বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৬:০৪ অপরাহ্ন

ভৈরবে ভিক্ষুকের কোলে ফেলে যাওয়া নবজাতককে নিয়ে এসিল্যান্ডের হৃদয়বিদারক স্ট্যাটাস

হৃদয় আজাদ, ভৈরব প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় রবিবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৩০৪৫ বার পড়া হয়েছে

শীতের রাতে বাস থেকে নামলেন এক নারী। কোলে ফুটফুটে নবজাতক কন্যা শিশু। একই সময় রাস্তার পাশে বসে ভিক্ষা করছিলেন আরেক নারী। টয়লেটে যাবার কথা বলে নিজের কোলে থাকা নবজাতককে ওই ভিক্ষুকের কোলে দিয়ে চলে যান বাস থেকে নেমে আসা সেই নারী। সেই যে গেলেন আর ফিরে আসেননি। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা শেষে ভিক্ষুক মহিলা নবজাতক শিশুটিকে পাশের এক ঔষধের দোকানে নিয়ে যান। দোকানি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তাকে অবগত করালে ইউএনও এর নির্দেশে শিশুটির স্থান হয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরিক্ষা শেষে নবজাতকের সুস্থতা নিশ্চিত করেন চিকিৎসকরা। ঘটনাটি কিশোরগঞ্জের ভৈরবের। ঘটনাটি বিভিন্ন গণমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে মুহূর্তেই। অনেকে শিশুটির দায়িত্ব নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে মন্তব্য করেন। অনেকের মধ্যে নিজের মতামত প্রকাশ করতে বাদ পড়েননি ভৈরব উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) হীমাদ্রী খীশা। যা হৃদয় ছুয়ে গেছে প্রতিটি মানুষের। নবজাতককে নিয়ে এসিল্যান্ড হীমাদ্রী খীশার ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরা হলো…….

“নিষ্ঠুর মা নাকি তোকে রেখে পালিয়ে গেছে। তুই মেয়ে হয়ে জন্মেছিস বলে? নাকি তোর নিষ্ঠুর পিতা চায়নি তুই পৃথিবীতে আসবি। আশ্চর্য! তোকে নাকি এখনো কেউ একবারও কাদতে দেখেনি। তুই ঠিক বুঝে গেছিস এখন আর তাদের জন্য কেদে কি হবে যাদের একটুও বুক কাপেনি তোকে শীতের মধ্যে রাস্তায় রেখে যেতে। ভালো থাকিস। হয়তো তোর জন্য অজানা সুন্দর ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে”

নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে আজ রবিবার সকাল দশটার দিকে নবজাতকের একটি পটোর সাথে ক্যাপসন হিসেবে স্ট্যাটাসটি তিনি আপলোড করেন। স্ট্যাটাসে অগণিত মানুষ নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

এদিকে তিনজন নার্সের সার্বিক পরিচর্যায় তিনদিন বয়সী শিশুটি সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএইচও ডাঃ বুলবুল আহমেদ। এছাড়াও গত শুক্রবার রাত থেকেই শিশুটির সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের চিকিৎসাসেবা প্রদান করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

অপরদিকে নবজাতক মেয়েটির জন্য নতুন জামা-কাপড় কিনে নিয়ে হাসপাতালে যান উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা। নবজাতকের সুন্দর ভবিষ্যত কামনা করেন ইউএনও লুবনা ফারজানা বলেন, শিশুটির দায়িত্ব নিতে অন্তত ৮/১০জন আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু আমরা শিশুটিকে সমাজকল্যাণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে আদালতে প্রেরণ করবো। আদালতের সীদ্ধান্তেই শিশুটির ঠিকানা নিশ্চিত হবে।

এদিকে ভৈরব উপজেলা সমাজ কল্যাণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা রিফ্ফাত জাহান ত্রপা জানান, শিশুটি এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসকদের তত্বাবধানে আছে। এসংক্রান্তে ভৈরব থানার জিডির পরিপ্রেক্ষিতে আগামীকাল জেলা প্রফেশান অফিসারের নিকট বাচ্চাটিকে হস্থান্তর করা হবে। পরে বাকি আইনি প্রক্রিয়া শেষে বাচ্চাটিকে ঢাকার ছোটমণি নিবাসে প্রেরণ করা হতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

© All rights reserved © 2020 Onenews24bd.Com
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com