বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ০৫:৫৯ পূর্বাহ্ন

নিকলীর হাওরে বৈশাখী হাওয়া পুরোদমে শুরু হয়েছে বোরো ধান কাটা

দিলীপ কুমার সাহা, নিকলি, কিশোরগঞ্জ
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৭৭ বার পড়া হয়েছে

বোরো ফসলের মাঠে এখন পাকা ধানে সোনালি হাসি । বৈশাখের উজ্জল রোদে সেই হাসি আরও ঝলমল করে উঠছে। অনেক কৃষকেরা কাস্তে নিয়ে ধান কাটার উৎসবে নেমে পড়েছেন। আবহাওয়া ও পরিবেশ অনুকুল থাকায় এ বছর ধানের ফলন ভালো হয়েছে। এতে কৃষকের মন ভরেছে।

গত সোমবার (১৯ এপ্রিল) সারা দিন কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার বিভিন্ন মাঠ ঘুরে ও কৃষকের সঙ্গে কথা বলে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

বৈশাখ এলেই কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার হাওরাঞ্চলের চিরচেনা এ রূপ চোখে পড়ে। ঠা-ঠা রোদ মাথায় নিয়ে খেতে ধান কাটছেন কৃষকেরা। সেই সোনালি ধান মাথায় কিংবা কাঁধে বয়ে নিয়ে আসা হচ্ছে। অন্যদিকে চলছে মাড়াই। কৃষানিরা মনের আনন্দে মাড়াই করা ধান বাতাসে ওড়াচ্ছেন। খলাতেই শুকাচ্ছেন ধান। বিকেলের শান্ত রোদে শুকনো ধান মাথায় নিয়ে বাড়ি ফিরছেন কৃষানিরা। ধান গোলায় ভরে তবেই স্বস্তি।

হাওরে ধান কাটার এ উৎসবে শুধু কিষান-কিষানি নন, বাড়ির সব বয়সী মানুষই যোগ দেন। হাওরে এ এক অন্য রকম উৎসব। চলে বৈশাখজুড়ে। ফসল গোলায় তোলার এ উৎসবের কাছে কাঠ ফাটা রোদ,ঝড়-বৃষ্টি সবই যেন তুচ্ছ। ধানের সবুজ শিষের রং যখন লালচে হতে শুরু করে, তখন কৃষকের মনের রং বদলায়। চোখ-মুখ খুশিতে ভরে ওঠে। প্রস্তুতি শুরু করেন ধান কাটার। বাড়ির পাশে কিংবা হাওরের কোনো জায়গায় তৈরি করা হয় খলা (ধান কেটে মাড়াই করার স্থান)। খলা তৈরিতে মূল ভূমিকা রাখেন কিষানিরা। নতুন ধানের সঙ্গে মনের আনন্দে একটি মাস এ খলাতেই বেশি সময় কাটান বাড়ির গৃহিণীরা।

এ সময় কাঁধে ধানের বোঝা নিয়ে আসেন কয়েকজন কৃষক। কাঁধ থেকে ধান নামাতে নামাতে সিংপুর গ্রামের আলতু মিয়া বলেন, ‘ইবার ধান ভালা অইছে বা। দিনের ভাবও (আবহাওয়া) ভালা। আমরার একটা মাস পাইলেই অয়। পাশ থেকে কৃষক স্বপন মিয়া বলেন, এক মাস না, ঠিকমতো ১৫ দিন অইলেই ধান তুলি লিতাম পারমু। আর এক মাস অইলেত খুবই ভালা।

কৃষকেরা জানালেন, নিকলীতে সাতটি বড় হাওর। এ হাওর গুলোতে উপজেলার কৃষকদের জমি আছে। একমাত্র ফসল হলো বোরো ধান। এ ধানের ওপরই তাঁদের সবকিছু নিভর করে। ঘরের খাওয়া-দাওয়া, বিয়েশাদি, ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া, আনুষঙ্গিক ব্যয় সবকিছুই বোরো ফসল থেকে আসে। কোনো কারণে ফসল গোলায় না উঠলে কৃষক পরিবারের দুঃখের আর সীমা থাকে না। তবে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নিয়ে তাঁরা সন্তুষ্ট নন। কৃষক কাবিল সর্দারের কথা, ফসল রক্ষা বাঁধ হয় নামে মাত্র। মূলত প্রকৃতির ওপরই তাঁদের ভরসা। আগাম বন্যা নিয়ে যত শঙ্কা তাঁদের।

নিকলী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর ৩৮ হাজার ৮৬৩ একর জমিতে বোরো ফসল আবাদ সরকারি লক্ষ্যমাত্রা ছিল। চাষাবাদ হয়েছে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ হাজার একরের বেশি জমি। এ বছর ধানের উৎপাদনও ভালো হয়েছে।সুষম সার ব্যবহারে এবং কৃষকের দক্ষতার কারণে এই সুফল মিলেছে বলে কৃষি বিভাগ জানিয়েছে। তবে গত ১৫ দিন আগে গরম বাতাসে উপজেলার ১ হাজার একর বোরো ধান নষ্ট হয়েছে। সোমবার বিভিন্ন মাঠ ঘুরে ভালো ফসল দেখা গেছে।যেদিকে চোখ যায়, বোরো ধানের জমিতে পাকধরা বিস্তর সোনালি রঙের ঢেউ খেলছে। অনেকে উৎসবের আনন্দে ধান কাটতে শুরু করেছেন।

কয়েকজন কৃষক জানান, এবার বোরো চাষের সময় বৃষ্টি না হওয়ায় জমিতে সেচ দিতে গিয়ে কৃষকরা হিমশিম খেতে হয়েছে। কৃষকরা আরো জানান ,এলাকায় শ্রমিকসংকট রয়েছে। এখনো দেশের অন্যান্য স্থান থেকে সব শ্রমিকেরা এসে নিকলীতে পৌছাননি। ফলে ধান পেকে গেলেও অনেক জমির ধান কাটা সম্ভব হচ্ছে না। একজন শ্রমিকের মজুরি রোজ ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা বলে তারা জানালেন।

 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, যথেষ্ট ভালো ফলন হয়েছে। সময় মতো বৃষ্টিপাত না হলেও অনুকুল আবহাওয়ার কারণে উৎপাদন ভালো হয়েছে। বলতে পারি, উৎপাদন সরকারি লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে। গত সোমবার পর্যন্ত উপজেলার প্রায় ৩৫% ধান কাটা হয়েছে। কৃষি কর্মকর্তা নিজেও স্বীকার করলেন, ধানের দাম কম হওয়ায় কৃষকের মধ্যে হতাশা আছে। যদিও একটু-একটু করে ধানের দাম বাড়ছে। তার মতে এখন ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকায় মণ বিক্রি হচ্ছে। সেটা ১২০০ পর্যন্ত যেতে পারে। দাম বেড়ে গেলে কৃষকের এই হতাশা আর থাকবে না ।

amena.com.bd

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2021 Onenews24bd.Com
Site design by Le Joe
%d bloggers like this: