বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৫:০৬ অপরাহ্ন

নারী দিবসের প্রতিজ্ঞা হোক দ্রোহের, মানুষের সমাজ প্রতিষ্ঠার

আইরিন রুবিনা হক লিয়া
  • আপডেট সময় সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১
  • ১৮৮ বার পড়া হয়েছে
নারী দিবসের প্রতিজ্ঞা হোক দ্রোহের, মানুষের সমাজ প্রতিষ্ঠার

নারী পুরুষ দুজনের সমন্বিত চেষ্টায় গড়ে উঠেছে আমাদের মানব সভ্যতার ইতিহাস। নারীর গর্ভেই আমাদের জীবনের আলোকিত বিকাশ। শুধু জন্মের বিষয়টি মাথায় রাখলেই নারী কে মর্যাদা আর সম্মান জানানোর জন্য আলাদা কিছুর প্রয়োজন হয়না।

.

৮ই মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসের মধ্য দিয়ে নারীত্বের উৎসব পালন করা হয় বিশ্বব্যাপী । বাংলাদেশ’সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক নারী সমাজ এই দিনটি পালন করে বিভিন্ন সভা ও সেমিনারের মাধ্যমে। ১৮৫৭ সালে ৮ মার্চ আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে একটি সূচ কারখানার মহিলা শ্রমিকগণ কারখানার মানবেতর পরিবেশ, অসম মজুরি ও ১২ ঘন্টা কর্মদিবসের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করলে তাদের উপর পুলিশি নির্যাতন শুরু হয় ও মহিলা শ্রমিক কারাগারে নিক্ষিপ্ত হন। পরবর্তীতে ১৮৬০ সালে ৮ মার্চ নিউইয়র্কের সূচ কারখানার মহিলা শ্রমিকরা মহিলা শ্রমিক ইউনিয়ন গঠন করেন এবং নিজেদের আন্দোলন চালিয়ে যেতে থাকেন। ১৯০৮ সালের ৮ই মার্চ নিউইয়র্কের দর্জি শ্রমিকরা নারীর ভোটাধিকারের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে এবং ১৯১০সালে নারীর ভোটাধিকার স্বীকৃত হয়। এই সূত্র ধরে ক্লারা জেটকিন ১৯১০সালে পার্টির সম্মেলনে সিদ্ধান্ত নেন যে প্রতিটি দেশের নারী শ্রমিকরা প্রতি বছর মার্চের যে কোন একটি দিন নারীর অধিকার রক্ষা দিবস হিসেবে পালন করবে।

.

১৮৫৭ ও ১৯০৮ সালের ৮মার্চ সংগ্রামের সূচনা দিবস হওয়ায় ৮ই মার্চ কে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালনের জন্য নির্বাচন করা হয়। ১৯১০সালের ২৭আগস্ট কমিউনিটি নেত্রী ক্লারা জেটকিন ও কাথে ডাঙ্কার স্বাক্ষরিত একটি ঘোষনাপত্র কোপেনহেগেনে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নারী সম্মেলনে গৃহীত হয়। এই সম্মেলনে ১৭টি দেশের ১০০ জনের ও বেশি নারী প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। এদের উপস্থিতিতে ৮মার্চ এ দিনটিকে আন্তর্জাতিক নারী দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জাতিসংঘ ৮ই মার্চ এ দিনটিকে স্বীকৃত দেয়।

 

এই লিখাটি পড়ুন: করোনাকালীন অনলাইন প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকারের উপায়

একবিংশ শতাব্দীর বিশ্বে আমরা যখন নারী দিবস পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছি তখনও বিশ্ব নারী সমাজের অবস্থা কিন্তু মোটেও সুখকর নয়। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নারী সমাজের অবস্থা এখনো রীতিমত আশঙ্কাজনক। এসকল দেশসমূহে দারিদ্রসীমার নিচে রয়ে গেছে প্রায় ৬০কোটি নারী। অপরদিকে উন্নত দেশগুলোতেও দারিদ্রসীমার নিচে বাস করা নারীদের সংখ্যাও কম নয়। ইতালি, নরওয়ে, ফ্রান্স বা সুইজারল্যান্ডের মতো দেশসমূহে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ নারী দারিদ্রসীমার নিচে বাস করে। বিশ্বে অশিক্ষিত জনসংখ্যার দুই তৃতীয়াংশ ই নারী এবং বিশ্বে দারিদ্রসীমার নীচে বসবাসকারী দের ৭০ শতাংশ’ই নারী। বেগম রোকেয়া থেকে সুফিয়া কামাল তারা এদেশের অবহেলিত নারীদেরকে দাসত্বের শৃখ্ঙখলা থেকে নারী মুক্তির অবিচ্ছেদ্য আন্দোলনে লিপ্ত ছিলেন। তাদের থেকে আমরা অনুপ্রাণিত হয়েছি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে এদেশের নারীরা এখনো পুরুষতান্ত্রিক সমাজের দাসত্ব থেকে মুক্ত হতে পারেনি। শিক্ষিত নারীরাও আজ শারিরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতিত হয়ে পুরুষের দাসত্বের বেড়াজালে আবদ্ধ।

  • এদেশের সমাজ ব্যবস্থা আজও নারীকে পূর্ণ স্বীয় স্বাধীনতা দিতে পারেনি।
  • আজও অসংখ্য নারী এসিড নিক্ষেপ, ধর্ষণ আর যৌতুকের শিকার হচ্ছে।
  • গৃহ পরিচারিকার উপর চালানো হচ্ছে অমানবিক নির্যাতন।
  • এমন একটি দিনও নেই যেদিন খবরের কাগজে নারী নির্যাতনের দু’একটি মর্মান্তিক ঘটনা না ছাপা হয়।
  • কর্মক্ষেত্রে আজও তারা নিরাপদে বাড়ি ফিরতে শঙ্কিত।

যদিও বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডে নারী সমাজের অংশগ্রহণ লক্ষণীয়। নারী এগিয়ে যাচ্ছে একথা যেমন ঠিক, তেমনি প্রযুক্তির এ যুগে এসেও অনেক নারীকে পরনির্ভরশীল জীবনযাপন করতে হচ্ছে। আমাদের চারপাশে এমন অনেক নারী আছেন যারা নিজের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হচ্ছেন, দেশের উন্নয়নে অবদান রাখছেন। নারীর উন্নয়ন আর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান সরকার দেশের নারী সমাজের উন্নয়নে এবং অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। নারীর ক্ষমতায়ন ও জেন্ডার সমতা নির্ধারণে সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় নারীর সামর্থ্য উন্নীতকরন, নারীর অর্থনৈতিক প্রাপ্তি বৃদ্ধিকরন, নারীর মতপ্রকাশের মাধ্যমে সম্প্রসারণ এবং নারী উন্নয়নে সার্বিক পরিবেশ সৃষ্টির বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

 

.

আশার কথা হলো, নারীর শিক্ষা ও উন্নয়নের গুরুত্ব দেরীতে হলেও বুঝতে শুরু করেছে বিশ্বব্যাপী। নিজের অধিকার আদায়ের জন্য পরিবার ও সমাজে যুদ্ধ করে যাচ্ছেন এমন অনেক নারী আমাদের আশেপাশে রয়েছেন। যোগ্যতা ও বুদ্ধিমত্তায় নারী কোন অংশে পুরুষের কম নয় তাই নারীদের প্রতিযোগি না ভেবে সহযোগী এবং পরিপূরক হিসেবে চিন্তা করতে হবে। নারীর উপর চাপিয়ে দেওয়া সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের মানসিকতা তৈরি করতে হবে। তাহলে নারী হয়ে উঠবে আরো আত্মবিশ্বাসী। নারী পুরুষের সম্মিলিত সহযোগিতা ই পারে একটি উন্নত, সভ্য ও সমৃদ্ধ বিশ্ব প্রতিষ্ঠা করতে।

.

বস্তুত নারীর মর্যাদা আর অবস্থান থেকেই অনুধাবন করা যায় একটি দেশ কতখানি সভ্য এবং উন্নত। তাই নারীকে পূর্ণাঙ্গ মর্যাদা দেওয়ার জন্য জাতি, ধর্ম, বর্ণ, পেশা শ্রেণি নির্বিশেষে সকলের গণতান্ত্রিক সমানাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। নারীকে দিতে হবে তার ন্যায্য পারিশ্রমিক ও যথাযথ মর্যাদা। তবেই নারী শুধু নারী হিসেবে নয় মানুষ হিসেবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হতে পারবে।

 

লেখক: আইরিন রুবিনা হক লিয়া, সহকারি শিক্ষক, সেওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিশোরগঞ্জ সদর, কিশোরগঞ্জ।

Tahmina Dental Care

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: