সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:৩১ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জ শহরজুড়ে অসহনীয় যানজট

মো: আল-আমীন, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ৭ এপ্রিল, ২০২২
কিশোরগঞ্জ শহরজুড়ে অসহনীয় যানজট
ছবিটি আজ বিকেলে শহরের পুরান থানা এলাকা থেকে তোলা।

প্রতিনিয়ত তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে কিশোরগঞ্জ শহরের যানজট। প্রায় প্রতিটি সড়কে দিনভর গাড়ির দীর্ঘ জটলায় অসহনীয় হয়ে উঠেছে জনজীবন। কর্মঘণ্টার বাইরেও ঘণ্টার পর ঘণ্টা সড়কে অপেক্ষায় থাকে শহরবাসী। অন্যদিকে শহর থেকে কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল যাওয়ার রাস্তা প্রসস্ত না থাকায় রোগী নিয়ে এম্বুলেন্সও দাঁড়িয়ে থাকে ঘণ্টার ঘণ্টা। এই দুর্ভোগ যেন শেষ হওয়ার নয়। রোজার মাসে যেন আরও তীব্র হয়ে উঠেছে যানজট।

বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সড়কে তীব্র যানজটের চিত্র দেখা যায়। বিকেলে গৌরাঙ্গ বাজার এলাকায় ব্যাটারি চালিত রিক্সার লম্বা লাইন চোখে পড়ে। এসময় একজন গাড়ি ড্রাইভারকে যানজটের কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, আমরা টাকা দিয়ে পৌরসভা থেকে গাড়ি চালানোর অনুমোদন নিয়েছি। আর রাস্তায় দেখেন আমাদের (হলুদ রং করা) থেকে অন্য ব্যাটারী চালিত গাড়ির সংখ্যা প্রায় ৫ গুণ! একটা শহরে এতো যানবাহন থাকলে, যানজট তো থাকবেই।

মো: মনির হোসেন। এসেছেন সদরের দানাপাটুলী ইউনিয়ন থেকে। যাবেন ডিসি অফিসে। তিনি জানান, শহরের একরামপুর থেকে জজ কোর্টে যেতে তার সময় লেগেছে প্রায় ৪০ মিনিট। যেখানে যানজট না থাকলে ৭/৮ মিনিটে যাওয়া যেত। তিনি আরও জানান, যানজটের কারণে শহরে আসা প্রায় ছেড়েই দিয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকলে আসেন নতুবা আসেন না।

তারাপাশা থেকে প্রতিদিন অফিসে আসা মো: একরাম হোসেন জানান, অন্যান্য দিনের তুলনায় বৃহস্পতিবার সড়কে যানজটের চাপ অনেক বেশি। আজ একটু বেশি সময় ধরেই যানজটের কবলে পড়ে বসে থাকতে হচ্ছে।

মোটর সাইকেল আরোহী প্লাবন জানান, সাধারণত মোটরসাইকেলে যেকোনো জায়গায় যেতে সময় কম লাগে। কিন্তু দিন দিন সড়কে মোটরসাইকেল নিয়েও যানজটে পড়ে থাকতে হচ্ছে।

এ.কে.এম মোহতাসীম আল নূরুল্লাহ শহরের একটি আইটি ফার্মে জব করেন। তাকে প্রতিদিনই গাইটাল থেকে গৌরাঙ্গ বাজার আসতে হয় মিনিমাম ২ বার। ভোক্তভোগী নূরুল্লাহ আমাদের বলেন, মূল সমস্যাটা আসলে আমাদের শহরের রাস্তাগুলোই,যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রসস্ত। কোন পৌর শহরের রাস্তাই এরকম হতে পারে না। পাশের উপজেলা হোসেনপুরেও ডিভাইডার দিয়ে অনেক সুন্দর ও প্রসস্ত রাস্তা আছে, যেটা আমাদের নেই। আমার মতে রাস্তা প্রসস্ত না করে কোনোভাবেই শহরের যানজট লাঘব করা সম্ভব নয়।

নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের কিশোরগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো: শফিক কবির কিশোরগঞ্জ শহরের অসহনীয় যানজট বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন বলেন, প্রশাসন, ট্রাফিক বিভাগ ও পৌর কর্তৃপক্ষ এই যানজটের দায় কোনোভাবেই এড়াতে পারেন না। শহরের প্রত্যেকটা জায়গায় ভ্রাম্যমান ভ্যানগাড়ি নিয়েও তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি আরও বলেন, এটা একটি অপরিকল্পিত শহর!

কিশোরগঞ্জ শহরজুড়ে অসহনীয় যানজট

ছবিটি আজ বিকেলে শহরের শহীদি মসজিদ সংলগ্ন ষ্টেশান রোড থেকে তোলা।

এবিষয়ে সনাক কিশোরগঞ্জ জেলার সহ-সভাপতি বলেন, পৌর এলাকার ভেতরে যানজটের অন্যতম কারন অপরিকল্পিত পরিবহন ব্যবস্থাপনা, সেই সাথে ফুটপাতগুলো বানিজ্যের পশরায় দখল হয়ে থাকা। শহর তার ধারন ক্ষমতার চাইতেও অধিক যানবাহন ধারন করছে প্রতিনিয়ত। ফলে মানুষের যোগাযোগের সহায়ক বাহনগুলোই হয়ে উঠছে বিড়ম্বনার অন্যতম কারন। পৌর এলাকার ভিতরে যোগাযোগ সুগম করতে প্রয়োজনীয় বাহনকে চিহ্নিত করে বাইরের সমস্ত বাহনকে একটি নির্দিষ্ট সময় ছাড়া ভিতরে প্রবেশের কঠিন নিষেধাজ্ঞাই পারে যানজটের বিড়ম্বনা লাঘব করতে। সেই সাথে স্থায়ী সমাধানে পরিকল্পিত উদ্যোগ এখনই প্রয়োজন।

কিশোরগঞ্জ সম্মিলিত নাগরিক ফোরামের আহ্বায়ক এনায়েত করিম অমি এবিষয়ে বলেন, শহরের যানজট সমস্যা সমাধানের জন্য পৌরসভাকেই উদ্যোগ নিতে হবে। তারপর সম্মিলিতভাবে সবাই চেষ্টা করলে যানজট কমে আসতে বাধ্য।

শহরের একরামপুর, গৌরাঙ্গ বাজার মোড়, কালী বাড়ী মোড়, বড় বাজার, জাহাঙ্গীরের মোড়, মোরগ মহল, আঠারবাড়ী কাচারী মোড়, আখড়া বাজার এলাকায় প্রায় প্রতিদিনই অসহনীয় যানজট লক্ষ্য করা যায়। দীর্ঘসময় এসব এলাকায় যানবাহনের চালক ও যাত্রীদের অপেক্ষা করতে হয়। কিছু কিছু মোড়ে ট্রাফিক পুলিশ না থাকায় যানজট লেগেই থাকে।

যানজটের কারণ হিসেবে কিছু কারণ জানা যায় সাধারণ নাগরিক ও পথচারীদের কাছ থেকে। তার মধ্যে-

  • শহরে প্রয়োজনের তুলনায় গাড়ির সংখ্যা অনেক বেশি। যে পরিমাণ ব্যাটারী চালিত গাড়ী কিশোরগঞ্জ পৌরসভা অনুমোদন দিয়েছে তার ৪/৫ গুণ গাড়ি প্রতিদিন চলাচল করে।
  • শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে রাস্তার দু’পাশে ভ্যান গাড়ীতে সবজী, ফল, কাপড় নিয়ে ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করছে।
  • মূল রাস্তা ছাড়া ছোট রাস্তাগুলো চলাচলের অযোগ্য হয়ে আছে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকর্মকান্ডের জন্য। রাস্তাগুলোতে ইট-বালু-সুড়কি ফেলে রাখা হয়েছে যত্রতত্র।
  • রমজান মাস থাকায় দুপুরের পর পরই দেখা যায় ফুটপাট বন্ধ করে ইফতারর পসরা সাজিয়ে বসে থাকেন হোটেল ব্যবসায়ীরা।
  • আবাসিক হোটেল, রেস্তোরা, ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে পার্কিং ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিষ্ঠানের গুলোর সামনে রাস্তা বন্ধ করে রাখে শত শত মোটর সাইকেল।
  • নির্দিষ্ট সময়ের আগেই (সন্ধ্যায়) শহরে ভিতর বিভিন্ন কোম্পানীর টান্সপোর্টের অবাদ চলাচল।

তাছাড়াও শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য ও মানুষের চলাচলের জন্য নরসুন্দার ওপর দিয়ে যে দৃষ্টিনন্দন ব্রীজগুলো তৈরী করা হয়েছে সেগুলোও অবৈধভাবে ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীদের জন্য দখল হয়ে আছে। হাটা-চলাচলের জন্য ফুটপাত না পেয়ে মানুষ এখন মূল রাস্তা দিয়েই হাঁটতে অভ্যস্ত হচ্ছে!

সামনে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর। ঈদের কেনাকাটার জন্য এখনের চেয়েও দ্বিগুণ মানুষ প্রবেশ করবে শহরে। অথচ এখন পর্যন্ত প্রশাসন ও পৌরসভা থেকে কোনো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা চোখে পড়েনি।

 

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: