বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ০১:৫০ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জে ৪ হাওরসহ ১০ উপজেলার দেড় লাখ মানুষ পানিবন্দি

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৩ জুন, ২০২২
কিশোরগঞ্জে ৪ হাওরসহ ১০ উপজেলার দেড় লাখ মানুষ পানিবন্দি

কিশোরগঞ্জের ৪ হাওরসহ ১০ উপজেলার ৬৪টি ইউনিয়নের ২২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার দেড় লাখেরও বেশি মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এরইমধ্যে ১৩ হাজার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে।

বানের জলে ভেসে গেছে, শতশত মাছের ঘের ও পুকুর। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে গবাদি পশু। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্গতদের জন্য ১৪০ মেট্রিক টন চাল, দুই হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট ও নগদ ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন কুমার পাল জানান, বন্যায় এ পর্যন্ত জেলায় ৫২৫টি মাছের পুকুর ও ঘর ভেসে গেছে। এতে চাষিদের ৩ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় জেলার ১৩টি উপজেলার মধ্যে ১০টি উপজেলা প্লাবিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) পর্যন্ত নিকলীর উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন, ইটনা উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন, অষ্টগ্রামের আটটি, মিঠামইনের সাতটি, তাড়াইলের সাতটি, করিমগঞ্জের ১১টি, , কটিয়াদীর তিনটি, বাজিতপুরে পাঁচটি, কুলিয়ারচরে দুটি ও ভৈরব উপজেলায় পাঁচটি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার প্রায় দেড় লাখ লোকজন পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

জেলা প্রশাসক মো. শামীম আলম বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে প্রতিদিন ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। এ পর্যন্ত ৫ হাজার ৫১৫ জনকে ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। ২৫৯টি আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় ১৪ হাজার মানুষকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় নিয়মিত পরিদর্শন করে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলা ও ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনায় স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুত আছে। এদিকে, দুর্গত এলাকায় সেবা দিতে স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে ১৬৮ সদস্যের মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. সাইফুল ইসলাম বলেন, বন্যা ও দুর্যোগকালে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১৬৮ সদস্যের মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। তারা এরইমধ্যে জেলার ১৩টি উপজেলায় ভাগ হয়ে দায়িত্ব পালন করছে।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2022 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: