই আমাদের অপূর্ণতা রয়ে গেল। সবাই দোয়া করবেন আল্লাহ যেন তাকে জান্নাতবাসী করেন।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: